বাড়াতে পারে করোনায় মৃত্যু আইসিইউ সংকট

বাড়াতে পারে করোনায় মৃত্যু আইসিইউ সংকট

উপন্যাসের করোনভাইরাস সংক্রমণ (কোভিড -১৯) দেশে উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। করোনারি হৃদরোগের রোগীদের চিকিত্সার জন্য হাসপাতালে একটি নিবিড় পরিচর্যা ইউনিট (আইসিইউ) অপরিহার্য। তবে এই বিশেষায়িত চিকিৎসা সেবার অপ্রতুলতা হ্রাস পাচ্ছে না।

সারাদেশের চৌদ্দো শতাংশ সরকারি হাসপাতালে করোনার রোগীদের চিকিত্সার জন্য আইসিইউ সুবিধা নেই। সমালোচনামূলকভাবে অসুস্থ রোগীদের জন্য ৩৬ শতাংশ হাসপাতালে এই পরিষেবা থাকলেও এগুলির সব বিভাগীয় শহরে রয়েছে। আইসিইউ সংখ্যার দিক থেকে পিছিয়ে পিছিয়ে বরিশাল বিভাগ। সারা দেশে আইসিইউ সঙ্কটে মৃতের সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে বাড়তে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, দেশে সরকারী সম-উত্সর্গীকৃত হাসপাতালের সংখ্যা ৯৭ । এর মধ্যে ৮৪ শতাংশ বা ৬১ টির আইসিইউ নেই। আইসিইউ সুবিধা রয়েছে এমন ৩৫ টি হাসপাতালে মোট ৩৪২ টি শয্যা রয়েছে।

দেশে সরকারী ও বেসরকারী করোনার ডেডিকেটেড হাসপাতালে কবিদ -১৯ ইতিবাচক রোগীদের চিকিত্সার জন্য ৫৩ টি আইসিইউ বেড রয়েছে। এর মধ্যে ২ 26 জন Dhakaাকায় এবং 45 জন চট্টগ্রামে। চট্টগ্রাম মহানগর ছাড়াও চট্টগ্রাম বিভাগে করোনার ইতিবাচক রোগীদের জন্য ১১ টি সরকারী হাসপাতালে ১ IC টি আইসিইউ বেড রয়েছে। তারা সবাই কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রয়েছেন। এবং বিভাগের ১১ টির মধ্যে ৯ টিতে সরকারী আইসিইউ সিস্টেম নেই। ফলস্বরূপ, এই জেলাগুলির জটিল রোগীদের চাপ পড়েছিল কুমিল্লা ও চট্টগ্রামের সরকারী হাসপাতালে। ফলস্বরূপ, রোগীদের চাপের কারণে স্বাভাবিক স্বাস্থ্যসেবা ব্যাহত হয়। দেশের অন্যান্য বিভাগেও চট্টগ্রাম বিভাগের মতো পরিস্থিতি অনেকটা একই রকম।

সূত্র মতে, রংপুর বিভাগে করোনার রোগীদের জন্য 16 টি হাসপাতাল রয়েছে তাদের মধ্যে দুটি হাসপাতালে আইসিইউর 20 টি বিছানা রয়েছে। রাজশাহী বিভাগের নয়টি হাসপাতালের মধ্যে তিনটিতে ৪১ টি আইসিইউ রয়েছে এবং ময়মনসিংহ বিভাগের পাঁচটি হাসপাতালের একটিতে ১০ টি আইসিইউ রয়েছে। সিলেটের ছয়টি হাসপাতালের মধ্যে ২১ টি আইসিইউ রয়েছে এবং ঢাকা বিভাগের ১৫ টি হাসপাতালের মধ্যে ছয়টি (মহানগর বাদে) ৬০ টি আইসিইউ বেড রয়েছে। রাজধানীর ১০ টি সরকারি হাসপাতালে করোনার রোগীদের চিকিত্সা করা হয়েছিল। এর মধ্যে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং সংক্রামক রোগ হাসপাতালের শুরু থেকেই কোনও আইসিইউ বেড নেই। বাকি টি হাসপাতালে ১১6 টি আইসিইউ বেড রয়েছে। তবে আইসিইউ শয্যা সংখ্যার তুলনায় বরিশাল বিভাগ পিছিয়ে রয়েছে। ওই বিভাগের করোনার রোগীদের চিকিত্সার জন্য 6 টি সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রয়েছে মাত্র ১২ টি আইসিইউ বিছানা।

এদিকে, সরকার গঠিত জাতীয় কারিগরি উপদেষ্টা কমিটির সদস্য এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেছেন, করোনার মোকাবেলায় সরকার পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ করেছে। তবে সংশ্লিষ্টরা ভাল করে পরিচালনা করতে পারেননি। সংক্রমণের বর্তমান হারে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। আইসিইউ রোগীদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হলেও এটি এখন ব্যয়বহুল হয়ে উঠেছে।

আইসিইউ সংকট থেকে মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে। তিনি আরও বলেছিলেন, জেলা হাসপাতালে আইসিইউগুলি সাজানোর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা কার্যকর হয়নি।

অন্যদিকে, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক, আইসিইউ রোগীর চাপের বিষয়ে অধ্যাপক ড। আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশিদ আলম বলেছেন, ঢাকা আইসিইউতে রোগীর চাপ বাড়লেও প্রান্তিক পর্যায়ে তা বাড়েনি। ঢাকায় আসা বেশিরভাগ রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। কারণ এই রোগীরা দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসছেন। লোকদের বোঝানোর চেষ্টা করা হচ্ছে যে তারা যেখানে আছেন তাদের সাথে চলা ভাল। অযথা ঢাকায় যাওয়ার দরকার নেই। কিছু আইসিইউ শয্যা ইতোমধ্যে বাড়ানো হয়েছে। আইসিইউ স্থাপনা সময়ের বিষয় করোনার করোনায় অনেক কাজ করা সম্ভব নয়। তবে এই চেষ্টাতে কোনও ত্রুটি রাখা হচ্ছে না।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *