১০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক করোনা ও যৌনবিদ্বেষের জন্য অলিম্পিক ছাড়লেন

টোকিও অলিম্পিকের দিনক্ষণ করোনাভাইরাস সংক্রমণের মধ্যেই এগিয়ে আসছে। তবে ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’–এর পর্দা শেষ পর্যন্ত উঠবে কি না, তা নিয়ে সন্দেহ বেড়েই চলছে। প্রধান সেইকো হাশিমোতো গেমসের আয়োজন নিয়ে অনড় যদিও টোকিও অলিম্পিকের । আর তাঁর কথায় অনেকটাই ‘এক দফা, এক দাবি’র সুর—চরম পর্যায়ের কিছু না ঘটলে টোকিও অলিম্পিক বাতিলের কোনো সম্ভাবনা নেই।

তাই বলে বিপর্যয়ও থেমে নেই। আর আয়োজকেরা জানিয়েছেন, এরই মধ্যে ১০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক অলিম্পিক থেকে সরে গেছেন। তবে এর পেছনের কারণ—করোনাভাইরাস সংক্রমণের শঙ্কা, যৌনবিদ্বেষ বিতর্ক এবং সূচির জট। ২৩ জুলাই টোকিও অলিম্পিক উদ্বোধন হওয়ার কথা । তবে ৫০ দিন বাকি থাকতে হাশিমোতো জানিয়েছেন, করোনা মহামারির কারণে বেশির ভাগ দল জাপানে না গেলে তবেই হয়তো অলিম্পিক বাতিল হতে পারে । আর ২০৫টি দেশের অংশ নেওয়ার কথা টোকিও অলিম্পিকে।

‘বিশ্বের বেশির ভাগ দেশ মারাত্মক পরিস্থিতির মধ্যে পড়লে ও দেশগুলোর প্রতিনিধিরা যদি আসতে না পারেন, তাহলে আমরা (আয়োজন করতে) পারব না নিক্কান স্পোর্টস ডেইলিকে কাল হাশিমোতো বলেছেন । তবে এমন কিছু না ঘটলে গেমস বাতিল হবে না।’ যদিও জাপানে জনমতের অধিকাংশই গেমস আয়োজনের বিপক্ষে। কারণ জাপানে করোনা সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউ হানা দিয়েছে। তবে টোকিওতে জারি করা হয়েছে জরুরি অবস্থা।

মোট ৮০ হাজার স্বেচ্ছাসেবকের মধ্যে প্রায় ১০ হাজার কর্মী গেমস ছেড়েছেন গেমসের প্রধান নির্বাহী তোশিরো মুতো বুধবার জানান এই কথা । আর বেশির ভাগই করোনায় সংক্রমিত হওয়ার শঙ্কা থেকে ছেড়ে গেছেন। তবে যেকোনো ক্রীড়া প্রতিযোগিতা স্বাচ্ছন্দ্যে আয়োজন করতে স্বেচ্ছাসেবক নেওয়ার রীতি নতুন কিছু নয়। যৌনবিদ্বেষমূলক মন্তব্যের প্রতিবাদেও কিছু স্বেচ্ছাসেবক গেমস ছেড়েছেন তবে করোনায় সংক্রমিত হওয়ার শঙ্কা ছাড়াও ।টোকিও অলিম্পিক প্রধানের পদ ছাড়তে বাধ্য হন হাশিমোতোর পূর্বসূরি এর আগে এমন মন্তব্য করে ।

তবে গত ফেব্রুয়ারিতে যৌনবিদ্বেষমূলক মন্তব্য করেন টোকিও অলিম্পিকের সাবেক প্রধান ইয়োশিরো মোরি। মিটিংয়ে নারীরা বেশি কথা বলেন এবং সময় অপচয় করেন তিনি বলেছিলেন । আর তাঁর এই কথায় সমালোচনার ঝড় উঠেছিল। তবে মুতো জানিয়েছেন, হাজার দশেক স্বেচ্ছাসেবক চলে গেলেও গেমস আয়োজনে তেমন কোনো সমস্যা হবে না। আর টোকিও অলিম্পিকে বিদেশি দর্শক থাকার সম্ভাবনা ইতিমধ্যেই বাতিল করা হয়েছে। তবে জাপানের দর্শকেরা গেমস দেখতে পারবেন কি না, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে ২০ জুন টোকিওতে জরুরি অবস্থান উঠে যাওয়ার পরে ।

Leave a Comment