হেফাজতে ইসলাম জামায়াতে ইসলামের বি দল

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, হেফাজতে ইসলাম জামায়াতে ইসলামের বি দল। তিনি বলেছিলেন, হেফাজতে ইসলামসহ বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বিরোধিতাকারীদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড কঠোর প্রশাসনিক ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রতিরোধ করা হবে।

শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকাল ১১ টার দিকে মেহেরপুরের ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকানে মুজিবনগর দিবসের এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তি এবং তাদের মিত্ররা পঞ্চাশতম দশকে দাঁড়িয়ে থাকা বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নে এগিয়ে যাচ্ছিল এমন সময়ে বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করার বিভিন্ন ষড়যন্ত্রে জড়িত ছিল। স্বাধীনতার বছর। তারা ধর্মের স্বার্থে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন নামে অপকর্ম করছে। কখনও হেফাজত জামায়াতের নামে এবং কখনও জামায়াতের নামে এই দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করছে, রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি ধ্বংস করে দিচ্ছে এবং দেশের উন্নয়নে বাধা সৃষ্টি করছে। তাদের লক্ষ্য বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করা।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার ও আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কথা উল্লেখ করে হানিফ বলেন, রাষ্ট্রবিরোধী সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত এই দুষ্ট শক্তিটিকে কঠোরভাবে দমন করে আমরা বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতিকে এগিয়ে নিয়ে যাব। আজকের এই মুজিবনগর দিবসের শপথ হওয়া উচিত।

“বিশ্বের অনেক উন্নত দেশের তুলনায় আমরা পর্যাপ্ত ক্ষমতা নিয়ে করোনার বিপর্যয় মোকাবিলা করতে সক্ষম হয়েছি,” তিনি করোনার সাথে মোকাবিলার জন্য সরকারী নির্দেশিকাগুলি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছিলেন। এই প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে আমি আজ একটি কথা বলতে চাই, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা, স্বাধীনতা এবং সার্বভৌমত্বকে বিশ্বাস করেন তাদের জন্য এই দিনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরের মাথায় দাঁড়িয়ে আমি এখনও স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির দাম্ভিকতা দেখি। যারা একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিলেন, যারা এখনও সংবিধান মেনে চলেন না, যারা জাতীয় সংগীত গাইতে চান না, যারা এখনও জাতীয় পতাকাকে সম্মান করতে চান না, তাদের সকলেরই অধিকার নেই। স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিক হন। আমরা মুজিবনগর দিবসের এই মঞ্চে দাঁড়াতে এবং জানাতে চাই যে আমরা যদি বাংলাদেশে থাকতে চাই, আমাদের সংবিধান মেনে চলতে হবে, জাতীয় পতাকা ও জাতীয় সংগীতকে সম্মান করতে হবে।

এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছিলেন, “নির্বাচনী প্রচারে বাংলাদেশের দরিদ্র থাকার বিষয়ে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ যা বলেছেন তা আমাদের বিবেচনার বিষয় নয়।” বাংলাদেশ যে গতিতে এগিয়ে চলেছে তা ২০৩১ সালের মধ্যে এটিকে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত দেশ হিসাবে গড়ে তুলবে।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মাহমুদ স্বপন, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী, মেহেরপুর ২ আসনের সংসদ সদস্য শহীদুজ্জামান, মেহেরপুর জেলা প্রশাসক মো। মনসুর আলম খান, পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলী স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

পুলিশ এবং আনসারদের একটি স্মার্ট দল পরে গার্ড অফ অনার সরবরাহ করে। গার্ড অব অনার পাওয়ার পরে নেতারা মুজিবনগর আম্রকানন শেখ হাসিনা মঞ্চে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে অংশ নেন।

Leave a Comment