সহবাসে মধুর ব্যবহার

সহবাসে মধুর ব্যবহার

সহবাসে মধুর ব্যবহার করা যাবে কিনা। কিংবা কিবাবে সহবাসে মধুর ব্যবহার করা যায় অনেকেই জানতে চায়অ তাদের জন্য আজকের এই আর্টিকেল। আপনারা জানতে পারবেন কখন কিভাবে মধু ব্যবহার করলে সহবাসে মজা পাবেন।

 

সহবাসে মধুর ব্যবহার

সহবাসে মধুর ব্যবহার করা যেতে পারে। সহবাসে মধুর ব্যবহার হল আপনার সঙ্গিনির যোনিতে মধু দিয়ে সহবাস করা। মাথায় রাখবেন যদি আপনার সঙ্গিনী ব্যথা পায় এইভাবে সহবাসে সুখ না পায় তাহলে অন্য পদ্ধতিতে ট্রাই করুন। সব মেয়ে একই পদ্ধতিতে সুখ পায় না। তাই সহবাসে মধুর ব্যবহার একেকজনের কাছে একেক রকম। তবে পুরুষের ক্ষেত্রে সহবাসে মধুর ব্যবহার অনেকরকম। নিচের আর্টিকেলটি পড়লে বুঝতে পারবেন সহবাসে মধুর ব্যবহার।

যৌনি পিচ্ছিলকারক হিসেবে মধু ব্যবহার করা যাবে

যৌনি পিচ্ছিলকারক হিসেবে মধু ব্যবহার করা যাবে কি? অনেকেই জানতে চান যে যৌনি পিচ্ছিলকারক হিসেবে মধু ব্যবহার করা যাবে? অবশ্যই না। যৌনি পিচ্ছিলকারক হিসেবে মধু ব্যবহার করা যাবে না। যৌনি পিচ্ছিলকারক হিসেবে নারিকেল তেল ব্যবহার করা যাবে কিন্ত মধু নয়। তবে অনেকের ক্ষেত্রে ভিন্ন সহবাসে মধুর ব্যবহার। একেকজন নারি একেকভাবে মজা পায়। তাই যৌনি পিচ্ছিলকারক হিসেবে মধু ব্যবহার করা যেতে পারে টেস্টর জন্য। যদি আপনার সঙ্গি সুখ পায় তাহলে যৌনি পিচ্ছিলকারক হিসেবে মধু ব্যবহার করা যাবে।

 

সহবাসে মধুর উপকারিতা

সহবাসে মধুর উপকারিতা অপরিশীম। সহবাসে মধুর উপকারিতা পেতে হলে কালজিরার সাথে নিয়মিত ২ চামচ মধু খাবেন। সহবাসে মধুর উপকারিতা নারী পুরুষ উভয়েরই যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধিতে চাক কাঁটা মধু এগিয়ে। সহবাসে মধুর উপকারিতা বেশ কার্যকরী। তাছাড়া নারীদেরও ইস্ত্রজেন ক্ষরণ এর ক্ষেত্রে সহবাসে মধুর উপকারিতা হিসাবে প্রধান উপাদান বোরন গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে।

 

যৌন দুর্বলতায় মধুর গুরুত্ব

যৌন দুর্বলতায় মধুর গুরুত্ব আপনি নিজেও বুঝবেন না। আপনি যদি নিজে যৌন দুর্বলতায় ভুগে থাকেন কিংবা স্ত্রী মিলনে কম সময় দিতে পারেন তাহলে আপনি মধু খাবেন নিয়মিত। কেননা যৌন দুর্বলতায় মধুর গুরুত্ব মধুর উপকারিতা অনেক বেশি। যৌন দুর্বলতায় মধুর গুরুত্ব বুঝতে চান তাহলে নিয়মিত ২১ দিন ভোরে খালিপেটে ২ চামচ করে মধু খাবেন। আমা করি ১ সপ্তাহে রেজাল্ট দেখবেন আপনি আপনার ভালবাসার মানুষকে আরও বেশি সময় দিতে পারতেছেন।

 

কি করলে বউ আব্বা বলে ডাকবে

কি করলে বউ আব্বা বলে ডাকবে অনেকেই জানতে চায়। কি ভাবে সহবাস করলে বউ আব্বা ডাকবে? তাই অনেকের জানা ইচ্ছা যে কি করলে বউ আব্বা বলে ডাকবে। তাদের জন্য আজকে উপায় বলে দিচ্ছি যে আপনি যদি আপনার বউয়ের মুখে আব্বা ডাক শুনতে চান তাহলে একটানা ২১ দিন রাতে ঘুমানোর আগে এক চা চামচ পরিমাণ কালজিরা গরম দুধের সাথে খাবেন।

কি করলে বউ আব্বা বলে ডাকবে
কি করলে বউ আব্বা বলে ডাকবে

আর প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ২ চা চামচ মধু খাবেন সহবাসে মধুর ব্যবহার। আর দেখবেন আপনার বউ আব্বা বলে ডাকবে আর বুকে টেনে নেবে। কি করলে বউ আব্বা বলে ডাকবে কালজিরা দুধ আর মধুতে আছে ফর্মুলা খুবই কার্যকরী। তবে মাথায় রাখবেন অবশ্যই নিয়মিত ২১ দিন খেলে ১০০% রেজাল্ট পাবেন আপনি।

 

সকালে খালি পেটে মধু খাওয়ার উপকারিতা

সকালে খালি পেটে মধু খাওয়ার উপকারিতা অনেক। সকালে খালি পেটে মধু খাওয়ার উপকারিতা ঔষধ উপাদান হিসেবে মধু খুবই উপাদেয়। আসুন খুব সংক্ষেপে জেনে নেই সকালে খালি পেটে মধু খাওয়ার উপকারিতা কি। সকালে খালি পেটে মধু খাওয়ার উপকারিতা কোলেস্টেরল এর পরিমাণ কমায়। সকালে খালি পেটে মধু খাওয়ার উপকারিতা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে । সকালে খালি পেটে মধু খাওয়ার উপকারিতা হজম সমস্যা সমাধান করে । সকালে খালি পেটে মধু খাওয়ার উপকারিতা হাইড্রোক্লোরিক এসিড ক্ষরণ কমিয়ে পেটের সকল পীড়া থেকে রক্ষা করে।

মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্ত হয় কেন

মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্ত হয় কেন তার অনেক ক্ষেত্রে কাজ করে। প্রচুর পরিমাণ মধু সেবন আমাদের শক্তি বাড়ানোর জন্য খাওয়া দরকার। মধু খেলে মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্ত হয় পারফরমেন্সের উন্নতি হয়। মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্ত হয় কেন কারণ মধুতে রয়েছে উচ্চমাত্রার ফ্রুক্টোজ ও গ্লুকোজ যা যকৃতে গ্রাইকোজেনের রিজার্ভ গড়ে তোলে। তাই সহজে বুঝতে পারবেন মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্ত হয় কেন। মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্ত হয় বেশিক্ষন সহবাস করা যায়।

মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্তিশালী হয় কেন

মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্তিশালী হয় কেন তার অনেক কারন আছে। তার মধ্যে প্রধান কারন পুরুষের লিঙ্গ কোন মেয়ে হাত দিলেই শক্তিশালী হয় তাড়াতাড়ি। আবার পর্ন দেখলে পুরুষের লিঙ্গ শক্তিশালী হয় । মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্তিশালী হয় তার মধ্যে কারণ হল । যদি কোন পুরুষ যেীনতা নিয়ে ভাবাবাবি করে তাহলে তার মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্তিশালী হয়। যেহেতু মধু মেসেজ করতে হয় তাই মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্তিশালী হয়। পুরুষে লিঙ্গে যে কোন কিছু মেসেজ করলে তা শক্তিশালী হয়। তাই আশা করি বুঝতে পেরেছেন যে মধু দিলে পুরুষের লিঙ্গ শক্তিশালী হয় কেন।

 

মধুর সহবাসের গোপন উপায়

মধুর সহবাসের গোপন উপায় খুবই গুরুত্বপুর্ন। কারন জীবন আপনাদেরই আপনাদেরই সুখ দিয়ে শুরু করতে হবে আপনাদের জীবন। মধুর সহবাসের গোপন উপায় বিশ্বাস করুন দুজনে দুজন ১০০% । নিজেদের চিন্তা ভাবনায় বৈচিত্র্যতা আনুন। মধুর সহবাসের গোপন উপায় আনন্দময় বিবাহিত জীবনের মুলমন্ত্র। বিবাহিত জীবনে শুধু সহবাস আর সহবাস অনেক সময়ই একঘেয়েমি চলে আসে তাই মধুর সহবাসের গোপন উপায় হল একটু বাইরে ঘুরে আসুন দুজনে হতে পারে ঘরের বাইরে।। ঘুরতে যান কিংবা সিনেমা দেখুন। মধুর সহবাসের গোপন উপায় সহবাসে জন্য নানা রকম আসন ট্রাই করুন৷ নানা ধরনের কনডম ট্রাই করুন। আবার ভালো মানের পর্ন ছবিও যৌনজীবনে বৈচিত্র্যতা আনতে পারে।

 

কিভাবে লিঙ্গে মধু ব্যবহার করতে হয়

কিভাবে লিঙ্গে মধু ব্যবহার করতে হয় অনেক পুরুষ জানতে চান। আমার পেনিস শক্ত হয় না আবার অনেকের দ্রুত বীর্যপাত হয়, আবার কারো পেনিসের আগা মোটা গোঁড়া চিকন তাদের জন্য কিভাবে কিভাবে লিঙ্গে মধু ব্যবহার করতে হয়। কিভাবে লিঙ্গে মধু ব্যবহার করতে হয় সমস্যা দূর করতে নিয়মিত পেনিসে খাঁটি মধু মাখুন। টানা ১ মাস নিয়মিত আপনি মধু মাখলে পেনিস শক্ত, মোটা ও দ্রুত বীর্যপাত সহ গনোরিয়া, সিফিলিস রোগ দূর হবে ১০০%। আর হস্তমৈথুন অভ্যাস থাকলে পুরোপুরি ছেড়ে দিন। যদি হস্তমৈথুন ছাড়তে না পরেন তাহলে মধু বছরের পর বছর মাখলেও বিন্দু পরিমান উপকার হবে না পেনিসে। তাই কিভাবে লিঙ্গে মধু ব্যবহার করতে হয় সেটা ক্লিয়ার বুঝতে পেরেছেন।

 

সহবাসের সময় মধুর ব্যবহার স্বাস্থ্যসম্মত

সহবাসের সময় মধুর ব্যবহার স্বাস্থ্যসম্মত নয়। কিংবা লুব্রিকেন্ট হিসেবেও কেবল নারিকেল তেল ব্যবহার করতে পারবেন।। সহবাসের সময় নারিকেল তেল ব্যবহার স্বাস্থ্যসম্মত শুধু তাই নয় নারিকেল তেল খুব কাজ করে। তাই বলব সহবাসের সময় মধুর ব্যবহার স্বাস্থ্যসম্মত হতেই পারে না। আপনি সহবাসের সময় মধুর ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। সহবাসের সময় মধুর ব্যবহার স্বাস্থ্যসম্মত কোনবাবেই নয়।

 

মধু খাওয়ার নিয়ম

মধু খাওয়ার কথা প্রচলিত আছে অনেকের মতে অনেক ভাবে । অনেকে গরম পানির সাথে মধু খাওয়ার পরামর্শ দেয় আবার অনেকে খালি পেটে মধু খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকে। কিন্ত চরম সত্যি কথা হল যে মধু সকাল বেলা খালি পেটে মধু খেলে সবচেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যায়। মধু খাওয়ার নিয়ম হিসাবে দুধের সাথে মধু মিশিয়ে না খাওয়াই উত্তম তবে খেতে চাইলে অবশ্যই দুধ ঠান্ডা করে খেতে হবে। মধু খাওয়ার নিয়ম লেবুর রসের সাথে কাঁচা মধু খেলে ওজন কমাতে সহায়তা করে এবং এসিডিটি কম হয়। শুষ্ক কাশি থেকে মুক্তি পেতে তুলসী পাতার সাথে মধু মিশিয়ে খেতে পারেন। মাথায় রাখবেন যে নতুন মধুর চেয়ে পুরাতন মধু বেশি কার্যকরী হয়। যৌন দুর্বলতা জন্য মধু খাওয়ার নিয়ম হল রাতের বেলা চলার সাথে মধুও খেতে পারেন।

 

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *