হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার – রংপুর ডেইলী
হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার

হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার

হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার বার্নিং ফিট সিনড্রোম আমাদের মধ্যে একটি খুব সাধারণ রোগ। যেকোনো বয়সের যে কেউ এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তবে পুরুষদের তুলনায় মেয়েরা এই রোগে বেশি আক্রান্ত হয়। গোড়ালি ছাড়াও, এটি পায়ের পৃষ্ঠ সহ পুরো পা পুড়িয়ে ফেলতে পারে। শুরুতে পোড়া কম হলেও অনেক সময় এসব পোড়া দীর্ঘস্থায়ী হয়। এমনকি এটি ব্যথার কারণ হতে পারে। প্রদাহ সাধারণত রাতে বৃদ্ধি পায়।

 

হাত পা জ্বালা পোড়ার চিকিৎসা

পোড়া বিভিন্ন কারণে ঘটতে পারে। তবে এর একটি কারণ হলো নিউরোলজি। বার্নিং ফিট সিন্ড্রোম ভিটামিনের ঘাটতি (ভিটামিন বি১২ এবং বি৬), দীর্ঘমেয়াদী কিডনি রোগ, থাইরয়েড সমস্যা, এইচআইভি, উচ্চ রক্তচাপ, পানিশূন্যতা এবং ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সহ বিভিন্ন কারণের কারণেও হতে পারে। কোনো কারণ ছাড়াই হাত-পা জ্বলছে। হয়তো আপনি ভাবছেন গরম বা অন্য কোনো কারণে স্বাভাবিকভাবেই এমনটা হচ্ছে। কিন্তু বাস্তবে ইদানীং এ ধরনের রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। রাতে ঘুমাতে গেলে এ সমস্যা বেশি হয়। এমনকি শীতের রাতেও তারা কম্বল বা কম্বলের নিচে হাত পা রাখতে পারে না। এ রোগে আক্রান্তদের বেশির ভাগই নারী।

 

হাত পা জ্বালা পোড়ার কারন ও প্রতিকার

আমাদের শরীরে বিশেষ করে হাত ও পায়ের তালুতে জ্বালাপোড়া অনুভব করার অনেক কারণ রয়েছে। যেমন: * এটি স্নায়ুর কারণে হতে পারে। আক্রান্ত অংশের স্নায়ুর ওপর চাপ পড়লে প্রদাহ হতে পারে। * হরমোনজনিত কারণেও এ ধরনের সমস্যা হতে পারে। বিভিন্ন ধরনের হরমোন আমাদের শরীরকে নিয়ন্ত্রণ করে। এই ধরনের সমস্যা বিশেষ করে মহিলাদের মধ্যে দেখা দিতে পারে মেনোপজের পর যখন শরীরে হরমোনের পরিবর্তন হয়। * ডায়াবেটিস সমস্যা হতে পারে। পেরিফেরাল নিউরোপ্যাথি বা ডায়াবেটিক নিউরোপ্যাথি এমন রোগীদের দেখা যায় যারা দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিসে ভুগছেন বা যাদের ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের বাইরে।

ভিটামিন বা মিনারেলের অভাবও হতে পারে। কিছু ভিটামিন বা খনিজ যেমন থায়ামিন, পাইরিডক্সিন, সায়ানোকোবালামিন, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-ডি ইত্যাদির অভাবে অনেক ক্ষেত্রে হাত ও পায়ের তালুতে জ্বালাপোড়া হতে পারে। যদি এই ধরনের সমস্যা দেখা দেয়, তাহলে রোগের সঠিক কারণ নির্ধারণের জন্য আপনাকে একজন বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলতে হবে। এরপর চিকিৎসক রোগীর ইতিহাস জেনে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে রোগ নির্ণয় করেন। তবে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। বেশ কিছু ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে যা সহজেই পা পোড়া প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে। চলুন এখন খুঁজে বের করা যাক.

 

হাত পা জ্বালা পোড়ার

হাতে পায়ে জ্বালাপোড়ার কারণে অনেকেরই রাতে ঘুম নষ্ট হয়ে যায়। এই ধরনের পোড়া বিভিন্ন কারণে হতে পারে। স্নায়ুতন্ত্রের রোগ, ডায়াবেটিস, বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ, হরমোনের তারতম্য বা যক্ষ্মা এবং ক্যান্সারের চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধের প্রতিক্রিয়া শরীরের বিভিন্ন অংশে ব্যথা সৃষ্টি করে। বয়স্ক মহিলাদের হরমোনের ভারসাম্যহীনতা বা নির্দিষ্ট ভিটামিন এবং খনিজগুলির ঘাটতির কারণে হাত-পা জ্বালাপোড়া হতে পারে।

স্নায়বিক রোগে সাধারণত পায়ের তলায় জ্বালাপোড়া হয়। তারপর ধীরে ধীরে ব্যথা পায়ের আঙ্গুল, গোড়ালি এবং উপরের দিকে ছড়িয়ে পড়ে। এক সময় হাতের বিভিন্ন স্থানে জ্বালাপোড়ার ব্যথা ছিল। এ ধরনের সমস্যায় কোনো ওষুধ না খেয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন। সমস্যাটি নির্ণয় করে চিকিৎসা করতে হবে।

 

হাত পা জ্বালা পোড়ার কারণ

50 বছর বা তার বেশি বয়সী মহিলাদের জন্য, মাথা সহ সারা শরীরে জ্বালাপোড়া বা অস্বস্তি থাকলে ভয়ের কিছু নেই। এই ধরনের সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তিকে আশ্বস্ত করতে হবে। এই ধরনের পোড়া কোনো জটিল কারণ ছাড়াই ঘটতে পারে। তবে বেশি সমস্যা হলে অনেক সময় ওষুধের প্রয়োজন হয়। চিকিৎসায় এই সমস্যা অনেকটাই সেরে যায়। ভিটামিন ও মিনারেলের অভাবে হাত-পা পুড়ে গেলেও শারীরিক দুর্বলতা দেখা দিতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, হাঁটা বা নড়াচড়া করা কঠিন হতে পারে। সেক্ষেত্রে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। সব বয়সের মানুষের শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টির অভাব এড়াতে সুষম খাদ্য বজায় রাখা উচিত।

হাত পা জ্বালা পোড়ার কারন
হাত পা জ্বালা পোড়ার কারন

অনেকেই পায়ের তলায় জ্বালাপোড়া অনুভব করেন। তাদের ক্ষেত্রে, এই সমস্যা সমাধান করা খুব কঠিন। ঘুম কম হওয়ার ফলে শরীরেও অস্বস্তি লাগে। তবে পায়ের এই ধরনের জ্বালা রোগের লক্ষণ হতে পারে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের জগতে এটি বার্নিং ফিট সিনড্রোম নামে পরিচিত। পায়ের এই জ্বালাপোড়া রাতে আরও বেদনাদায়ক হয়ে ওঠে।

 

হাত পা জ্বালা পোড়ার কারন ও প্রতিকার

কখনও কখনও এটি পায়ের পিছনে, গোড়ালি এবং পায়ের বিভিন্ন জায়গায় ঘটতে শুরু করে। ডায়াবেটিসকে এই সমস্যার মূল কারণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই ব্যথা হালকা এবং গুরুতর হতে পারে। আগে জেনে নিন কেন এই সমস্যা হয়। অতিরিক্ত রিচ ফুড খাওয়া, ওজন কমানো, কম পানি পান করা বা কঠিন ওষুধ সেবনের কারণে এই সমস্যা হতে পারে। এমতাবস্থায় যারা এই সমস্যায় ভুগছেন তারা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সমাধানের উপায় খুঁজে বের করুন। আপনি যদি ঘরোয়া প্রতিকারের মাধ্যমে বার্নিং ফিট সিনড্রোমের চিকিত্সা করতে চান তবে এই প্রতিবেদনটি পড়ুন।

 

হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার

অনেকে হাত-পা পোড়ার সমস্যায় ভোগেন। বিশেষ করে রাতে ঘুমানোর সময় হাতে-পায়ে জ্বালাপোড়ার অনুভূতি। আবার শুধু রাতেই নয়, যে কোনো সময় এই জ্বালাপোড়া অনুভূত হয়। এবং যা খুবই অস্থির এবং বেদনাদায়ক হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার। চর্মরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে এটি সাধারণত পায়ের স্নায়ুর ক্ষতির কারণে হয়। আপনি যদি গর্ভবতী হন তবে এটি কোলেস্টেসিসের কারণে হতে পারে। এর ফলে হাত-পা ফাটা হতে পারে। তাছাড়া হাত পায়ে ঘাসহ বিভিন্ন চর্মরোগ হতে পারে।

তবে এই প্রদাহ থেকে রেহাই পেতে ওষুধের উপর নির্ভর না করে বিভিন্ন প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করে এর থেকে মুক্তি পেতে পারেন হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার। হাত-পা পোড়া থেকে মুক্তি পাওয়ার কিছু উপায় এখানে দেওয়া হল:

রাতে ঘুমানোর আগে গোসল করে নিন
হাত-পা পোড়া থেকে মুক্তি পেতে প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে গোসল করুন। গোসলের সময় মনে রাখবেন-

> যেন পানি একেবারেই গরম নয়। গরম জল শরীর থেকে প্রাকৃতিক তেল ধুয়ে ফেলতে পারে, যা শুষ্ক ত্বক হতে পারে।

> লম্বা গোসল না করে অল্প অল্প করে গোসল করুন। দীর্ঘ সময় ধরে গোসল করলেও ত্বক শুষ্ক হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। ফলে দহন আরও বাড়তে পারে।

* ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন
জ্বালাপোড়া এবং চুলকানি প্রশমিত করতে ওয়েল বেস লোশন ব্যবহার করুন। এটি ত্বককে কোমল করবে এবং ত্বকের কোষগুলিকে রক্ষা করবে। এরকম অনেক লোশন এখন ওষুধের দোকানে পাওয়া যায়। এটি আপনার হাত এবং পায়ের জ্বালা এবং চুলকানি কমাতে পারে। তাই রাতে ঘুমানোর আগে ও গোসলের পর ভেজা শরীরে লোশন ব্যবহার করুন।

* টক ফল খান
প্রতিদিন 1 ঘন্টা জলে মিশ্রিত যে কোনও আচারযুক্ত ফল খাওয়ার অভ্যাস করুন, যদিও তা অল্প পরিমাণে হয়। প্রথমে শরীরকে অ্যাসিড মুক্ত রাখুন। এটি খালি পেটে খাওয়ার অভ্যাস করুন। চাইলে হালকা খাবার খেতে পারেন। প্রতিদিন 50 গ্রাম আঙ্গুর খেলে জ্বালাপোড়া কমে যাবে। এছাড়া পায়ের ফাটা ভাব কমলেও নরম হাতের অনুভূতি বজায় থাকবে।

* প্রচুর পানি পান কর
ডিহাইড্রেশনের কারণে শরীরে জ্বালাপোড়া হতে পারে। সাধারণত যারা কম পানি পান করেন তাদের বেশি পানি পান করা উচিত হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার এবং খনিজ জাতীয় খাবার বেশি খাওয়ার অভ্যাস করা উচিত। এতে হাত-পা ও শরীরের অনেক অংশের জ্বালাপোড়া কমে যাবে।

 

* আপেল সিডার ভিনেগার
আপেল সিডার ভিনেগার এমন একটি প্রতিকার। আপেল সিডার ভিনেগার পায়ের জ্বালাপোড়া উপশম করে। কিন্তু কয়েক শতাব্দী ধরে, আপেল সিডার ভিনেগার পায়ের সমস্যার চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। পায়ের সংক্রমণ থেকে মুক্তি পেতে লোকেরা প্রায়শই হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার তাদের পা ধুয়ে ভিনেগার লাগায়।

* ঠান্ডা পানি দিন
পায়ে জ্বালাপোড়া লাগলে তাতে ঠাণ্ডা পানি যোগ করুন অথবা একটি কাপড় ভিজিয়ে হাতের চারপাশে জড়িয়ে রাখুন। এটি একটি স্বস্তি হবে. রাতে এই প্রতিকার করলে বেশি উপকার পাবেন। কারণ এই জ্বালাপোড়া ও ব্যথা রাতারাতি বাড়তে থাকে। এ অবস্থায় কেউ ঘুমানোর আগে কিছুক্ষণ ঠাণ্ডা পানিতে ইপসম লবণ রেখে কিছুক্ষণ পানিতে পা ডুবিয়ে রাখলে ব্যথা ও জ্বালাপোড়া কমে যেতে পারে। এগুলি ছাড়াও আপনি গরম জল এবং যে কোনও ধরণের ক্রিম প্রয়োগ করা এড়িয়ে চলুন। আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পর অবিলম্বে ক্রিম বা অন্যান্য পণ্য ব্যবহার করুন।

* মাছের তেল
মাছের তেল অনেক কাজে ব্যবহার করা হয়। এর ব্যবহার স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে মাছের তেল ব্যবহার করলে ব্যথা কমে যায়।

* হলুদ
হলুদ একটি মশলা বা ওষুধ যা প্রায় প্রতিটি বাড়িতে পাওয়া যায়। এটি বহু শতাব্দী ধরে রান্না এবং ক্ষত নিরাময়ে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। একই সময়ে এটি বার্নিং ফিট সিনড্রোম থেকেও মুক্তি দিতে পারে। আপনাকে যা করতে হবে তা হল সামান্য কাজ, আপনাকে নারকেল তেলের ভিতরে হলুদ মিশিয়ে পেস্টটি পায়ে লাগাতে হবে। এটি আপনার ব্যথা উপশম করবে এবং আপনার পায়ে জ্বালা করবে।

* ম্যাসাজে মিলবে আরাম
শুধু আজ নয়, বহু শতাব্দী ধরে ম্যাসাজের মাধ্যমে অনেক ব্যথা ও সমস্যার সমাধান হয়ে আসছে হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার। এটি বিশ্বাস করা হয় যে শরীরের যে কোনও অংশ ম্যাসেজ করলে রক্ত ​​সঞ্চালন উন্নত হয়। অন্যদিকে, যদি আপনার পায়ে জ্বালাপোড়া হয়, তাহলে ফুট ম্যাসাজ আপনার জন্য একটি ভাল বিকল্প হতে পারে।

হাত পা জ্বালা পোড়ার কারন ও প্রতিকার
* রসুন জল
রসুনের পানি পায়ের পোড়া উপশম করে এবং ব্যথা কমায়। রসুনের কয়েক কোয়া কেটে হালকা গরম পানিতে মিশিয়ে নিন। রসুনের পেস্টের পরিবর্তে রসুনের পেস্ট ব্যবহার করা যেতে পারে। জল হালকা গরম হলে একটি পাত্রে ঢেলে দিন হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার। এই মিশ্রণে পা ভিজিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ।

* আপেল সিডার ভিনেগার
আপেল সাইডার ভিনেগার পা পোড়া কমাতে বেশ কার্যকরী। আপেল সাইডার ভিনেগারের পিএইচ স্তর শরীরের তাপমাত্রার ভারসাম্য বজায় রাখে। এক টেবিল চামচ আপেল সাইডার ভিনেগার দুই টেবিল চামচ হালকা গরম পানিতে মিশিয়ে নিন।  হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার এই মিশ্রণে পা ভিজিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। এটা প্রতিদিন করুন। এছাড়া হালকা গরম পানিতে এক বা দুই চা চামচ ভিনেগার মিশিয়ে নিতে পারেন।

* ইপসম সল্ট
একটি পাত্রে পানির সাথে ইপসম লবণ মিশিয়ে নিন। পানি ও লবণ ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণে দুই পা কয়েক মিনিট ভিজিয়ে রাখুন। দেখবেন জ্বালা অনেক কমে গেছে।

* আদা
এক চা চামচ আদার রসের সাথে হালকা গরম নারকেল তেল বা অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি পায়ে 10-15 মিনিট ম্যাসাজ করুন। এটি দিনে একবার করুন। আদা চাও পান করতে পারেন। এটি পায়ের পোড়া কমাতেও সাহায্য করবে।

* হলুদ
একাধিক হলুদ আপনার পায়ে পোড়া রোধ করতে সাহায্য করবে। হালকা গরম পানিতে ১-২ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। এটি দিনে দুবার পান করুন। দুই টেবিল চামচ হলুদ পানিতে মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন। পায়ে মালিশ করে লাগান হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার। এটি সাময়িকভাবে পায়ের পোড়া কমিয়ে দেবে।

* করলা পাতা
এক মুঠো করলা পাতা সামান্য পানিতে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্টটি পায়ে ম্যাসাজ করে লাগান। কয়েকবার ব্যবহার করুন। নিয়মিত ব্যবহারে এটি পায়ের পোড়া কমবে।

* ঠান্ডা পানি
ঠাণ্ডা পানি পায়ের পোড়া কমানোর অন্যতম সহজ উপায়। একটি পাত্রে বরফ দিয়ে পানি নিন। এই বরফের জলে পা ভিজিয়ে রাখুন। দেখবেন পায়ের জ্বালাপোড়া অনেকটাই কমে গেছে।

* জুতা
সঠিক আকারের খোলা এবং আরামদায়ক জুতা পরুন। আরামদায়ক সুতির মোজা ব্যবহার করা ভালো।

* ব্যায়াম
পায়ের পেশির ব্যায়াম এবং ঠান্ডা পানি (বরফ নয়) নেওয়া যেতে পারে।

* নেশা
অ্যালকোহল ও ধূমপান পরিহার করতে হবে এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে হবে হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার। স্নায়ু আঘাত, বাধা (কম্প্রেশন) ক্ষেত্রে, আপনাকে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে।

 

হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার

অনেকেই হাত ও পায়ের তালুতে জ্বালাপোড়া অনুভব করেন। রাতে ঘুমাতে গেলে এই সমস্যা বেশি হয়। নারীরা এই সমস্যায় বেশি ভোগেন।
দেখা যায়, শীতে ঠাণ্ডা লাগলেও হাত-পা কম্বল বা আবরণের ভেতরে রাখা সম্ভব হয় না। কিছুক্ষণ পর হাত পা ভিজে যায়। আমাদের শরীরে বিশেষ করে হাত ও পায়ের তালুতে জ্বালাপোড়া অনুভব করার অনেক কারণ রয়েছে। চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক হাত-পা পোড়ার কিছু কারণ হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার-

হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার

* স্নায়ুতন্ত্রের কারণে আক্রান্ত অংশের স্নায়ুর উপর চাপ থাকলে।

* বিভিন্ন ধরনের হরমোন আমাদের শরীরকে নিয়ন্ত্রণ করে। শরীরে হরমোনের পরিবর্তন ঘটে, বিশেষ করে মেনোপজ-পরবর্তী মহিলাদের মধ্যে। তাহলে এ ধরনের সমস্যা হতে পারে।

* পেরিফেরাল নিউরোপ্যাথি বা ডায়াবেটিক নিউরোপ্যাথি এমন রোগীদের দেখা যায় যারা বহুদিন ধরে ডায়াবেটিসে ভুগছেন বা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে।

* ভিটামিন বা মিনারেলের অভাব কিছু ভিটামিন বা মিনারেলের অভাবে এই ধরনের সমস্যা দেখা যায়। থায়ামিন, পাইরিডক্সিন, সায়ানোকোবালামিন, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-ডি ইত্যাদির অভাবে অনেক ক্ষেত্রে হাত ও পায়ের তালুতে জ্বালাপোড়া হতে পারে।

 

হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার

রোগের সঠিক কারণ জানার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন, এক্ষেত্রে চিকিৎসক রোগীর ইতিহাস জেনে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে রোগ নির্ণয় করেন। এটি করার আরেকটি উপায় রয়েছে: চিকিত্সার শুরুতে, রোগীকে রোগের ইতিহাস, শারীরিক এবং পরীক্ষাগার পরীক্ষা দ্বারা আশ্বস্ত করা উচিত যে প্রতিকার ও চিকিত্সার মাধ্যমে রোগটি নিরাময় করা যেতে পারে। ঢিলেঢালা ফিটিং এবং আরামদায়ক জুতা পরুন। আরামদায়ক সুতির মোজা ব্যবহার করাই ভালো। ফুট আর্চ সাপোর্ট, ইনসোল এবং হিল প্যাড ব্যবহার উপসর্গগুলি উপশম করবে। পায়ের পেশীগুলির ব্যায়াম করা এবং ঠান্ডা জলে (বরফ নয়) ভিজিয়ে রাখা লক্ষণগুলি নিরাময়ে খুব সহায়ক। রোগ প্রতিরোধে পর্যাপ্ত ভিটামিন গ্রহণ করতে হবে এবং ভিটামিন ইনজেকশন পুশ করে চিকিৎসা দিতে হবে। অ্যালকোহল ও ধূমপান পরিহার করতে হবে এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। স্নায়ুর আঘাত, অবরোধ (এন্ট্রাপমেন্ট) এবং কম্প্রেশনের ক্ষেত্রে উপযুক্ত চিকিত্সা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। বার্নিং ফুট সিনড্রোম থেকে সুস্থ থাকতে হলে চিকিৎসার চেয়ে প্রতিরোধের চেষ্টা করতে হবে সবাইকে।

* রসুন জল
রসুন অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা সমৃদ্ধ। আমাদের হাত ও পায়ের জ্বালাপোড়া কমাতে রসুন খুবই কার্যকরী হাত-পা জ্বালা পোড়ার প্রতিকার। এতে হাত পায়ের জ্বালাপোড়া কমে যাবে।

রংপুর ডেইলী রংপুরের সবচেয়ে আপডেট সংবাদ দেশ ও আন্তজার্তিক নিউজ প্রকাশে বাধ্য থাকিবে। রংপুরের সব রকমের নিউজ পেতে রংপুর ডেইলী ভিজিট করুন