সহিংসতায় জড়িতদের বিচার চেয়ে হেফাজত নেতার পদত্যাগ

সংগঠনের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুফতি আবদুর রহিম কাসেমী হেফাজতে ইসলাম সহিংসতায় জড়িতদের বিচারের দাবিতে পদত্যাগ করেছেন। তিনি হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যও রয়েছেন।

আবদুর রহিম কাসেমি শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) সাংবাদিকদের কাছে হেফাজতের বিষয়ে তার অবস্থান পরিষ্কার করতে একটি লিখিত বিবৃতি পাঠিয়েছেন।

লিখিত বিবৃতিতে কাসেমি উল্লেখ করেছিলেন, “ভারতের স্বাধীনতার পঞ্চাশতম বার্ষিকী উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আগমনকে সামনে রেখে দেশজুড়ে ইসলামের হেফাজতের আহ্বানের মাধ্যমে যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছিল তা নজিরবিহীন এবং অমানবিক।” দেশ ও মানুষের জানমালের ক্ষতি কোনওভাবেই ইসলামী হতে পারে না। অতএব, আমি ব্যক্তিগতভাবে এই সমস্ত কার্যক্রম থেকে নিষ্ক্রিয় রয়েছি এবং আমার তত্ত্বাবধানে সমস্ত মাদ্রাসার শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের এই দেশে এই সমস্ত ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ডে যোগদান না করার জন্য বাধ্য করি। ‘

তিনি আরও বলেছিলেন, ‘আমি হেফাজতে ইসলামের সকল কার্যক্রম এবং জাতীয় ও জেলা কমিটির পদ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে পদত্যাগ করছি। আমি সরকার ও প্রশাসনের কাছে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি, যারা দেশ ও জনগণের জান-মাল ক্ষতিগ্রস্থ করেছে তাদের চিহ্নিত করে বিচারের ব্যবস্থা করতে।

উল্লেখ্য যে, হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা এবং সমর্থকরা 26 মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কয়েকশ সরকারী-বেসরকারী সংস্থায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের বিরুদ্ধে অভূতপূর্ব সহিংসতা চালিয়েছিল। এ সব মামলায় ৫৮ টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই মামলায় ৪১৪ জন আসামি এবং ৩৫,০০০ এরও বেশি নামবিহীন রয়েছে। শুক্রবার সকাল পর্যন্ত পুলিশ এই সব মামলায় ৩৪৬  জনকে গ্রেপ্তার করেছে। গত 24 ঘন্টা 10 জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

Leave a Comment