হেফাজতের পদ ছাড়ার ঘোষণা

ধর্মঘটের সময় সহিংসতার ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে সংগঠনের কেন্দ্রীয় নায়েব আমির আবদুল আউয়াল হেফাজতে ইসলামের পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন।

সোমবার রাতে নারায়ণগঞ্জ শহরের ডিআইটি বাণিজ্যিক এলাকায় রেলওয়ে জামে মসজিদের শবে বরাত বিবৃতিতে উপস্থিত উপাসকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, তিনি আর হিফাজতের সাথে থাকবেন না।

হেফাজতের নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির আমির আবদুল আউয়াল রেলওয়ে জামে মসজিদের খতিব মো। তাঁর বক্তব্যের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে এবং তাকে নিয়ে তুমুল আলোচনা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য আবদুল আওয়ালের সাথে মঙ্গলবার দুবার তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলেও তার খাদেম মাহাদী হাসান তাকে ধরে ফেলেন। তিনি রংপুর ডেইলীকে বলেছিলেন, ‘তিনি (আবদুল আউয়াল) ব্যস্ত, এখন কথা বলতে পারবেন না।’ তার পদত্যাগের ঘোষণার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেছিলেন, ‘কোনও চাপ নেই। তিনি পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের সময় প্রতিবাদ সমাবেশে পুলিশি হামলার প্রতিবাদে হেফাজতে ইসলাম ২৭ শে মার্চ ধর্মঘট ডেকেছিল। কর্মসূচির সময় নারায়ণগঞ্জের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে প্রচুর সহিংসতা হয়েছিল। ধর্মঘটকারীরা বেশ কয়েকটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং পুলিশের সাথে সংঘর্ষে অনেকে আহত হয়।
গ্রুপের অন্যতম মুখপাত্র নায়েব আমির বলেন, “ধর্মঘটের সকালে আমাকে মসজিদের ভিতরে আটক করা হয়েছিল।” তারা (র‌্যাব-পুলিশ) আমার কাছে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে যে উপরে থেকে সরাসরি পদক্ষেপ নেওয়ার আদেশ রয়েছে। আমাদের কাছে অস্ত্র নেই, আমরা কি তাদের সাথে রাখতে পারি? পরে আমি সংবাদে শুনেছি যে শিমরাইলে ১৭ টি গাড়ি পুড়ে গেছে। ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে যে কারা জ্বলেছিল, কিছু সন্ত্রাসী জ্বলেছিল, কিন্তু আমাদের ছাত্ররা কেউ নয়। এখন তারা (পুলিশ) বলছে, আপনি যদি আমাদের কথা না শুনেন তবে এই সমস্ত মামলা আপনার নামে হত। ‘

আবদুল আউয়াল বলেছিলেন, ‘তারা (পুলিশ) আমাদের বোঝে না, আমাদের (হেফাজত) খুব উত্সাহী মানুষ আমাদের বুঝতে চায় না। তারা বলছে, স্যার, আপনি কেন তাদের আদেশ ভঙ্গ করলেন না? আমি আর আপনার হেফাজতে থাকব না, আমি মসজিদে থাকব। আপনি যারা খুব উত্সাহী, আপনি না। আমি তোমার সাথে থাকব না। এখন আমার বার্ধক্যে অসুস্থ লোকেরা দাঁড়াতে পারে না, হাঁটতে পারে না। তাই আমি আর হেফাজতকে নেতৃত্ব দেব না, আমি কোনও আন্দোলনে যাব না।

Leave a Comment