লালমনিরহাটে ভুট্টা চাষিদের দুর্গতি

নব্বইয়ের দশক থেকে উত্তর জনপ সীমান্তবর্তী জেলা লালমনিরহাটে ভুট্টার চাষ হচ্ছে। ২০১৮ সাল থেকে জেলাটি কর্ন জেলা হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে।

বছরের পর বছর ধরে প্রান্তিক কৃষক এবং কৃষি-উদ্যোক্তারা ভুট্টা চাষে জড়িত রয়েছে। সময় যত বাড়ছিল, কৃষিকাজও বেড়েছে। বছরের পর বছর তারা স্বপ্ন বুনে। তবে কৃষকরা এখনও সেই স্বপ্নের কাঙ্ক্ষিত সুবিধা পাননি।

এখনও পর্যন্ত জেলায় কোনও কর্ন কেন্দ্রিক কারখানা বা বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠা হয়নি। শিল্পগুলির প্রধান কাঁচামাল ভুট্টা, লালমনিরহাটে তাদের সরাসরি ক্রয় কেন্দ্রও ছিল না। সরকারী ক্রয় কেন্দ্র নেই।

জেলা কৃষি বিভাগের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা হামিদুর রহমান জানান, ২০২১ সালে লালমনিরহাটে ৪০,৪০০ হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ করা হয়েছে। এটি কৃষি বিভাগের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করেছে। ভুট্টা হেক্টর প্রতি 1 মন এবং হেক্টর 9.5 থেকে 10 টন দরে উত্পাদিত হয়েছে। হাতিবান্ধা ও পাটগ্রাম জেলার সর্বাধিক আবাদকৃত জেলা।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, লালমনিরহাটে উৎপাদিত ভুট্টার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। যদিও ভুট্টার দাম Rs০০ টাকা। প্রতি কুইন্টালে 900, কৃষকরা পান 800 বা তারও কম। এটি দেখা যায় যে ছোট ব্যবসায়ীরা কৃষকদের কাছ থেকে এবং বড় ব্যবসায়ীরা তাদের কাছ থেকে কিনে ফলস্বরূপ, ক্ষেতের কৃষকরা কখনই ন্যায্য দাম পান না। জেলা ভুট্টা চাষিরা প্রতি বছর কমপক্ষে 200 কোটি টাকা দেন।

কৃষকরা জানিয়েছেন, তিস্তার চর অঞ্চল সহ কয়েকটি উর্বর জমিতে ভুট্টার ফলন ১. 1.5 শতাংশ পর্যন্ত হয়। এই তথ্যের ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি। আর এভাবেই প্রতিবছর কৃষকদের হাত থেকে মোটা অঙ্কের অর্থ নষ্ট হচ্ছে।

জেলা বিপণন কর্মকর্তা আবদুর রহিম জানান, ভুট্টায় লাভের অনুপাত হচ্ছে না। এর বড় কারণ হ’ল কর্ন সঠিকভাবে শুকছে না। কারিগরি ও শ্রম সংকটে শুকিয়ে উঠতে না পেরে। এ কারণে তাদের ৪০০ টাকায় বিক্রি করতে হবে। বড় সংস্থাগুলির কোনও শপিং সেন্টার ছিল না। তারা এজেন্ট নিয়োগের মাধ্যমে ক্রয় করছে। এজেন্টরা 400 টাকায় কিনছেন, খানিকটা শুকনো এবং 700-800 টাকায় বিক্রি করছেন।

এক আউস ভুট্টা শুকিয়ে গেলে এ জাতীয় ঘাটতি হবে না, প্রতি আউন্সে এত অর্থের ঘাটতি থাকবে। যে কারণে ক্ষতির মুখে পড়ছেন কৃষকরা। আমরা সেই এজেন্টদের নিয়ে কাজ করব। কৃষক লাভের মুখ দেখবে।

তবে গত বছর থেকে জেলায় একমাত্র কৃষিভিত্তিক বহুজাতিক সংস্থা ভুট্টা কিনছে। মাত্র দুটি সংস্থা তাদের ব্যবসা শুরু করেছে।

নুর কুতবুল একজন কৃষক এবং ভুট্টা ব্যবসায়ী। তিনি বলেছিলেন যে ভুট্টার আর্দ্রতা পরিমাণ যদি 14 হয় তবে তা 730 টাকা।

আর্দ্রতার পরিমাণ যদি 18 হয় তবে ম্যানটি কেজি কেটে নেওয়া হয়। ধুলাবালি জন্য কাটা। ভুট্টা বিক্রি করতে এখন অনেক বিব্রত বোধ করছে। কাঁচা ভুট্টা সংস্থাগুলি বা বড় ব্যবসায়ীরা কিনে না। তারা আর্দ্রতার উপর নির্ভর করে ভুট্টা কিনে নেয়। সরকার নির্ধারিত দাম বা ক্রয় কেন্দ্র থাকলে কৃষকরা লাভবান হত।

আমজত হোসেন হাতীবান্ধার অন্যতম বড় ব্যবসায়ী। চুয়াডাঙ্গা থেকে এসে তিনি 20 বছর ধরে লালমনিরহাটে ব্যবসা করছেন। তিনি বলেন, আমরা বিভিন্ন কারখানায় ভুট্টা বিক্রি করি। আমি সারা বছর শুকনো ভুট্টা 700-800 টাকায় কিনেছি। ফারিয়ারা কৃষকদের কাছ থেকে কিনেছিলেন, আমরা তাদের কাছ থেকে কিনেছি।

চর শৈলমারীর কৃষক খোকন মিয়া জানান, কাঁচা ভুট্টার দাম কম। তাই আমি শুকনো ভুট্টা বিক্রি করি। আমি ৩ বিঘা জমিতে আবাদ করেছি। গতবার শুকনো ভুট্টা বেড়েছে ৯০০ টাকায়। তবে শুকনো ভুট্টা ৮০০ টাকায় বিক্রি করতে হয়েছিল।

জেলা কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক আশরাফ আলী বলেছিলেন, “আমাদের কাজ কৃষকদের হাতে নতুন ফসল হস্তান্তর করা।” বিপণনের কাজটি করেন কৃষি বিপণন অধিদফতর। কৃষক এবং শিল্পের চ্যানেল যত ছোট হবে কৃষক তত বেশি উপকৃত হবে। সরকার কাজ করছে। আমরা বাজার থেকে আমদানি করা কর্নফ্লেক খাই। এটি কারখানা হতে হবে। ভুট্টার দাম তখন আরও বাড়বে। কৃষকরা লাভবান হবেন। আপনার তো ফসল কাটতে হবে। খাদ্য মান যোগ করা আবশ্যক। এই দায়িত্ব অন্য বিভাগ নিতে হবে।

জেলা প্রশাসক আবু জাফর জানান, জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভুট্টা ব্র্যান্ড করা হয়েছে। প্রতিটি উপজেলায় ভুট্টা সংগ্রহ কেন্দ্র স্থাপন করতে হবে। আমরা কয়েকবার মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছি। দিনাজপুরে কর্ন অয়েল নিয়ে গবেষণা চলছে। এটি টাঙ্গাইলেও শুরু হয়েছে। সরকারী ও বেসরকারী সংস্থা এগিয়ে আসছে।

Leave a Comment