স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত কাহারোলে জমজমাট গরু মহিষের হাট

কাহারোলে গবাদি পশু বাজার স্বাস্থ্য নিয়মের দিকে মনোযোগ না দিয়ে বসে আছে। 14 থেকে 21 এপ্রিল দেশব্যাপী লকডাউন শুরু হয়েছে। তবে এই লকডাউনের মাঝে উপজেলার কাহারোল হাট দীর্ঘকাল ধরে পশু কেনা-বেচার সবচেয়ে বড় বাজার হিসাবে সবার কাছে পরিচিত।

লকডাউন ও স্বাস্থ্য বিধি নিষেধাজ্ঞার পরেও শনিবার কাহারোল হাটে গরু, গরু, ছাগল, হাঁস, মুরগি, মহিষ এবং অন্যান্য বিক্রয় সামগ্রী ক্রয়-বিক্রয় করা হয়েছিল। ফলে এ উপজেলায় মহামারী করোনার ঝুঁকি বাড়তে পারে।

উপজেলার সচেতন নাগরিকরা করোনার ঝুঁকির আশঙ্কা করছেন। দূর-দূরান্ত থেকে সাধারণ মানুষ গরুর বাজার সহ অন্যান্য আইটেম কেনা বেচা করতে এই বাজারে আসেন। দেখা গেছে যে অনেকের মুখে মুখোশ নেই।

ফলস্বরূপ, বাজারের মুনাফা-ক্ষুধার্ত ইজারাদার স্বাস্থ্য বিধি লঙ্ঘন করে উত্তরাঞ্চলের বৃহত্তম কাহারোল গবাদি পশু বাজার স্থাপন করেছে। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত এই হাটে গরু, ছাগল ও মহিষ বিক্রি হয়।

১ April এপ্রিল শনিবার বিকেলে উপজেলার প্রাণকেন্দ্রের গবাদি পশু বাজারে গরু ক্রেতা ও বিক্রেতাদের ভিড় দেখা গেছে। এখানে কোনও স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করা হচ্ছে না।

এই শর্তের অন্যান্য দোকানে, ক্রেতাদের একই শর্তের মুখোশ ছাড়াই পছন্দসই পণ্যগুলি কিনতে দেখা যায়। অন্য দিন, সরকার কর্তৃক ঘোষিত তালাবন্ধিতে উপজেলা প্রশাসনের আধিকারিকরা সক্রিয় ছিলেন, তবে শনিবার কাহারোল হাটে করোনার রোধে কোনও প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। তাই দিনে দিনে মানুষের মধ্যে কোনও আতঙ্ক নেই।

Leave a Comment