মোগলাই খেয়ে জমজ বোনের মৃত্যু

চাঁপাইনবাবগঞ্জে হোটেলের মোগলাই পরাটা খেয়ে জমজ বোনের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার শহরের কালীতলা মহল্লায় এ ঘটনায় তাদের মাসহ দুজন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

নিহত মৃত স্বর্ণা (১৭) ও সম্পা (১৭) ওই মহল্লার সাদিকুল ইসলাম রবির মেয়ে। তারা দুজনেই নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিল। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে স্বর্ণা ও বেলা দেড়টার দিকে সম্পা মারা যায়।

মৃতদের বাবা সাদিকুল জানান, সোমবার বিকেলে শহরের পুরাতন বাজার এলাকার একটি হোটেল থেকে মোগলাই পরাটা এনে পরিবারসহ খান। এরপর রাতে তার স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন, মেয়ে স্বর্ণা ও সম্পা এবং আত্মীয় সিফাত (২০) অসুস্থ হয়ে পড়ে।

তাদের চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে স্বর্ণা ও তার মাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয় এবং সম্পা ও সিফাতকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে বাড়ি আসার পরেই স্বর্ণা মারা যায়। অন্যদিকে সম্পার অবস্থা আশংকাজনক হলে মঙ্গলবার দুপুরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথেই সম্পার মৃত্যু হয় ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার নুরুন্নাহার নাসু জানান, মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে স্বর্ণাকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসে পরিবারের লোকজন। সম্পা খাদ্যে বিষক্রিয়া নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে আমরা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠাই।

এদিকে শাহজাহান সুইটস নামে হোটেলের মালিক জামাল উদ্দিন নাসের জানান, ভোরে সাদিকুল ইসলাম এসে জানান, আমার হোটেলের মোগলাই খেয়ে নাকি তাদের পরিবারের কয়েকজন সদস্য অসুস্থ হয়েছে। পরে বেলা ১০টার দিকে তিনি আবার জানান তার এক মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। তবে সাদিকুল ইসলামের পরিবার ছাড়া আর কেউ আমার দোকানের মোগলাই খেয়ে অসুস্থ হননি।

এ ব্যাপারে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মিন্টু রহমান জানান, এ ঘটনায় এখনও কেউ থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *