শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার

শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার,শিশুর যত্ন ও খাবার সম্পর্কে সকল মায়েরাই সচেতন। আজকাল শিশুদের বিরুদ্ধে মায়েদের প্রধান অভিযোগ হল তারা খেতে চায় না। আর শিশুর কম খাওয়া নিয়ে মায়েদের দুশ্চিন্তার শেষ নেই। তারা পারলে সারাদিন বাচ্চাকে খাওয়াতেই ব্যস্ত থাকেন। কম খাওয়ার এই প্রবণতা বিশেষ করে দুই-তিন বছরের শিশুদের মধ্যে বেশি লক্ষ করা যায়। অনেক অভিভাবক খাবারের মাঝে বাচ্চাকে বিস্কুট, ফল, লজেঞ্জ, আইসক্রিম ইত্যাদি দেন। শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার, শিশুর ক্ষুধার্ত কি না সেদিকে অনেকেই মনোযোগ দেন না। শিশুর কান্না শুনে অনেকেই মনে করেন ক্ষুধার্ত। কিন্তু শিশুরা আরও অনেক কারণে কাঁদতে পারে। কেউ কেউ অস্থির হয়ে পড়েন কারণ তাদের সন্তান এক বেলায় ঠিকমতো খেতে না পারলে। সকাল ৭টায় পেট ভরে না খাওয়ায় তিনি সকাল ৮টায় আবার খাওয়ানোর জন্য জোর করেন। এসব অভ্যাস শিশুদের জন্য ক্ষতিকর।

শিশু খেতে চায় না কেন?

শিশু খেতে চায় না কেন? বেশিরভাগ মায়ের অভিযোগ শিশু খেতে চায় না। কিছু কিছু কারনে শিশুদের খাওয়ার রুচি কমে যেতে পারে,তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এটি জটিল নয়। অনেক ক্ষেত্রে অভিভাবকরা এ নিয়ে চিন্তিত থাকেন। শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার, হয়তো শিশু তার রুচি ও পরিমাণ অনুযায়ী খাচ্ছে, কিন্তু মা-বাবা তাতে সন্তুষ্ট নয়। শিশু খেতে চায় না কেন? শিশুটির আসলে কোনো রোগ নেই, সমস্যা তার মনে। বয়স অনুযায়ী মানসিক ও শারীরিক বিকাশ অন্য শিশুদের মতো হলে শিশুর খাবার নিয়ে অভিভাবকদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।

আসলে খাবারে যে কোনো অনিয়মই শিশুর খেতে না চাওয়ার অন্যতম কারণ। শিশু খেতে চায় না কেন? বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অভিভাবকরা না জেনেই এমন অনিয়ম করে থাকেন। কিছু কিছু ক্ষেত্রে শিশুর চাহিদা পূরণে কিছু প্রতিবন্ধকতা দেখা দেয়। কেউ কেউ শিশুকে বাইরে থেকে লোভনীয় খাবারের সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়ে শিশুর স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস নষ্ট করে।

বাচ্চাদের না খাওয়ার কারণ কী? ডাক্তারের মতামত

বাচ্চাদের না খাওয়ার কারণ কী? ডাক্তারের মতামত, এ প্রসঙ্গে ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শিশু বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আল আমিন মৃধা বলেন, কিছু শিশু আছে যারা আসলেই খায় না। বৃদ্ধিও স্বাভাবিক নয়। তারপর দেখুন শিশুটি অপুষ্টিতে ভুগছে নাকি রক্তশূন্যতা আছে? বা শিশুর ঘন ঘন সংক্রমণ হচ্ছে, যার কারণে ক্ষুধা কমে যাচ্ছে। যদি শিশু রক্তশূন্য হয়, অপুষ্টিতে ভুগছে – শিশুটি বসে থাকবে, খুব বেশি সক্রিয় নয়। এছাড়াও কৃমির জন্য পরীক্ষা করুন।বাচ্চাদের না খাওয়ার কারণ কী? ডাক্তারের মতামত, তাদের এগুলো খেয়াল করতে হবে।শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার, কিছু শিশুর থ্যালাসেমিয়া,হাঁপানি বা মূত্রনালীর সংক্রমণ হতে পারে; তারপর শিশুটিকে পর্যবেক্ষণ করতে হবে। তার না খাওয়ার কারণ কী? দেখতে হবে এটা শুধুই ক্ষুধা না কমে অন্য কিছু। শিশুর মনোযোগ কম হলে সে খাবার খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দিতে পারে। বাচ্চা যখন দেখে যে সে ঠিকমতো না খেলে বা খাবার নিয়ে বিরক্ত হলে সবাই তার উপর বিরক্ত হয়,তখন সে খাবারের প্রতি অস্থির হয়ে যায় এবং তখর সে বায়না ধরে। তাই এক্ষেত্রে খাবার নিয়ে বাড়াবাড়ি না করে খাওয়ার সিস্টেম চেন্জ করুন।

শিশুরা খেতে না চাইলে কি করবেন?

শিশুরা খেতে না চাইলে কি করবেন? অনেক বাবা-মাকে খাবারের প্লেট নিয়ে বাচ্চার পেছনে ছুটতে হয়। অভিযোগ,তাঁদের সন্তান একেবারেই খেতে চায় না। আসুন জেনে নেই শিশুরা কেন খেতে চায় না,তাকে ঠিকমতো খাওয়ানোর জন্য কী করতে হবে,কীভাবে তাকে খাওয়াতে হবে।

খাবারের স্বাদ

খাবারের স্বাদ অনুযায়ী শিশুর প্রিয় খাবার রান্না করুন। শিশু খাবারের সঠিক স্বাদ অনুভব করতে সক্ষম হবে না। সে খাবার খেতে পারে না বলে সে খাবারের প্রতি এক ধরনের বিরক্তি তৈরি করবে।

অনির্দিষ্ট খাবার

অনির্দিষ্ট খাবার এর পরিবর্তে শিশুদের রুটিন অনুযায়ী খাওয়ানো ভালো। সময়মতো খাবার দেওয়ার কারণে তার ক্ষুধার্ত হবে না। অনেক শিশু স্কুল থেকে ফিরে বিস্কুট, ফল বা ফলের জুস খায়। ঘণ্টাখানেক পর হয়তো লাঞ্চ টাইম। শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার, তখন সে ঠিকমতো খেতে চাইবে না,কারণ তার ক্ষুধা আগেই নষ্ট হয়ে গেছে। অনেক শিশু সারাদিন পেট ভরে বিস্কুট,ফল লজেঞ্জ,আইসক্রিম ইত্যাদি খায়। তবে মূল খাবারের সময় কিছু খাবেন না।

পূর্ণভাবে খিদে

পূর্ণভাবে খিদে না থাকলে শিশুরা খেতে চায় না। এছাড়াও,তারা প্লেটে খাবার একসাথে শেষ করতে পারে না কারণ বাচ্চার খুদা লাগেনি।

খাওয়ার সময় টিভি বা কার্টুন দেখা

খাওয়ার সময় টিভি বা কার্টুন দেখা দেখানো হলে বাচ্চারা সেগুলোতে অভ্যস্ত হয়ে যাবে। বেশি টিভি দেখা শিশুর জন্য স্বাস্থ্যকর নয়। টিভি দেখার সময় খাওয়ানো শিশুর বদহজমের ঝুঁকি বাড়ায়। কারণ এ সময় টিভিতে মনোযোগের কারণে পাকস্থলী থেকে প্রয়োজনীয় পরিপাক রস বের হয় না।

সময়সূচি অনুযায়ী খেতে না দেওয়া

সময়সূচি অনুযায়ী খেতে না দেওয়া, বয়স অনুযায়ী শিশুর ক্ষুধার সময়ের কিছু পার্থক্য রয়েছে। আপনার শিশুকে নিয়মিত সময়সূচীতে খাওয়ার অভ্যাস করুন। আপনি কি খাওয়াচ্ছেন তার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হল আপনি কখন খাওয়াচ্ছেন।শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার,  আপনার শিশুকে ঘন্টার পর ঘন্টা খাওয়াবেন না কারণ সে খেতে চায় না বা খাবে না। শিশু যদি একেবারেই খেতে না চায়,প্রয়োজনে চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলুন। তবু যখন-তখন খাবার দিয়ে তার ক্ষুধা নষ্ট করবেন না।

অযথা জোর করবেন না

অযথা জোর করবেন না অর্থ্যাৎ শিশুকে জোর করে খাওয়ানোর চেষ্টা করবেন না। আপনি যদি তাকে একবার জোর করে খাওয়ান,আপনি যখনই তাকে খাওয়াতে চান সে ভয় পাবে। খাবারের প্রতি তার আগ্রহ কমে যাবে। এক পর্যায়ে সে খাবারের প্রতি ঘৃণা তৈরি করতে পারে।

শিশুর বয়স অনুযায়ী খাবারের চাহিদা

শিশুর বয়স অনুযায়ী খাবারের চাহিদা

শিশুর বয়স অনুযায়ী খাবারের চাহিদা কতটুকু,সে একবারে কতটা খাবার খেতে পারে,তার শারীরিক কার্যকলাপ কেমন? এসব বিবেচনা করে শিশুর খাবারের পরিমাণ নির্ধারণ করতে হবে।

হজমে সমস্যা

হজমে সমস্যা, অনেক খাবার শিশুদের হজমের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে,যেমন দুধকে পুষ্টিকর খাবার হিসেবে খাওয়ানো হয়,খিচুড়ি রান্না করে কয়েক ধরনের ডাল,মাংস,ডিম নিয়মিত খাওয়ানো হয়,বিভিন্ন ফল,ফলের রস এসব খাবার থেকে শিশুদের হজমের সমস্যা হতে পারে। আর হজমে সমস্যা হলে খাবারের ক্ষুধাও কমে যায়।

শিশু যদি শারীরিকভাবে ফিট থাকে এবং পর্যাপ্ত খেলাধুলা করে তা হলে খাবার নিয়ে চিন্তা করার দরকার নেই। কিন্তু শিশু দীর্ঘদিন কিছু খেতে না চাইলে অভিজ্ঞ পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিন।

বাচ্চারা খেতে না চাওয়া,সত্যিই কি এটা কোন রোগ

বাচ্চারা খেতে না চাওয়া,সত্যিই কি এটা কোন রোগ, একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে ২০%-৫০% পর্যন্ত সুস্থ এবং স্বাভাবিক শিশুদের এই সমস্যা হতে পারে। বড় শিশুদের পাশাপাশি নবজাতকদের মধ্যেও এ ধরনের সমস্যা দেখা যায়। খাওয়ার এই অনিচ্ছাকে বলা হয় খাদ্য পরিহার বা খাওয়ার প্রতি তীব্র অনীহা।

কিছু ক্ষেত্রে শারীরিক অসুস্থতা এর জন্য দায়ী। অতিরিক্ত খাওয়ানো, অনুপযুক্ত খাওয়ানো, খাবারে অ্যালার্জি এবং ১৫% ক্ষেত্রে,তীব্র খাদ্য অনিচ্ছাও অটিজমের লক্ষণ হতে পারে।

কীভাবে বুঝবেন শিশুর খাবারে অনীহা আছে?

১. নবজাতকদের মধ্যে,বুকের দুধ খাওয়ার সময় বা খাওয়ানোর জন্য অবস্থান নেওয়ার সময় শিশুটি অস্থির হয়ে পড়ে এবং কাঁদে বা হাহাকার করে। বাহু এবং পা দিয়ে দূরে সরে যায় বা স্তনবৃন্তকে মুখ থেকে দূরে ঠেলে দেয়। জাগ্রত অবস্থায় খাওয়ানো সম্ভব হয় না, তবে ঘুমের মধ্যে মুখে দিলে ধীরে ধীরে খেতে শুরু করে।

২. বড় বাচ্চাদের খাবার দেখে কান্নাকাটি করা, বমি করা, খাবারে থুথু ফেলা, খাবারের স্বাদ ভালো না গন্ধ বলে। নির্দিষ্ট কিছু খাবার ছাড়া অন্য কিছু দেওয়ার পর বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া।

৩. খাওয়ার প্রতি অনীহা, খারাপ স্বাস্থ্য,খিটখিটে মেজাজ হওয়া,ধীরে ধীরে ওজন হ্রাস হওয়া।

কেন হয় খাবারে তীব্র অনীহা?

১. অনেক সময় মায়েরা শিশুকে কম খাওয়াচ্ছেন ভেবে দিনে তিনবার অতিরিক্ত খাবার খাওয়ান। কিন্তু অনেকেই মায়ের দুধকে খাদ্য হিসেবে বিবেচনা করেন না। ফলে তারা বুঝতে পারে না যে বুকের দুধ পান করার পর যে শিশুটি পূর্ণ হয়ে যায়, তখন অতিরিক্ত খাবার দিতে চাইলে শিশুটি খেতে নাও পারে। কিন্তু তখন এটাকে খাবারের প্রতি বিতৃষ্ণা বলা যাবে না। শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার, আবার সবার খাদ্য চাহিদা এক নয়। কেউ কেউ তিন চামচ খেয়ে তৃপ্তি পায়, আবার কেউ এক প্লেট খেয়েও তৃপ্ত হয় না। তাই, আপনার সন্তানের খাবারের চাহিদা বুঝুন, তাকে ক্ষুধার্ত থাকতে দিন এবং জোর করবেন না।

২. বয়স্ক শিশুদের মধ্যে, খাবার বা অন্য কিছু শ্বাসনালীতে ঢুকে গেলে বা শ্বাস নিতে অসুবিধা হলে ভয় থেকে পরে খাওয়ার প্রতি অনীহা তৈরি হতে পারে। আবার মুখে বা জিহ্বায় ঘা বা ঘা থাকলে, দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকলে বা শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক বা কেমো গ্রহণ করলে জিভে সাদা পর্দার মতো ময়লা বা ছত্রাক জমে।শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার, এসব ক্ষেত্রে শিশু খাবারের স্বাদ পায় না,তাই খাওয়ার প্রতি অনীহা জন্মে। ফলস্বরূপ,শিশু খাবারে ভয় পায়,খাওয়ার সময় ব্যথা অনুভব করে বা গিলতে অসুবিধা হয় এবং আর খেতে চায় না।

শিশু খেতে না চাইলে,কখন আপনার একজন ডাক্তারের সাথে আলোচনা করা উচিত?

আপনার শিশু যখন কিছু খেতে চায় না,কয়েকদিন তার খাদ্যাভ্যাসের দিকে নজর রাখুন। যদি মাত্র কয়েকদিন খেতে না চায়,তাহলে খুব বেশি চিন্তা করবেন না। এটা খুবই সম্ভব যে আপনার শিশু একটি নতুন বৃদ্ধি চক্রের সাথে সামঞ্জস্য করছে। তারপরও যদি কিছু দিন পরেও সে তার স্বাস্থ্যকর পরিমাণে খাবার না খায়,তাহলে তাকে শিশু বিশেষজ্ঞের কাছে নিয়ে যাওয়াই ভালো। এবং যদি এটি অ্যালার্জির কিছু হয় তবে আপনার অবশ্যই তাকে অবিলম্বে একজন ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া উচিত।

এছাড়াও, কিছু বিরল ক্ষেত্রে, আপনি যদি আপনার সন্তানের মধ্যে এই উপসর্গগুলি লক্ষ্য করেন, তবে এটি অবশ্যই একটি শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলার সময়:

  • পেট ব্যথা
  • মলের মধ্যে রক্ত দেখা দেওয়া
  • বমি করা
  • জলশূণ্যতা বা ডিহাইড্রেশন
  • মারাত্মক বেগে বমি হওয়া
  • ঘনঘন ডায়রিয়া
  • ওজন হ্রাস পাওয়া

শিশুর খাবার ও মায়ের ভাবনা

শিশুর খাবার ও মায়ের ভাবনা, শিশুর সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতে হবে,খাবারকে ভীতিকর কিছু ভাবা উচিত নয়। শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার, শিশুকে তার নিজের খাদ্য তালিকা বাড়াতে উত্সাহিত করুন, প্রতিটি নতুন খাবারের জন্য তাকে পুরস্কৃত করুন, তাকে খাবারের সাথে গল্প তৈরি করতে দিন এবং কয়েকদিন পর তার অগ্রগতি পর্যালোচনা করুন।

মনে রাখবেন,যদি আপনার শিশু খেতে না চায়,তাহলে চিন্তার কিছু নেই।শিশু কেন খেতে চায় না – শিশুর খাবার, এটির একটি সম্ভাব্য কারণ হতে পারে যে আপনার বাচ্চাটি কেবল এটির সাথে সামঞ্জস্য করার চেষ্টা করছে এবং আপনাকে জানাচ্ছে যে সে নির্দিষ্ট খাবার পছন্দ করে না। তাই যখন আপনার শিশু খেতে চায় না, তখন তাকে তা দেবেন না বা জোর করে খেতে দেবেন না।

Leave a Comment

betvisa