হামাক কাওয়ো দেখে না

লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ মুই এলাং বাড়িতে থাকি, বেরবার (বাইরে যাচ্ছেন) পাং না! কারও একনা (ক) বাড়ি থাকলে ভালো লাগে! সগায় খালি হাতে এসে ছবি তুলল। মাই কান দিয়ে শুনবে না (শুনবে না) চোখ দিয়ে কম দেখবে! আমি বুঝতে পারি না (বুঝতে পারি না) তিনি কপালে হাত রেখে বললেন, এই টাই আমার পক্ষে খারাপ। কত ভাল লোক আমার থেকেও সরকার কাছ থেকে সহায়তা পাচ্ছে। ‘হামাক কাউও দেখেনা’।

এভাবে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার নং ৭নং সুন্দ্রাহবী ওয়ার্ডের চার সন্তানের বাবা উমা চরণ চোখে অশ্রু নিয়ে এই কথা বলছিলেন। সন্তানরাও নেয় না বাহে। এক সময় তিনি গ্রামে আবর্জনা বিক্রি করে সংসার চালাতেন।

এক সময় তিনি পেঁয়াজ, খোড়াম, মালা-মুড়ি ভাড়া নিয়ে বিক্রি করতেন। এখন বার্ধক্যজনিত কারণে শারীরিক অসুস্থতায় তিনি গ্রামে ভ্রমণ করতে পারছেন না। চার ছেলে দিনমজুর। একটি ঝুপড়ি ঘর ছিল যা ভেঙে দেওয়া হয়েছিল। পরে তিনি বড় ছেলেকে বাস করার জন্য একটি বাড়ি দিয়েছেন, সেখানে তিনি রাত কাটিয়েছিলেন। ঘরের চালে অসংখ্য গর্তের মাধ্যমে আঁকাশ দেখা যায়। আমাকে বাইরে মাটির চুলায় রান্না করতে হয়। একটি বয়স্ক ভাতা নিয়ে কী ধরনের দিন চলছে?

স্থানীয়দের মতে, আমরা উমাচরণকে অন্য কারও বাড়িতে কাজ করতে দেখেছি। আপনি জীবনে অনেক কষ্ট সহ্য করেছেন। শেষ বয়সে ছেলেরা কিছুই দিতে পারে না। তাঁর আর হাঁটার উপায় নেই। ছেলেরা যে ধরণের খাবার দেয় এবং বার্ধক্য ভাতার টাকা অনেক বেশি যায়। মুজিব বর্ষের সরকারী বাড়িতে যোগদান করেননি। সরকার যদি তার দিকে নজর দিত। যদি তাকে থাকার জন্য কোনও বাড়ি দেওয়া হত, তবে তার সমস্যাগুলি দূর হয়ে যেত। ছেলেরা কিছুই দিতে পারে না, তারা দিনের পর দিন খায়। উমা চরণ একটি খুব কঠিন পারিবারিক দিন কাটাচ্ছেন।

সামাজিক সংগঠনের সভাপতি রকিবুল ইসলাম পলাশ জানান, দু’বছর আগে উমা চরণ গ্রামে গ্রামে মলা-মুড়ি বিক্রি করতেন। এটা তখন ভাল চলছে। আমি তাকে লোকদের বাড়িতে রাখাল হিসাবে কাজ করতে দেখেছি। ছেলেরা এখন দেখছে না। এমনকি নিজে থেকেও চলতে পারে না। দিনটি খুব কষ্টে চলছে। তার জরুরি থাকার ঘর দরকার। বর্ষাকাল আসছে এবং ছেলের ঘরে রাত কাটাতে কষ্ট হবে। আমি সংশ্লিষ্ট মহলের শুভকামনা রইল।

তুষভান্ডার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর ইসলাম আহমেদ জানান, উমা চরণকে বার্ধক্য ভাতা এবং ভিজিডি কার্ড দেওয়া হয়েছিল। তিনি একটি বাড়ির প্রাপ্য। বাড়িটি বর্তমানে বরাদ্দ নেই। আমি অবশ্যই পরবর্তী তালিকায় তাঁর জন্য ব্যবস্থা করব।

Leave a Comment

betvisa