২৪ বছর আগে করোনা মহামারী সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন এক অন্ধ মহিলা

বাবা ভাঙ্গা ২৪ বছর আগে করোনার বিষয়ে বলেছিলেনবাবা ভাঙ্গা ২৪ বছর আগে করোনার বিষয়ে বলেছিলেন

১৬০০ শতকের পদার্থবিদ ও জ্যোতির্বিজ্ঞানী – নস্ট্রাদামুসকে, বিশ্বের ইতিহাসে সর্বশ্রেষ্ঠ ভবিষ্যৎ বক্তা হিসাবে বিবেচিত হয়। ১৫৫৫ সালে তিনি মোট ৯৪২ ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন। তাঁর বেশিরভাগ ঘটনা ঘটেছে  বলে দাবি করা হয়। তাঁর ভবিষ্যদ্বাণীগুলির ভাষা এবং ইঙ্গিতগুলি বিতর্কিত হলেও সেগুলো এখনও অনুশীলন করা হয়। সেই ধারাবাহিকতায় আধুনিক বিশ্ব আরেক নস্ট্রাদামুসকে খুঁজে পেয়েছে। তাকে এ যুগের নস্ট্রাদামুস বলা হয়। তিনি হলেন বুলগেরিয়া অধিবাসী মহিলা ভ্যাঞ্জেলিয়া প্যানদেভা দিমিত্রোভা। এই অন্ধ মহিলা বাবা ভাঙা হিসেবে বিখ্যাত। তিনি ১৯৮৯ সালেই ২০০১ সালের টুইন টাওয়ারের হামলার কথা উল্লেখ করেছিলেন। তিঁনি জলবায়ু পরিবর্তন, ২০০৪-এ সুনামি, এমনকি সর্বশেষতম মহামারী, করোনার ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন। এই ভবিষ্যদ্বাণীগুলি তাকে বিখ্যাত করেছে। তাঁকে নিয়ে এখনও আলোচনা চলছে।

সাধারণ ভ্যাঞ্জেলিয়ার গল্প

তিঁনি বাবা ভাঙ্গা নামে পরিচিত হলেও পৃথিবী কাঁপানো এই অন্ধ মহিলার নাম ভেঞ্জেলিয়া পানদেভা দিমিত্ত্রোভা । বুলগেরিয়ার রহস্যময় আধ্যাত্মিক শক্তির এই মহিলাকে এই যুগের নস্ট্রাদামুস বলা হয়। তিনি তাঁর জীবনের বেশিরভাগ সময় বুলগেরিয়ার কুজহু পার্বত্য অঞ্চলে রুপীটি নামে একটি জায়গায় কাটিয়েছেন। তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৯১১ সালের ৩১ জানুয়ারী উসমানীয় সাম্রাজ্যের (বর্তমানে ম্যাসেডোনিয়া প্রজাতন্ত্রের) স্ট্রোমিকাতে। এই অঞ্চলটি প্রথম বলকান যুদ্ধের সময় বুলগেরিয়া দ্বারা সংযুক্ত ছিল। ভ্যাঞ্জেলিয়া শৈশব থেকেই স্বাস্থ্য জটিলতায় ভুগছিলেন। জন্মের পরেও দীর্ঘদিন ধরে তার কোনও সাড়া ছিল না। তৎকালীন স্থানীয় ঐতিহ্য অনুসারে, কোনও সন্তানের জন্মের পরে শিশুটির বেঁচে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত নামকরণ করা হয় না। কিছুক্ষণ পরে ধাত্রী রাস্তায় বেরিয়ে এলে শিশু ভ্যানগেলিয়া কাঁদল। প্রথা অনুসারে, ধাত্রী তার নাম রাখার জন্য এক অপরিচিত ব্যক্তিকে অনুরোধ করেছিল। অপরিচিত লোকটি শিশুর নাম আন্দ্রোমাহা রাখতে চেয়েছিল। তবে এই নামটি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল কারণ এটি গ্রীক নামের সাথে খুব মিল ছিল। তারপরে আরেক অপরিচিত ব্যক্তির নাম ভেঞ্জেলিয়া রাখার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। এই নামটি গ্রীক নামের সাথেও মেলে। এটি গ্রহণ করা হয়েছিল কারণ এটিতে বুলগেরিয়ান ভাব ছিল। শেষ পর্যন্ত শিশুর নাম ভেঞ্জেলিয়া প্যানদেভা দিমিত্রোভা  রাখা হয়েছিল।

ছোটবেলায়, ভেঞ্জেলিয়ার নীল চোখ এবং সোনালী চুল ছিল। তাঁর বাবা অভ্যন্তরীণ ম্যাসেডোনিয়া বিপ্লবী সংস্থার সক্রিয় সদস্য ছিলেন এবং প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় বুলগেরিয়ান সেনাবাহিনীতে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ভ্যাঞ্জেলিয়ার মা শৈশবে মারা গিয়েছিলেন এবং তার বাবা পুনরায় বিয়ে করেছিলেন। ফলস্বরূপ, ভ্যাঞ্জেলিয়া একজন সৎ মায়ের আশ্রয়ে বড় হয়েছিল।

সেই অসহায় মেয়ে

কথিত আছে যে ভ্যাঞ্জেলিয়া যখন মাত্র ১২ বছর বয়সে তার সতীর্থদের সাথে খেলতে গিয়ে এক ভয়াবহ ঝড়ের কবলে পড়েছিলেন। সেই ঝড় ভ্যাঞ্জেলিয়াকে  উড়িয়ে দিয়েছে। কিছুদিন পরে তাকে পাওয়া গেলে দেখা গেল যে তার দু’চোখের অবস্থা খুব খারাপ। ধুলা এবং ময়লা চোখের  উপর জমে তার চোখে একটি শক্ত আবরণ তৈরি হয়েছিল। অসহায় মেয়েটির দরিদ্র পরিবার তার উন্নত চিকিৎসা করার সামর্থ্য রাখে না। ফলস্বরূপ, তাকে ভাগ্যের নির্মম পরিণতি গ্রহণ করতে হয়েছিল এবং জীবনের জন্য অন্ধত্ব গ্রহণ করতে হয়েছিল।

সেই ঝড় থেকে আজব শক্তি

অন্ধ হয়ে যাওয়ার পরে ভেঞ্জেলিয়া এক অদ্ভুত দাবি নিয়ে বসেছিলেন। তিনি বলেছিলেন যে বিপর্যয়কর ঝড় যখন তাকে উড়িয়ে দিয়েছে, যখন তিনি দৃষ্টি হারিয়েছেন তখন তিনি বুঝতে পারেন যে তাঁর মধ্যে একটি অদ্ভুত শক্তি রয়েছে। যেন তিনি তাঁর দৈব দৃষ্টি দিয়ে ভবিষ্যতের জগতকে দেখতে পাচ্ছেন। শুধু তাই নয়, তাঁর স্পর্শের মাধ্যমে মানুষকে সুস্থ করার ক্ষমতাও রয়েছে! ১৯২৫ সালে, ভাঙ্গাকে জেমুনের একটি স্কুলে ভর্তি করা হয়েছিল যেখানে তাকে ব্রেইলে পড়ানো হয়েছিল। সেখানে তিনি পিয়ানো বাজানো, বুনন, রান্না করা এবং পরিষ্কার করতে শিখলেন। তিনি এই স্কুলে তিন বছর অবস্থান করেন। এ সময় তাঁর সৎ মা মারা গেলে, তিনি তার সৎ ভাইদের যত্ন নেওয়ার জন্য দেশে ফিরে আসেন।

ভ্যাঞ্জেলিয়া থেকে বাব ভাঙ্গা

যখন দেখা গেল ভ্যাঞ্জেলিয়া সত্যিই ভবিষ্যতের কথা বলতে পারে। এমনকি স্থানীয়দের মধ্যে দৃঢ় বিশ্বাস ছিল যে ভ্যাঞ্জেলিয়াকে স্পর্শ করে সমস্ত জটিল রোগ নিরাময় করা যায়। ফলস্বরূপ, তিঁনি বুলগেরিয়ানদের কাছে “বাবা ভাঙ্গা” নামে পরিচিতি লাভ করে। বুলগেরিয়ান ভাষায় ‘বাবা’ শব্দের আক্ষরিক অর্থ ‘দাদি’ বা ‘জ্ঞানী মহিলা’। এই জাতীয় নামকরণ বাবা ভাঙ্গার ভবিষ্যৎ দর্শনের এবং লোকেদের  অসুখ নিরাময়ের ক্ষমতার কারণে। অন্যদিকে, তাঁর শক্তির কথা ধীরে ধীরে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। ফলস্বরূপ, ভবিষ্যতের ভবিষ্যদ্বাণী করার দক্ষতার কারণে তাকে “বালকানের নস্ট্রাদামুস” ডাকনাম দেওয়া হয়েছিল। আবার অনেকের কাছে ‘এই যুগের নস্ট্রাদামুস’। তিনি ১৯৯৬ সালে ৮৫ বছর বয়সে মারা যান। স্তন ক্যান্সারে মারা যাওয়া এই মহিলার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় বিশাল জনসমাগম হয়েছিল। তাঁর শেষ ইচ্ছা অনুসারে পেট্রিচের বাড়িটিকে যাদুঘরে রূপান্তর করা  হয় এবং এটি ২০০৮ সালে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা। যদিও তিনি চলে গেছেন, তাঁর কথাগুলি এখনও জনগণের জন্য উৎসাহের কারণ। সুতরাং তাঁর কথাগুলি মানুষকে আরও ৩০০০ বছর ধরে ভাবাতে বাধ্য করবে, কারণ তিনি ৫০৭৯ সাল পর্যন্ত ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন।

            বাবা ভাঙ্গা ২৪ বছর আগে করোনার বিষয়ে বলেছিলেন

গোটা বিশ্ব এখন মারাত্মক করোনভাইরাস নিয়ে লড়াই করছে। বাবা ভাঙ্গা বহু বছর আগেই এর ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এই সংবাদ প্রকাশ করেছে।

ডেইলি স্টার ইউকে জানিয়েছে যে ১৯৯৬ সালেই বাবা ভাঙ্গা করোনভাইরাসটি সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন। তাঁর মৃত্যুর আগে ৮৪ বছর বয়সে বাবা ভাঙ্গা সবাইকে এই মারাত্মক ভাইরাস সম্পর্কে সতর্ক করেছিলেন। সেই সময় বাবা ভাঙ্গার সাথে দেখা করেছিলেন এমন এক মহিলা দাবি করে এ কথা বলেন। ৭৩ বছর বয়সী এই মহিলার নাম নেশকা স্টেফানোভা। নেশকা দাবি করেছেন যে, বাবা ভাঙ্গা মহামারী সম্পর্কে কথা বলেছিলেন। বলেছিলেন `Neshka , The Corona will be all over us’.

 নেশকা বলেছিলেন যে সে সময় তিনি তার বাবা ভাঙ্গার এই কথার অর্থ বুঝতে পারেননি। এখন পুরো বিশ্ব করোনার সাথে যুদ্ধে লিপ্ত, তাই এই যুগের নস্ট্রাদামুস যা বলেছিলেন তা তিনি মনে করলেন। তিনি মুখ খুললেন কারণ তিনি সবাইকে অবহিত করার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছিলেন।

তাঁর চোখে ভবিষ্যতের পৃথিবী

বছরের পর বছর ধরে, বাবা ভাঙ্গা বিশ্বের ভবিষ্যত সম্পর্কে অনেক পূর্বাভাস দিয়েছেন। আপনার যদি বিশ্বের ভবিষ্যতের বিষয়ে সামান্য আগ্রহ থাকে তবে আপনি একবার দেখে নিতে পারেন। অবশ্যই হতবাক হবেন !

২০২৫-২০২৮

পৃথিবীর মুখ থেকে দুর্ভিক্ষ নির্মূল হবে। মানবজাতি খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে।

২০২৩

পৃথিবীর কক্ষপথ পরিবর্তিত হবে।

২০৩৩-২০৪৫

পোলার আইস ক্যাপস, অর্থ দুটি মেরুর জমা বরফ, সম্পূর্ণ গলে যাবে।

২০২৮

লোকেরা জ্বালানীর নতুন উৎসের সন্ধানে শুক্রের দিকে যাবে।

২০৪৩

ইসলামিক স্টেট ইউরোপে প্রতিষ্ঠিত হবে। এবং এর রাজধানী হবে রোম। মুসলিম শাসনের অধীনে, বিশ্ব অর্থনীতি গতি অর্জন করবে।

২০৪৬

মানুষ অঙ্গ ক্লোনিং বা স্টেম সেল গবেষণায় দুর্দান্ত পদক্ষেপ নেবে এবং কৃত্রিমভাবে অঙ্গ তৈরির ক্ষমতা অর্জন করবে।

২০৬৬

মসজিদে হামলার পরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এমন একটি অস্ত্র ব্যবহার করবে যা হঠাৎ করে তাপমাত্রাকে কমিয়ে দেবে।

২০৭৬

কমিউনিজম বিশ্বে উত্থিত হবে এবং সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়বে।

২০৮৪

নতুন করে তৈরি হবে প্রকৃতি।

২০৮৮-২০৯৭

একটি নতুন ধরণের রোগ ছড়াবে যাতে লোকেরা খুব দ্রুত বৃদ্ধ হয়। ২০৯৭ এর মধ্যে লোকেরা এই রোগের প্রতিষেধক খুঁজে পেতে সক্ষম হবে।

২১০০

রাত কৃত্রিম রোদে আলোকিত হবে। তারপরে পৃথিবীতে সর্বদা দিন থাকবে, অন্ধকার কখনও থাকবে না।

২১০০-২১৩০

মানুষ জীবন্ত রোবট হয়ে উঠবে। এই অর্ধ-রোবট-অর্ধ-মানবকে বলা হবে ‘সাইবর্গ’ বা ‘সাইবর্স’।

২১৩০

মানুষ সমুদ্রের নীচে বসতি স্থাপনের মাধ্যমে বেঁচে থাকার ক্ষমতা অর্জন করবে। কাজটি ভিনগ্রহের প্রাণী বা প্রযুক্তির সহায়তায় করা হবে।

২১৫৪-২২০০

এই সময়ে প্রাণীগুলিও অর্ধ-মানব হয়ে উঠবে।

২১৭০

পৃথিবীতে খরা থাকবে।

২১৭০-২২৫৬

মানুষ মঙ্গল গ্রহে উপনিবেশ স্থাপন করবে।

২২৬২-২৩০৪

লোকেরা সময়-ভ্রমণ বা সময় নেভিগেশনে দক্ষতা অর্জন করবে।

২১৯৫

শহর সমুদ্রের জলের নীচে নির্মিত হবে।

২১৯৬

এশিয়া ও ইউরোপের মানুষ একত্রিত হয়ে নতুন জাতের মানুষ তৈরি হবে।

২৪৮০

কৃত্রিম দুটি সূর্যের মুখোমুখি সংঘর্ষ হবে। পৃথিবীতে নেমে আসবে অন্ধকার ।

৩০০৫

মঙ্গল গ্রহে বিশ্বযুদ্ধ হবে।

৩০১০

একটি ধূমকেতু চাঁদে অবতরণ করবে।

৩৭৯৭

পৃথিবীতে কিছুই বেঁচে থাকবে না, সবকিছু ধ্বংস হয়ে যাবে।

৪৩০২-৪৬৭৪

মানুষ অমরত্ব অর্জন করবে এবং ভিনগ্রহের প্রাণী বা এলিয়েনের সাথে তাল মিলিয়ে জীবনযাপন করতে অভ্যস্ত হয়ে উঠবে। মহাবিশ্বের জনসংখ্যা তখন প্রায় ৩৪০ বিলিয়ন হবে।

৫০৭৯

পুরো মহাবিশ্ব ধ্বংস হয়ে যাবে।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *