৫ বছরে ৩০ হাজারেরও বেশি ধর্ষণ মামলা

ফুফার হাতে কিশোরী ধর্ষণ

দেশের আদালতে বিগত ৫ বছরে দায়ের হয়েছে ৩০ হাজারেরও অধিক ধর্ষণ মামলা। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ৩০ হাজার ২৭২টি ধর্ষণ মামলা দায়ের হয়েছে এই সময়ে।

এ তথ্য জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল বলেন, বুধবার (৩০ জুন) বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লা ও বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়ার সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ভার্চুয়াল বেঞ্চে ওই প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়।

পাশপাশি বাংলাদেশ পুলিশের আইজিপির পক্ষ থেকেও প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। আগামী ১৫ জুলাই এ বিষয়ে শুনানির জন্য দিন ধার্য করেছেন আদালত।

জানা যায়, ধর্ষণের মত শাস্তিযোগ্য অপরাধের ক্ষেত্রে মধ্যস্থতা, সালিশ করে মীমাংসা রোধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ ও ইতোপূর্বে এ বিষয়ে দেওয়া তিনটি রায়ের নির্দেশনা বাস্তবায়ন চেয়ে গত বছরের ১৯ অক্টোবর আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) পক্ষ থেকে একটি রিট আবেদন করা হয়।

এর শুনানির জন্য একই বছরের ২১ অক্টোবর রুলসহ আদেশ দেন। ধর্ষণের ঘটনায় সালিস বা মীমাংসা রোধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়ে সেদিন হাইকোর্ট ধর্ষণের ঘটনায় গত পাঁচ বছরে সারা দেশের থানা, আদালত ও ট্রাইব্যুনালে কতগুলো মামলা হয়েছে, তা জানিয়ে প্রতিবেদন দিতে বলেন। এর ধারাবাহিকতায় প্রতিবেদন জমা পড়ে।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নওরোজ মো. রাসেল চৌধুরী। রিটের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী অনীক আর হক ও আইনজীবী মো. শাহীনুজ্জামান।

এ বিষয়ে আইনজীবী অনীক আর হক জানান, সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের দাখিল করা প্রতিবেদনে জানা গেছে গত ৫ বছরে ধর্ষণের অভিযোগে আদালতে দায়ের করা হয়েছে ৩০ হাজার ২৭২টি মামলা। পুলিশের আইজির পক্ষ থেকে দাখিলকৃত প্রতিবেদনে ধর্ষণের ঘটনা প্রতিরোধে সালিশ রোধ করতে গৃহীত পদক্ষেপের কথা বলা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, অন্যান্য বিবাদীদের পক্ষ থেকে প্রতিবেদন এখনও আসেনি। আগামী ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে আইন, সমাজকল্যান এবং নারী ও শিশু বিষয়ক সচিবের পক্ষ থেকে প্রতিবেদন দাখিলের কথা বলা হয়েছে।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *