মরতে চায় কেন মানুষ?

মরতে চায় কেন মানুষ

মরতে চায় কেন মানুষ? একজন মানুষ যখন আত্মহত্যা করে তখন তাকে আত্মহত্যা বলে। আবার কিছু মানুষ আছে যারা নিজের ক্ষতি করে বা নিজের ক্ষতি করে। কিন্তু তাদের মৃত্যুর কোনো ইচ্ছা নেই। একে বলা হয় ইংরেজীতে সুইসাইড মরতে চায় কেন মানুষ।

 

বাংলাদেশের মানুষ কিভাবে আত্তহত্যা করে?

বাংলাদেশের মানুষ কিভাবে আত্তহত্যা করে জানেন? বাংলাদেশে কীটনাশক, ইঁদুরের বিষ, ফাঁসি, ঘুমন্ত বা ব্যথানাশক, হারপিক, স্যাভলন ইত্যাদি পান করে মানুষ আত্মহত্যা করে। তরুণীদের মধ্যে আত্মহত্যার হার বেশি। আত্মহত্যার ধরণেও তারতম্য রয়েছে। কেউ নিজের জীবন কেড়ে নেয়। বাংলাদেশের মানুষ কিভাবে আত্তহত্যা করে আবার কেউ এক বা একাধিক ব্যক্তির সাথে চুক্তি করে একসাথে আত্মহত্যা করে। একে বলা হয় চুক্তি আত্মহত্যা। বাংলাদেশের মানুষ কিভাবে আত্তহত্যা করে কখনো কখনো দলের চাপে একসঙ্গে অনেকে আত্মহত্যা করে। একে গণ আত্মহত্যা বলে

 

মরতে চায় কেন মানুষ

মানুষ মরতে চায় কেন? অনেক সময় আত্মহত্যা করতে ইচ্ছুক ব্যক্তি শারীরিক সক্ষমতার অভাব বা সাহসের অভাবে অন্য কারো সাহায্যে আত্মহত্যা করে। মানুষ মরতে চায় কেন একে বলা হয় ইথানেশিয়া। বিশ্বের কিছু দেশে এই ধরনের আত্মহত্যা বৈধ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজন ডাক্তার জ্যাক কোভোকিয়ান বিপুল সংখ্যক মানুষকে আত্মহত্যা করতে সাহায্য করার জন্য একটি মেশিন তৈরি করার জন্য ব্যাপকভাবে সমালোচিত হন। তিনি নিজে অবশ্য কিছু সময়ের জন্য বন্দী ছিলেন এবং 63 বছর বয়সে মারা যান। মানুষ মরতে চায় কেন কিছু মানুষ তাদের নেতিবাচক মনোভাবের কারণে তাদের প্রিয়জনের দ্বারা নিহত হওয়ার পরে আত্মহত্যা করে। এটাকে বলে মার্ডার সুইসাইড। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের ফেব্রুয়ারী 8, 2015 এর প্রকাশনা অনুসারে, বরগুনায় একজন মা আত্মহত্যা করার আগে তার তিন এবং পাঁচ বছর বয়সী দুই সন্তানকে বিষ দিয়েছিলেন।

মরতে চায় কেন মানুষ

বাংলাদেশে আত্মহত্যার কারণ

বাংলাদেশে আত্মহত্যার কারণ অনেক তবে কিছু লোক একটি আদর্শ দ্বারা পরিচালিত অন্যদের হত্যা ও ধ্বংস করার জন্য আত্মহত্যা করে। বাংলাদেশে আত্মহত্যার কারণ একে আত্মঘাতী হামলা বলা হয় মরতে চায় কেন মানুষ। 29শে নভেম্বর, 2005, বাংলাদেশের চট্টগ্রাম এবং গাজীপুরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় কমপক্ষে 10 জন নিহত এবং আরও অনেকে আহত হয়। মাঝে মাঝে আদর্শিক প্রচার ও প্রতিবাদের জন্য মরতে চায় কেন মানুষ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। বাংলাদেশে আত্মহত্যার কারণ। কিছু তিব্বতি চীনের বিরুদ্ধে আন্দোলনের অংশ হিসেবে এটি করেছে। বাংলাদেশে আত্মহত্যার কারণ নিচে দেওয়া হল।

মানুষ কেন আত্মহত্যা করে

মানুষ কেন আত্মহত্যা করে সেটা জানতে হলে তাদের চিন্তাভাবনা তাদের মতো করে ভাবতে হবে। তাহলে হয়তো কিছুটা পথ অগ্রসর হওয়া যাবে। চিন্তা-ভাবনা যাদের খুব গভীর না কেবল তারাই আত্মহত্যা করে। আত্মহত্য যে করে সে কখনোই তার আত্মহত্যার জন্য দায়ী নয় বরং তার আসে পাশের মানুষ আত্মহত্যার জন্য দায়ী মরতে চায় কেন মানুষ। মানুষ কেন আত্মহত্যা করে সেটা বুঝতে হলে আপনাকে এটা নিয়ে কয়েকজনের সাথে কথা বলতে হবে করতে হবে রিচার্জ তাহলে কিছুটা হলেও পেতে পারেন। আমরা মানুষ কেন আত্মহত্যা করে তার কিছু কারণ নিচে প্রদাণ করলাম।

আত্মহত্যার মূল কারণ

আত্মহত্যার মূল কারণ

আত্মহত্যার মূল কারণ কি কি হতে পারে? আত্মহত্যার মূল কারণ নিয়ে অনেকের অনেক প্রশ্ন থাকতে পারে। তবে আত্মহত্যার মূল কারণ একেকজনের একেকরকম হতে পারে। আত্মহত্যার মূল কারণ তাই প্রায় সবার ক্ষেত্রে আলাদা। মানুষ কেন নিজের জীবন নেয়? তাহলে কি তার মাথা ঠিক আছে? একটি সুস্থ মাথা আছে এটা সম্ভব? বিভিন্ন ব্যাখ্যা আছে। আত্মহত্যার মূল কারণ নিচে দেওয়া হল

১। আত্মহত্যার মূল কারণ হিসাবে অনেকে মানসিক রোগতে দায়ী মনে কারেন কারণ মানসিক রোগে আক্রান্ত রোগীদের আত্মহত্যার হার বেশি থাকে, যেমন বিষণ্নতা, বাইপোলার মুড ডিসঅর্ডার, সিজোফ্রেনিয়া, ব্যক্তিত্বের ব্যাধি, মাদকাসক্তি, উদ্বেগ ইত্যাদি রোগীদের আত্মহত্যার হার বেশি থাকে। বিষণ্নতায় আক্রান্ত রোগীদের এক ধরনের তীব্র বিষণ্নতা দেখা দেয়। তারা পৃথিবীর সবকিছুকে নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখে। তাদের নিজেদের সম্পর্কে, ভবিষ্যৎ সম্পর্কে এবং অন্যদের সম্পর্কে নেতিবাচক চিন্তাভাবনা রয়েছে।

তাদের মতে মরতে চায় কেন মানুষ, এই পরিস্থিতি দিনে দিনে আরও খারাপ হবে এবং এমনকি এটি পরিবর্তনের শত চেষ্টাও কোন সুফল বয়ে আনবে না। এর থেকে পরিত্রাণের একমাত্র উপায় হল নিজেকে হত্যা করা। এই চিন্তায় চালিত হয়ে তারা আত্মহত্যা করেছে। অনেক হতাশাগ্রস্ত রোগী গুরুতর অপরাধবোধে ভোগেন। ফলে নিজেদের শাস্তি দিতে আত্মহত্যা করে। জ্ঞানীয় সাইকোথেরাপির জনক অ্যারন বেকের তত্ত্ব পড়লে আমাদের আত্মহত্যা সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায়।

২। অর্থনীতির গতি কমে গেলে আত্মহত্যার হার বেড়ে যায়। সমাজে যখন বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়, মানুষ যখন বিচ্ছিন্নতায় ভোগে তখন আত্মহত্যার হারও বেড়ে যায়।

৩। আত্মহত্যাকে রাজনৈতিক মতাদর্শের ফল হিসেবে দেখা হয়, যেমনটি আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীরা করে।

৪। বাধ্য হয়েও অনেকে আত্মহত্যা করে, যেমন, বন্দী শিবিরে প্রচন্ড নির্যাতন সইতে না পারায় অনেকে আত্মহত্যা করে।

৫। কিছু সমাজে সম্মান রক্ষার জন্য আত্মহত্যার প্রচলন ছিল, যেমন জাপানের সামুরাই যোদ্ধারা আত্মহত্যা করেছিল। আবার উচ্চ পদে থাকা ক্ষমতাবানদের মধ্যে পরিস্থিতির চাপে অন্য কোনো উপায় না থাকায় আত্মহত্যার বিষয়টি সামনে চলে আসে।

৬। দুরারোগ্য রোগের রোগীরা প্রায়ই আত্মহত্যা করে মরতে চায় কেন মানুষ। রোগের তীব্র যন্ত্রণা সামলাতে না পেরে অনেকেই বেছে নেন এই পথ।

৭। বাংলাদেশে পরিচালিত একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে পারিবারিক সমস্যা (41.2%), পরীক্ষায় ব্যর্থতা (11.6%), বৈবাহিক সমস্যা (11.6%), প্রেমের সমস্যা (11.6%), বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক এবং যৌন সম্পর্ক (11)। .6%), স্বামী নির্যাতন (5.9%) এবং আর্থিক কষ্ট (5.9%) থেকে মুক্তি পেতে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন।

৮। কিছু পেশার লোকেদের মধ্যে আত্মহত্যার হার বেশি, যেমন ডাক্তার, ডেন্টিস্ট, পুলিশ বা সশস্ত্র বাহিনীর লোক ইত্যাদি।

৯। মনোবিশ্লেষণের জনক সিগমুন্ড ফ্রয়েডের মতে, মানুষ আত্মহত্যা করে যখন তাদের ভালোবাসার মানুষটির প্রতি তীব্র রাগ এবং আক্রমণাত্মক মনোভাব তাদের দিকে পরিচালিত হয়। অন্যকে হত্যা করার সুপ্ত বাসনা চাপা পড়লে তা আত্মহত্যার দিকে নিয়ে যায়। মানুষের মধ্যে একটি শক্তি তাকে বাঁচিয়ে রাখতে চায়, আরেকটি তাকে ধ্বংস করতে চায়। এই ধ্বংসের শক্তিতে মানুষ আত্মহত্যা করে। আত্মহত্যার মধ্যে খুন করার ইচ্ছা, খুন করার ইচ্ছা এবং মরার ইচ্ছা আছে।

১০। যারা আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে তাদের মধ্যে তার মৃত্যুর পর কী ঘটবে, প্রতিক্রিয়া কী হবে, তার মৃত্যুর ফলে কারা কঠিন শাস্তি (শাস্তি) ভোগ করবে তা নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা রয়েছে। অনেকেই এর মাধ্যমে নিজেদের শাস্তি পেতে চান। অনেকে তাদের প্রিয়জনের সাথে পুনরায় মিলিত হওয়ার ইচ্ছা থেকে আত্মহত্যা করে। অনেকে যন্ত্রণা থেকে বাঁচতে আত্মহত্যা করে। পুনর্জন্ম লাভের আশায় অনেকে আত্মহত্যা করে।

১১। অনেকের ব্যক্তিত্বের বৈশিষ্ট্য এমন যে তারা খুব ঝোঁক মরতে চায় কেন মানুষ। আপনি যদি কিছু মনে করেন, আপনাকে অবিলম্বে তা করতে হবে। কোন পূর্বকল্পিত ধারণা নেই। তাদের মধ্যে আত্মহত্যার ঝুঁকি রয়েছে।

১২। যাদের বাড়িতে আত্মহত্যার ঝুঁকি বেশি তারাও ঝুঁকিতে থাকে। যেমন আমাদের দেশে কৃষকদের বাড়িতে কীটনাশক সহজলভ্য।

১৩। মিডিয়া, যেমন ম্যাগাজিন এবং টেলিভিশনে ভুল প্রতিবেদনের মাধ্যমেও আত্মহত্যাকে উৎসাহিত করা যেতে পারে। যেমন, একজন বিখ্যাত অভিনেতা বা অভিনেত্রীর আত্মহত্যার খবর বিস্তারিতসহ ব্যাপক সহানুভূতির সাথে ছড়িয়ে পড়ার পর তার ভক্তদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়ে যায়। অমুক নামের একটি নিষ্পাপ মেয়ে খারাপ লোকের দ্বারা হয়রানির শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেছে এমন খবর দিনের পর দিন ছড়িয়ে পড়ার পর, একইভাবে হয়রানির শিকার হয়ে আরেকটি মেয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে পারে।

১৪। কিছু গবেষণায় আত্মহত্যার পিছনে একটি জেনেটিক ভিত্তি পাওয়া গেছে। আত্মহত্যার পারিবারিক ইতিহাস থাকা এই ঝুঁকি বাড়ায়। পরিবারের কোনো সদস্য আত্মহত্যার চেষ্টা করলে বা আত্মহত্যা করলে তাদের সন্তানদের আত্মহত্যার চেষ্টা করার সম্ভাবনা বেশি থাকে। একই ডিম থেকে জন্ম নেওয়া যমজ সন্তানদের মধ্যে একজন আত্মহত্যা করলে অন্যটিরও আত্মহত্যার ঝুঁকি থাকে। বিভিন্ন ডিম্বাশয় থেকে জন্ম নেওয়া যমজ শিশুদের ক্ষেত্রে এই ঝুঁকি কিছুটা কম। গবেষণায় দেখা গেছে যে একই ডিম থেকে জন্ম নেওয়া যমজ আত্মহত্যা করার চেষ্টা করলে, যমজের আত্মহত্যার ঝুঁকি 18.5 গুণ বেশি মরতে চায় কেন মানুষ। গবেষকরা আত্মহত্যার জন্য মস্তিষ্কে সেরোটোনিন এবং নোরপাইনফ্রিনের অভাবকে দায়ী করেছেন।

মানুষ কেন আত্মহত্যা করে

আত্মহত্যার লক্ষণ

আত্মহত্যার লক্ষণ কি কি হতে পারে? আত্মহত্যার লক্ষণ অনেকে অনেকভাবে বোঝাতে চায় যে সে আর বেশীদের তাদের মাঝে নেই। আত্মহত্যার লক্ষণ হিসাবে মরতে চায় কেন মানুষ তাদের প্রিয় মানুষটিকে শেষবারের মতো দেখার ইচ্ছা মরতে চায় কেন মানুষ কিংবা শেষবারের মতো কিছু অনুনায় বিনয় করতে থাকা। আত্মহত্যার লক্ষণ নিচে দেওয়া হল মরতে চায় কেন মানুষ।

১। একজন মানুষ মারা গেলে সে বলতে শুরু করে যে সে সবার থেকে অনেক দূরে চলে যাবে।

২। আমি সবার কাছে ক্ষমা চাইছি মরতে চায় কেন মানুষ।

৩ । বিদায়।

৪। আত্মহত্যার পরিকল্পনার কথা বলছি।

৫। আত্মহত্যার জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ পায়।

৬। বিদায় পৃথিবী।

৭। কেউ যদি আত্মহত্যা করার সাহস বাড়াতে চায় তাহলে কীভাবে আত্মহত্যা করতে হয় তার অনুশীলন বা রিহার্সাল করে।

৮। কম ঘুম এবং খাদ্যাভ্যাস আচরণে ঝুঁকিপূর্ণ পরিবর্তন হতে পারে।

৯। কারো চেহারা এবং পোশাকের সৌন্দর্য সম্পর্কে অজ্ঞাত হয়ে যায়।

১০। যখন আত্মবিশ্বাস কম থাকে মরতে চায় কেন মানুষ।

১১। নিজেকে ঘৃণা করুন। আত্মীয়দের দূরে ঠেলে দেয়। অন্যদের দ্বারা বোঝা বোধ.

১২। অধৈর্য হয়ে ওঠে। বিরক্তি বাড়ে।

১৩। কেউ কেউ ধূমপান বাড়ায়। অনেকে মদ বা নেশা বাড়ায়।

১৪। আপনার নিজের জিনিস দান শুরু করুন।

১৫। সে এখন আর কোনো সমস্যায় নেই কারণ সে একটা বড় সমস্যার মাঝে আছে। যেমন প্রেমে ব্যর্থ হলে এবং প্রচণ্ড মানসিক যন্ত্রণায় পড়ে যান।

১৬। যারা আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। বিশেষ করে যদি সে সুইসাইড নোট লেখার চেষ্টা করে থাকে মরতে চায় কেন মানুষ, যদি সে এমনভাবে চেষ্টা করে থাকে যাতে তার চেষ্টার বিষয়টা কেউ ধরতে না পারে, যাতে মৃত্যু নিশ্চিত হয়।

১৭। যদি কারও নিজের ক্ষতির ইতিহাস থাকে। যেমন কেউ যদি নিজেকে কষ্ট দেয়।

১৮। জটিল দুরারোগ্য রোগে আক্রান্ত মানুষ।

১৯। ডিপ্রেশন, বর্ডারলাইন পার্সোনালিটি ডিসঅর্ডার ইত্যাদি মানসিক রোগে ভুগলে, বিশেষ করে আশাহীন হয়ে পড়লে।

২০। একাকি থাকতে চাওয়াওন এক ধরণের আত্মহত্যার লক্ষণ।

আত্মহত্যা থেকে বাঁচার উপায়

আত্মহত্যা থেকে বাঁচার উপায় অনেক আছে। তবে কার্যকরী উপায় হল পুরাটাই নিজের কাছে। আত্মহত্যা একটা সাময়ীক চিন্তার ফল। তাই এই সাময়ীক চিন্তার পরিবর্তন করতে পারলেই আত্মহত্যা থেকে বাঁচার উপায় নিজেই পাওয় সম্ভব। ধরুণ, আপনার মা কে আপনি অনেক ভালবাসেন, সেই মা আপনাকে ছেড়ে অন্য কোথাও বিয়ে করল কিংবা আজই মরে গেল, সেই জন্য কি আপনি আত্মহত্যা করবেন? না আরও ১০-২০ বছর তার জন্য বেচে তার জন্ম দেওয়া সন্তান হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্টিত করবেন সেটা আপনার ব্যপার। আপনার সাময়িক মনে হতেই পারে মা ছাড়া বেচে থাকা অসম্ভব। এতোদিন তো মা ই সব করেছে, আমি এসব করতে পারি? এই সাময়িক ধৈর্য অনেক বড় ফ্যক্ট আত্মহত্যা থেকে বাঁচার উপায়।

বাংলাদেশে আত্মহত্যার কারণ

১। বিবাহ, সন্তান এবং প্রেমময় পারিবারিক সম্পর্ক।

২। শক্তিশালী সামাজিক সম্পর্ক।

৩। আত্মনিয়ন্ত্রণ ভালো।

৪। পরিবারের প্রতি ভালবাসা এবং তাদের সম্মানের ক্ষতি বা ক্ষতির ভয়।

৫। ধর্ম ও ধর্ম।

৬। পেশায় নিয়োজিত।

৭। ইতিবাচক ভাবো করতে

৮। আত্মহত্যার চেষ্টার ক্ষেত্রে অবিলম্বে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। ডাক্তারের নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন; প্রেসক্রিপশনটি নিরাপদে সংরক্ষণ করুন এবং নিশ্চিত করুন যে রোগী ওষুধ গ্রহণ করছেন এবং নিয়মগুলি অনুসরণ করছেন।

৯। আত্মহত্যার প্রচেষ্টার উপর 24 ঘন্টা নজরদারি বজায় রাখুন। ঘরে একা ঘুমাবেন না। ঘরের ল্যাচ এবং তালা এমনকি টয়লেট ব্যবহার করুন, যাতে তারা ভিতরে গিয়ে দরজা বন্ধ না করে। নিশ্চিত করুন যারা তার সাথে বসবাস করছেন তারা তার আত্মহত্যার প্রবণতা সম্পর্কে জানেন এবং সতর্ক থাকুন মরতে চায় কেন মানুষ।

১০। শরীর একটু ভালো হলে সাইকিয়াট্রিস্টের কাছে নিয়ে যান। প্রয়োজনে এক মাস মানসিক হাসপাতালে রাখুন। ভর্তি রাখতে অস্বস্তি বোধ করবেন না। আপনি জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। মানসিক হাসপাতাল হওয়ার জন্য লজ্জিত বা দুঃখিত হবেন না।

১১। তাকে মানসিক সমর্থন দিন। তার সমস্যাগুলি জানুন এবং যতটা সম্ভব সমাধান করার চেষ্টা করুন। যদি না হয় তবে তাকে জানিয়ে দিন যে আপনি এই বিপদের দিনে তার সাথে আছেন। তার সাথে ভাল ব্যবহার করুন। আত্মহত্যার চেষ্টা নিয়ে মজা করতে ভুলবেন না। উত্তেজক কিছু বলবেন না। তার দুঃখের কথা মনোযোগ দিয়ে শুনুন। কোন উপদেশ দিবেন না। শুধু শোনো.

১২। কথা বলতে পারলে তাকে সাইকোথেরাপি দেওয়ার ব্যবস্থা করুন। সাইকোথেরাপি হল এক ধরনের স্পিচ থেরাপি। বিভিন্ন ধরনের সাইকোথেরাপি আছে। কগনিটিভ বিহেভিয়ার থেরাপি (সিবিটি) এবং ডায়ালেক্টিক্যাল বিহেভিয়ার থেরাপি (ডিবিটি) আত্মহত্যা প্রতিরোধে বিশেষভাবে কার্যকর বলে দেখানো হয়েছে। পারিবারিক সমস্যাগুলি যদি আত্মহত্যার সাথে যুক্ত হয় তবে সিস্টেমিক ফ্যামিলি থেরাপি নামে এক ধরণের পারিবারিক থেরাপি

আজকাল সফলভাবে প্রয়োগ করা হচ্ছে। তাদের চিকিৎসায় সফলভাবে গ্রুপ থেরাপি বা গ্রুপ থেরাপি প্রয়োগ করা হচ্ছে। কেউ যদি আত্মহত্যার চেষ্টা না করে, যদি তারা মনে করে যে তারা আত্মহত্যার ঝুঁকিতে রয়েছে, তাহলে তাকে সাইকোথেরাপি দিয়ে চিকিৎসা করান। প্রয়োজনে একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞকে দেখুন। সরকারি মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগ, পাবনা মানসিক হাসপাতাল, ঢাকার জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগে এসব সেবা পাওয়া যায়। দ্রুত চিকিৎসা দিন। জীবন শেষ হয়ে গেলে আর ফিরে আসবে না।

১৩। কেউ আত্মহত্যার চেষ্টা করলে দেরি না করে উদ্ধার করে মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বা আশেপাশের কোনো হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা নিশ্চিত করুন মরতে চায় কেন মানুষ।

১৪। আপনি যদি নেশাগ্রস্ত হন বা ঘুমের ওষুধ খান তবে ডাক্তারের কাছে নেওয়ার আগে বমি করার চেষ্টা করুন। তাকে ঘুমাতে না দেওয়ার চেষ্টা করুন। দেরি না করে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন। যদি আপনাকে ফাঁসি দেওয়া হয়, আপনি কৃত্রিমভাবে শ্বাস নেওয়ার চেষ্টা করতে পারেন। আপনি আপনার মুখে ফু দিয়ে শ্বাস নেওয়ার চেষ্টা করতে পারেন। সবচেয়ে বড় কথা, আতঙ্কিত হবেন না। মাথা কাজ না করলে দ্রুত ব্যবস্থা নিন পরিবারের কারো সাথে কথা বলার জন্য যার মাথা ঠান্ডা। সময়ই জীবন। সঠিকভাবে আচ্ছাদিত, এটি প্রতিকূল অবস্থার একটি মহান চুক্তি সহ্য করবে।

১৫। আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীদের প্রায়ই তাদের প্রিয়জনের উপর এত বেশি চাপ থাকে যে তাদের মানসিক সমর্থনের প্রয়োজন হয়। প্রয়োজনে নিজে কাউন্সেলিং বা সাইকোথেরাপি নিন।

১৬। আপনার পরিবারের কেউ যদি আত্মহত্যার ঝুঁকিতে থাকে, তবে তাকে সমর্থন করার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করুন। তার যত্ন নিন, তার যত্ন নিন, তাকে মানসিক সমর্থন দিন, শারীরিক ও মানসিক চিকিৎসা নিখুঁতভাবে করুন। তারপরও যদি কোনো দুর্ঘটনা ঘটে, মেনে নিন। অপরাধী বোধ করবেন না। মনে রাখবেন, জীবনের অনেক কিছুই নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। এমনকি সবচেয়ে সফল ব্যক্তিরাও এটি নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না।

১৭। আত্মহত্যার চেষ্টার সাথে কী করবেন মরতে চায় কেন মানুষ।

১৮। চিকিৎসা নিন। ভাল থেকো. একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞকে দেখুন। ঔষধ খাও. নিয়মিত সাইকোথেরাপি নিন।

১৯। খুব বেশি মরতে চাইলে পরিবারের সদস্যদের, বন্ধুদের বলুন। তাদের সমর্থন পান মরতে চায় কেন মানুষ।

২০। ধৈর্য্য ধারন করুন.

২১। ইতিবাচক চিন্তা করার চেষ্টা করুন মরতে চায় কেন মানুষ।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *