রংপুরে চলছে না গণপরিবহন

রংপুর একটি সম্ভাবনাময় ও প্রগতিশীল বিভাগ

সরকার ঘোষণার পরেও রংপুর মহানগরে গণপরিবহন চলছে না। সিটি কর্পোরেশনের এরিয়া কম হওয়ায় চালকরা গণপরিবহন ব্যবহার করছেন না।

বুধবার সকালে চালক, সহযোগী ও গণপরিবহণের তত্ত্বাবধায়করা রংপুর সেন্ট্রাল বাস টার্মিনালে এসে পৌঁছালেও গাড়িতে স্পর্শ করেনি। যাত্রীরা টার্মিনালে আসেনি। ফলস্বরূপ, গাড়িগুলি টার্মিনালে থাকে।

চালক আমিনুল ইসলাম জানান, রংপুর সিটি এলাকার দম দমা থেকে হাজিরহাট পর্যন্ত গণপরিবহন চালানোর সুযোগ রয়েছে। এর দৈর্ঘ্য মাত্র ১০ কিলোমিটার। তারা বলছেন যে আপনি যদি এত অল্প সময়ে গাড়ি চালান তবে তেলের অর্থ পাবেন না।

আবদুল খালেক নামে অপর চালক জানান, চট্টগ্রাম ও ঢাকা ব্যতীত আর কোনও শহরে গণপরিবহন চালানো সম্ভব হয়নি। রংপুর সিটিতে গাড়ি চালানোর ঘোষণা নাটক ছাড়া কিছুই নয়।

জলঢাকা যাওয়ার যানবাহনের সুপারভাইজার সাফিউল ইসলাম জানান, টিভিতে শিরোনাম ছিল যে গাড়িটি মহানগরীতে চলবে। এজন্য আমরা সকাল আটটায় যাত্রীবাহী স্ট্যান্ডে আসিনি। আর রংপুর সিটির যাত্রীরা রিকশা ও অটো চালকরা বহন করছেন। লকডাউনের সময় তাদের কম যাত্রী রয়েছে। তাদের অনেকে বসে আছেন। সুতরাং এই জাতীয় সিদ্ধান্ত পরিবহন খাতের সাথে একটি রসিকতা। তিনি আন্তঃজেলা গণপরিবহন চালুর দাবি জানান।

রংপুর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ জানান, গাড়ি চালাতে না পারায় শ্রমিকদের পেটে ভাত ছিল না। রংপুর সিটিতে পাবলিক ট্রান্সপোর্টের কোনও সুযোগ নেই। অতএব, আমি স্বাস্থ্য বিধি মেনে আন্তঃজেলা জনপরিবহন চালু করার দাবি করছি।

রংপুর মহানগর পুলিশ কমিশনার মো। আবদুল আলীম মাহমুদ বলেছেন, “সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী স্বাস্থ্য বিধি মেনে রংপুর শহর এলাকায় গণপরিবহন চলমান থাকলে আমরা সহযোগিতা করব।”

রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা বলেন, বাস্তবে নগর এলাকায় গণপরিবহণের মতো খুব কম অঞ্চলই রয়েছে। লোকেরা লকডাউনে কম বেরিয়ে আসছে। রিকশা অটোতে যত যাত্রী ঢাকা পড়েছে। যে কারণে সংশ্লিষ্টরা গণপরিবহন চালাচ্ছেন না।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *