রোজা ইসলামের মূল ভিত্তি

রোজা সম্পর্কিত কোরআনের ৪টি আয়াত

যে পাঁচটি স্তম্ভের ভিত্তিতে ইসলাম, সেগুলির মধ্যে রোজা একটি। রোজার আরবি শব্দটি হচ্ছে রোজা। উপবাস শব্দের আভিধানিক অর্থ বর্জন করা। শরিয়তের পরিভাষায় খাওয়া ও যৌন মিলন থেকে বিরত থাকতে রোজা বলা হয়। এভাবেই কুরআনে রোজা ফরজ করা হয়েছে। ইরশাদ করেছেন: ‘হে মানদারগণ! তোমাদের উপর রোজা ফরজ করা হয়েছে, যেমন তোমাদের পূর্ববর্তীদের জন্য নির্ধারিত হয়েছিল, যাতে তোমরা সৎকর্মশীল হতে পার। গণনার কয়েক দিনের জন্য। তারপরে তোমাদের মধ্যে যে অসুস্থ বা ভ্রমণে রয়েছে, সে অন্য সময়ে রোজা শেষ করতে সক্ষম হবে। এবং যারা উপবাসকে খুব কঠিন মনে করেন, তারা পরিবর্তে দরিদ্র ব্যক্তিকে খাবার দেবেন। ধন্য তিনি, যিনি আনন্দের সাথে সৎকর্ম করেন। আর যদি আপনি রোজা রাখেন, তবে এটিই আপনার পক্ষে ভাল। ‘(সুরতুল বাকারাহ: আয়াত 173, 184)।

উপরোক্ত দুটি আয়াতে সুস্পষ্টভাবে বলা হয়েছে যে রোজার বিশেষ দিক ওয়াজিব হয়ে গেছে। সাদিক সকালে ওঠার সময় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত রোজা রাখা উচিত। যদি একই সময়ে কেউ রোজা থেকে বিরত থাকে তবে তা রোজা হিসাবে গণ্য হবে। যদি কেউ সূর্যাস্তের এক সেকেন্ড আগেও খেয়ে, পান করে বা সহবাস করে, তবে কেউ রোজা রাখবে না।

একইভাবে, যদি সকল কিছু থেকে বিরত থাকার পরেও যদি রোজার নিয়ত না হয়, তবে রোজা থাকবে না। রোযার হুকুম কেবল মুহাম্মাদান উম্মাহর উপর নয়, পূর্ববর্তী উম্মাহর উপরও ফরয ছিল। রোজা ইবাদতের একটি কঠিন কাজ। পূর্বের সমস্ত উম্মাহ এই ইবাদত সম্পাদন করেছেন। তবে পূর্ববর্তী উম্মাহর রোযার রীতি এবং উম্মতে মুহাম্মাদকে আরোপিত প্রতিদিনের রোযার রীতি কিছুটা আলাদা ছিল। রোজার পুরো ফর্ম মুহাম্মাদান উম্মাহর উপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিয়ামত পর্যন্ত রোজা ও ইবাদতের রুপ ও নিয়মে কোনও পরিবর্তন হবে না।

রোযাকে ওয়াজিব করার পিছনে জ্ঞান হ’ল তাকওয়া ও পরিহারের শক্তি অর্জন করা। সব ধরণের খাওয়া, পান করা এবং দুষ্টতা থেকে বিরত থাকা খুব কঠিন। তবে রোজা রাখা কঠিন বলে বিবেচিত হয় না। কারণ উপবাসের মাধ্যমে শারীরিক আকাঙ্ক্ষাকে প্রশান্ত করতে এবং প্রবৃত্তিগুলি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য একটি বিশেষ শক্তি অর্জিত হয়। এ শক্তিই তাকওয়া ও বিসর্জনের ভিত্তিকে মজবুত করে।

তবে যারা অসুস্থ, যাদের রোজা রাখতে অসুবিধা হচ্ছে বা যারা রোগ-ব্যাধির ঝুঁকিতে আছেন তারা পরের দিন মিস করা রোজা রাখতে সক্ষম হবেন। একইভাবে, একজন প্রবীণ ব্যক্তি যার উপবাস অত্যন্ত কঠিন, তিনি দরিদ্র ব্যক্তিকে মুক্তিপণ হিসাবে খাবার দেবেন। তাকে উপোস করতে হবে না।

আর শরীয়ত জায়েয দূরত্বে আবদ্ধ হওয়ার জন্য ঘর ত্যাগ করলে মুসাফিরের ক্ষেত্রে রোজা না রাখার বিধি প্রযোজ্য হবে। এছাড়াও, তিনি যদি ঘর থেকে বাইরে থাকেন তবে তাকে ভ্রমণকারী হিসাবে বিবেচনা করা যাবে না। এবং রোজা না রাখার আদেশ তাঁর উপর চাপানো হবে না। বরং তাকে অবশ্যই রোজা রাখতে হবে। কেবলমাত্র যারা প্রকৃত ভ্রমণকারীরা ভ্রমণের সময় রোজা না রেখেই পরবর্তী সময়ে এটি প্রস্তুত করতে সক্ষম হবেন।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *