একদিনে,করোনায় ৮৫জন লোক মারা গেল


দেশে গত ২৪ ঘন্টা (মঙ্গলবার সকাল ৮ টা থেকে বুধবার সকাল ৮টা ) পর্যন্ত, গতকালের তুলনায় করোনাভাইরাস নিহত এবং সনাক্তকরণের সংখ্যা বেড়েছে। নতুন করে ৮৫ মানুষ মারা গেছে। এদের মধ্যে ৫৫ জন পুরুষ এবং ৩০ জন মহিলা। এই সময়ে, ৫ হাজার ৭২৭ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। রোগীর শনাক্তকরণের হার ছিল ২০.২৭ শতাংশ। গতকাল মারা গেছেন ৭৬ জন। এবং ৪ হাজার ৮৪৬ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছিল।

আজ বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এখনও অবধি দেশে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৮ লক্ষ ৬৬ হাজার ৮৭৭ জন। মোট ১৩,৭৮৭ জন মারা গেছেন। সুস্থ হয়েছেন ৭ লক্ষ ৯১ হাজার ৫৫৩ জন। ৩ হাজার ১৬৮ জন গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টা খুলনা বিভাগে ৩৬ জন মারা গেছেন। এরপর ঢাকা বিভাগে ১৯ জন, রাজশাহী বিভাগে ১৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৭ জন, ময়মনসিংহে ৩ জন, রংপুর ও বরিশালে প্রত্যেকে ১ জন মারা গেছেন। সিলেটে এই সময়ে করোনায় কোনও মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের জারিকৃত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘন্টায় মোট ২৮২৫৬ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। পরীক্ষার বিপরীতে, রোগীর সনাক্তকরণের হার দাঁড়িয়েছে ২০.২৭ শতাংশে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মান অনুযায়ী রোগী শনাক্তকরণের হার কোনও দেশে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে কিনা তা বোঝার সূচক। যে কোনও দেশে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে যদি পর পর দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে রোগীর শনাক্তকরণ হার ৫ শতাংশের নিচে থাকে।
ডিসেম্বরে ২০১৯, প্রথম নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণ চীনের উহান শহরে হয়েছিল। পরে এটি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। গত বছর ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে। তারপরে ধীরে ধীরে সংক্রমণ বাড়ে। গত বছরের শেষের দিকে সংক্রমণ কমতে শুরু করে।

চলতি বছরের মার্চ থেকে যেহেতু করোনার সংক্রমণ এবং মৃত্যুর পরিমাণ বাড়ছে, পাবলিক ট্রান্সপোর্ট সহ বিভিন্ন অঞ্চলগুলিতে ৫ এপ্রিল থেকে সাত দিনের জন্য বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল পরে এটি আরও দু’দিন বাড়ানো হয়েছিল। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার সাথে সাথে কঠোর বিধিনিষেধের মাধ্যমে ১৪ থেকে ২১এপ্রিল পর্যন্ত ‘‘সর্বাত্মক লকডাউন’ শুরু হয়েছিল। পরে এটি আরও ১৫ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছিল। কিন্তু দেশে রূপান্তর পরিস্থিতি এখন এপ্রিলের মতো ভয়াবহ পরিবর্তন আনছে। ভারত সীমান্তের ১৫ টি জেলায় রোগীদের সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে।
এই পরিস্থিতিতে সরকার ঢাকাকে দেশের অন্যান্য অঞ্চল থেকে খুব বিচ্ছিন্ন রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ঢাকার চার জেলা সহ সাত জেলায় জরুরি সেবা ব্যতীত সকল কার্যক্রম ও কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। এটি আজ সকাল ৬টায় শুরু হয়ে ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত চলবে। এই সাতটি জেলা হ’ল মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী এবং গোপালগঞ্জ।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *