রংপুরে চাষাবাদে আমূল পরিবর্তন

রংপুরে চাষাবাদে আমূল পরিবর্তন

রংপুরের হারাগাছা বাংলাদেশের ধনী গ্রাম। ব্যতিক্রম বাংলাদেশের অন্য দশটি গ্রাম থেকে। কয়েকশ কোটি টাকার অগণিত গ্রাম। তবে দম ফেলার কোনও উপায় নেই। বাতাসে তামার গন্ধ। ধুলায় তামাকের ঝোপ। তামাকের গন্ধ আপনার আঙ্গিনায় প্রবেশ করবে। রান্নাঘরে তামাকের গন্ধ। তামাকের পাতা ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে সর্বত্র। বিড়ি তৈরির সরঞ্জাম। আশেপাশের রাস্তার উভয় দিকেই আপনি চোখ দেখতে পাবেন, তামাক ভরা ক্ষেত দেখতে পাবেন। চিরচেনা যে হরগাছে পা দেখে মনে হড়গছে? তামাক নেই, তামাকের পাতা গন্ধ নেই! এমনকি বিশাল দেয়ালের অভ্যন্তরেও বিল্ডিংগুলিতে বিড়ি তৈরির কোনও ধোঁয়া নেই! হারাগাছ কি বদলেছে? রহস্যময় কান্ড! স্থানীয় সাংবাদিক মো। হারাগাছায় এই পরিবর্তনের রহস্য উন্মোচন করেছেন মেহেদী হাসান সুমন। তিনি বলেছিলেন, হারাগাছে এখন খুব কম বাড়িতে বিড়ি তৈরি করা হয়।

পার্শ্ববর্তী জেলা রংপুর, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম ও নীলফামারীতেও তামাকের চাষ হ্রাস পেয়েছে। গ্রামের কৃষকরা নিজে সচেতন হয়েছেন এবং তামাকের পরিবর্তে জমিতে বিভিন্ন ফসলের চাষ করছেন। আমি তিস্তা নদীর কয়েকটি চর ঘুরে হারাগাছে ঢুকলাম। চা পার্টি শেষে বের হওয়ার সাথে সাথেই আমি দেখতে পেলাম যে কয়েক বছরে এই অঞ্চলে চাষ অনেকটাই বদলেছে। তামাকের জমিতে কৃষকরা আলু, ভুট্টা, বাদাম, সূর্যমুখী এবং পেঁয়াজ চাষ করছেন। জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু সেতু (যমুনা সেতু) উদ্বোধনের পর উত্তর অঞ্চল থেকে শাকসবজি প্রতিদিন ঢাকায় যায়। ফলস্বরূপ, কৃষকরা সবজি বিক্রি করতে পারেন। এ কারণেই তারা তামাকের পরিবর্তে সবজিসহ অন্যান্য ফসলের দিকে ঝুঁকছেন।

রংপুরের সমস্ত বড় রাস্তা পাকা করা হয়েছে। আমি বাইক চালাচ্ছি দুই দিনের মধ্যে, পীরগাছা, কাউনিয়া, গঙ্গাছড়া, তারাগঞ্জ, বদরগঞ্জ, লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা, লালমনিরহাট সদর, কুড়িগ্রাম এবং রংপুরের নীলফামারী জেলার অর্ধশতাধিক গ্রাম পরিদর্শন করা হয়েছিল। যারা ঢাকায় কৃষিতে কাজ করেন, প্রশাসনে যারা বড় পদে আছেন; এই কৃষিক্ষেত্র তাদের অজান্তেই রংপুরে ঘটেছিল। যে জমি তামাক চাষের জন্য ব্যবহৃত হত; এখন রয়েছে আলু, পটল, ভুট্টা, সূর্যমুখীর চাষ। রংপুরে আলু চাষে বিপ্লব হয়েছে। এমনকি কয়েক বছর আগেও ‘সবুজ তামাকের পাতাগুলি’ মাইল এবং মাইল দূরে চাষ করা হত। কয়েকটি উপজেলায় তামাক (!) আক্রান্ত হয়েছিল। রংপুরে বড় আকারের তামাক প্রক্রিয়াকরণ সহ তামাক নির্ভর কারখানা স্থাপন করা হয়েছে।

নেশা জাতীয় পণ্যগুলিতে ব্যবসা করে এবং বিভিন্ন স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলি কৃষকদের অগ্রিম অর্থ দিয়ে তামাকের পাতা চাষ করতে উত্সাহিত করে। এটি ছাড়া পোকামাকড় এবং মাকড়সা তামাকের পাতার ক্ষতি করতে পারে না; কৃষকরা সে জন্য তামাক চাষ করতেন। এর আগে রংপুরের গ্রামে গেলে দেখতে পাবেন বাঁশের বেড়া, ধানের কুঁড়ি, রাস্তাঘাট ও ঘাট বরাবর টিন ও বেড়ার বেড়া। তামাকের পাতা রোদে শুকানো হচ্ছে। ঘরে ঘরে শুকনো তামাকের গাদা দিয়ে ভারা ভরাট করা হচ্ছে। হঠাৎ গ্রামে কেউ এলে তামাকের তীব্র গন্ধের কারণে তাকে নাকে রুমাল নিয়ে হাঁটতে হয়েছিল। এবং এই সমস্ত জিনিস পুরুষ এবং মহিলা এমনকি শিশুরা দ্বারা সম্পন্ন হয়েছিল। এটি ছিল রংপুরের গ্রামীণ চিত্র। বিড়ি, সিগারেট এবং গোলাপ সহ বিভিন্ন তামাকজাত পণ্য সেই তামাক পাতা থেকে তৈরি করা হয়েছিল। মারাত্মক নিকোটিন রয়েছে তা জেনে যুগে যুগে তামাক চাষ চলছে! কাউনিয়া কৃষক মো। মকবুল হোসেন বলেন, বিভিন্ন সংস্থার লোকেরা কৃষকদের আগে থেকে অর্থ ও কীটনাশক দেয়। এজন্য তিনি জমিতে তামাক লাগিয়েছেন। তবে এখন লোকজন তামাকের চাষ কমিয়ে দিয়েছে।

আমি যখন বাইক চালাচ্ছিলাম, দেখলাম হারাগাছীর চর চতুড়া গ্রাম, যেখানে শূন্য জমিতে আলু পড়ে ছিল। কয়েকটি জমিতে আলু পড়ার এই দৃশ্যটি কৃষকের নজর কেড়েছিল। আমি আজহারুল ইসলামকে জিজ্ঞাসা করলাম যে এভাবে আলু চুরি হয় না? উত্তরটি হ’ল, ‘কে আলু চুরি করবে? সবার জমিতে আলু। কে আলু খায়? টোকাই বাচ্চারা দিনে ১০ থেকে ২০ কেজি আলু বাছাই করে। রংপুর জেলার প্রতিটি গ্রামেই দেখবেন শত একর জমি আলু সাফ হয়ে গেছে। কমলা (খামারি শ্রমিক) এখানে বস্তা ভরে দেবে; কেউ বিক্রি করবে; কেউ এটিকে কোল্ড স্টোরেজে প্রেরণ করেন। এর আগে কৃষকদের ঘরে তামাক চাষ হত। কৃষকরা বেশি লাভের জন্য তামাক চাষ করতেন। তামাকের ভয়াবহতা জেনে আমি বেশি লাভের আশায় তামাক চাষ করেছি। তামাকের জমিতে এখন আলু, ভুট্টা ও ধানের চাষ করছি। রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার কুরশা ইউনিয়নের কৃষক সলিমুল্লাহ বলেন, ‘তামাকের বেশি রোগ হয় না। তিনি যখন তামাক চাষ করেন তখন সংস্থার লোকেরা বাড়িতে এসে হামাক তেল দিয়ে তামাক কিনে থাকে। হামরা নগদ টাকায় তামাক চাষ করছেন। তিনি আরও বলেছিলেন, “আমরা ফসলের চাষ করব যা হামরা কৃষকদের উপকৃত করবে।” কায়ো হামাক তামাক চাষ নিষিদ্ধ করেননি। তামাক ক্ষতিকারক তা বুঝতে পেরে আমি এখন আলু রোপণ করছি। একই দৃশ্য দেখা গেছে রংপুর, লালমনিরহাট, নীলফামারী, কুড়িগ্রামের বিভিন্ন গ্রামের ক্ষেতে।

হারাগাছে অনুসন্ধানের পরে দেখা গেল, বিভিন্ন বয়সের লোকেরা শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন জটিল চর্মরোগে ভুগছেন। তারা সবাই বিড়ি কারখানায় শিশু ও মহিলা শ্রমিক ছিলেন। স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, খালি পেটে উচ্চ মাত্রার বিষাক্ত ধুলা এবং ধূমপানের কারণে রংপুরের বিড়ি শ্রমিকরা ‘বার্গেস’ নামে একটি মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। এই রোগে আক্রান্ত হলে হাত ও পায়ে ক্ষত দেখা দেয় এই পচনশীল রোগের চিকিত্সা বেশিরভাগ মানুষের পা এবং হাতের ঘা হয় যা কিছু সময় সরিয়ে নিতে হয়। গত ৩০ বছরে এই রোগের কারণে পাঁচ শতাধিক লোকের পা কেটে ফেলা হয়েছে। এ ছাড়া হারাগাছায় প্রায় ৪০ শতাংশ মানুষ তামাকজনিত কারণে শ্বাসকষ্ট ও গলার রোগে ভুগছেন। তামাক কারখানায় কর্মরত মহিলাদের ভ্রূণগুলি শ্বাসকষ্টজনিত রোগে ভোগে; অনেক শিশু প্রতিবন্ধী হয়ে জন্মগ্রহণ করে। সরাইয়ের আবদুল ওহাব বিড়িতে ব্যবসা করতেন। এখন পানীয়ের দোকান। বলেছিলেন, ‘তামাকের বিষ রয়েছে। যে কারণে শরীরে শক্তি থাকে না। সারাদিন ক্লান্ত লাগছে। মাঝে মাঝে শ্বাসকষ্ট হয়। এজন্য আমরা তামাক চাষ করি না। ‘

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের হিসাবে, ২০১২-১৩ অর্থবছরে রংপুরের ৮ টি উপজেলায় সর্বোচ্চ জমিতে তামাকের আবাদ করা হয়েছিল। ২০১২ সালে সাড়ে চার হাজার হেক্টর জমিতে তামাকের চাষ হয়েছিল। এখন অর্ধেকেরও কম জমিতে আবাদ হয়েছে। গঙ্গাচড়ার মোতালেব হোসেন বলেন, ‘এক সময় আমাদের অঞ্চলে প্রচুর তামাক চাষ হত। স্বাস্থ্য ঝুঁকির কারণে কেউ তামাকের জমিতে কাজ করতে চায় না। দীর্ঘদিন তামাকক্ষেত্রে কাজ করা শরীরকে অসুস্থ করে তোলে। এ কারণেই মানুষ তামাক ছেড়ে দিয়ে অন্য ফসলের দিকে ঝুঁকছে। আর বঙ্গবন্ধু যেহেতু একটি সেতু হওয়ায় সবজিকে ট্রাকে করে ঢাকায় পাঠানো যায়। কৃষকরা দাম পাচ্ছেন। তিনি বলেছিলেন, একাত্তরে রংপুরে তামাক চাষ শুরু হয়েছিল। রংপুর সদর, হারাগাছা, তারাগঞ্জ ও গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া ও পীরগাছা উপজেলায় তামাকের চাষ হত। এখন কম চাষ হচ্ছে।

রংপুরের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, প্রতি মৌসুমে রংপুরের পাঁচটি জেলায় আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা ৮৬,৬৪২ হেক্টর থেকে এক লক্ষ হেক্টর জমিতে রাখা হয়েছে। রংপুর অঞ্চলে প্রতি বছর ২২ লাখ থেকে ৩০ লাখ মেট্রিক টন আলু উৎপাদন হয়। ছবিটি রংপুরের পীরগাছা, কাউনিয়া, লালমনির হাট সদর এবং হাতীবান্ধায় দেখার পরে পাওয়া গেছে। কৃষকরা বলছেন, গত বছর আলুর দাম ছিল ভালো। এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলন ভালো হয়েছে। তবে দাম কমেছে। তারপরেও আমি তামাকের পরিবর্তে আলু চাষ করছি। যদি সরকার এখন পর্যাপ্ত কোল্ড স্টোরেজ স্থাপন করে, কৃষকরা আর তামাকের দিকে যেতে পারবেন না।

পীরগাছা উপজেলার সৈয়দপুর এলাকার আনোয়ার হোসেন জানান, তার এলাকায় যে জমিতে চাষাবাদ হত তার এক চতুর্থাংশ কম হয়েছে। গ্রানোলা, লওড়া, মিউজিকা, ক্যারেজ, রোমানা এবং ফাতা পাকরির সমস্ত জমিতেই চাষ হচ্ছে। তিনি আরও জানান, এমনকি দু-তিন বছর আগেও ঢাকা-দিনাজপুর মহাসড়কের রংপুর বিভাগের দুপাশে বৃহত্তর অঞ্চলে তামাক চাষ দেখা যায়। সেই তামাকের জমিতে এখন অন্যান্য ফসলের চাষ হচ্ছে। তবে কোল্ড স্টোরেজ না থাকায় কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। রংপুর অঞ্চলে আলু সংরক্ষণের জন্য রয়েছে মাত্র ৬৭টি হিমাগার এর মধ্যে ৪০ জন রংপুরে এবং ১০ জন নীলফামারীতে রয়েছে। বাকি তিনটি জেলায় ১৭ টি কোল্ড স্টোরেজ রয়েছে। তবে এখানে চাহিদা শত শত ঠান্ডা স্টোরের জন্য।

আমরা যখন গঙ্গাচড়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর কাছে পৌঁছলাম, তখন বিকেল হয়ে গেছে। এক সহকর্মী তাকে জল খেতে বাড়িতে নিয়ে গেলেন। বিঘার পর বিঘা জমিতে কুমড়ো চাষ দেখেছি। মোঃ শহিদুল ইসলাম নামে এক কৃষক বলেছেন, ‘এখানকার কৃষকরা তিস্তার তীরে কুমড়ো চাষ করেন। তিনি তামাক চাষ করতেন। তবে কাউনিয়া ও পীরগাছা এলাকার তিস্তার চরে বাদামের চাষ বাড়ছে। লালমনিরহাটে তামাকের জমিতে এখন ভুট্টার চাষ হচ্ছে।

পথে আড়াআড়িটি দেখে মনে হচ্ছে রংপুরের তামাক চাষের জমিতে ভুট্টার বাম্পার ফসল তোলা হয়েছে। অতীতের সমস্ত রেকর্ড ভেঙে রংপুর অঞ্চলের ৫ টি জেলায় ৯ লক্ষ ২৩ হাজার মেট্রিক টন ভুট্টা উত্পাদিত হয়েছে। কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, রংপুর, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট ও নীলফামারীতে ৮৩,১৯২ মেট্রিক টন জমিতে ভুট্টার আবাদ করা হয়েছে। মাঠটি দেখে বোঝা যায় এটি।

রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার পীরগাছর রহমত চর এলাকায় তেপমধুপুর, ভুট্টার একাধিক কৃষকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা তামাকের পরিবর্তে ভুট্টা চাষ করছেন এবং ভাল ফলন পাচ্ছেন। কেউ কেউ বাদাম চাষ করে সাফল্য দেখিয়েছেন। কুড়িগ্রাম শহর থেকে বাইক দিয়ে লালমনিরহাটে যাওয়ার সময় রাস্তার দুপাশে ভুট্টা ও সূর্যমুখীর চাষ দেখতে পাচ্ছি। তামাকের জমিতে সূর্যমুখীর চাষ হচ্ছে। ধরলা দ্বিতীয় সেতুর আজির উদ্দিন জানান, এর আগে তামাক বেশি লাভজনক হত। সুতরাং আমি কি চাষ করছি। এখন আমি কর্ন করছি প্রতি একর জমিতে ভুট্টা চাষ করতে খরচ হয় ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা। এবং ভুট্টার উৎপাদন হয় ৬৫ থেকে ৭০ মন। প্রতি মন ৫০০ থেকে ৭০০ টাকায় বিক্রি হয়। এমনিতেই তিনি ভুট্টা চাষের ব্যয় কেটে একর প্রতি ৩০,০০০ থেকে ৩২,০০০ টাকা উপার্জন করেন। তামাক বিষাক্ত বলে আমি কৃষিকাজ ছেড়েছি।

রংপুরে কৃষিনির্ভর কৃষকরা বলেছিলেন যে ৩০ বছর আগে রংপুরের জমিতে ধান ও পাটের মতো তামাকের চাষ হত। এখন তামাক চাষ কমেছে। ২০১৯ সালে, ১৩ হাজার ৫৫৭ হেক্টর জমিতে 5 জেলায় তামাকের আবাদ করা হয়েছে। ২০২০ সালে এ পর্যন্ত ৩,৫৫৫ হেক্টর জমিতে তামাকের আবাদ করা হয়েছে। এবার তামাক চাষের পরিমাণ আরও কমেছে। রংপুর অঞ্চলের কৃষকরা শ্বাসকষ্ট ও ক্যান্সার সহ বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি হওয়ায় তামাকের পরিবর্তে ভুট্টা, শাকসবজি ও আলু চাষ শুরু করেছেন।

রংপুর কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালে লালমনিরহাট জেলায় ৯,১০০ হেক্টর জমিতে তামাকের চাষ হয়েছিল। এরপরে রংপুরে ১,৫৪০ হেক্টর, গাইবান্ধা ৪০ হেক্টর, কুড়িগ্রামে কৃষকরা তামাক চাষ করেনি, নীলফামারী ৩,১০৬ হেক্টর জমিতে। ২০১৯, সালে, লালমনিরহাট জেলায় ৮,৯৫০ হেক্টর, নীলফামারী জেলায় ৩,০২৩ হেক্টর, রংপুরে ১৫২৫ হেক্টর, গাইবান্ধায় ৯ হেক্টর এবং কুড়িগ্রামে ৫০ হেক্টর জমিতে তামাকের চাষ হয়েছিল। ২০২০ সালে, লালমনিরহাট জেলায় ৩৫৫৫ হেক্টর, রংপুরে ১৫ হেক্টর এবং অন্যান্য জেলাগুলিতে এখনও তামাক জন্মেনি। এ বছর তামাক চাষের পরিমাণ আরও কমেছে। কৃষকদের দেখা তথ্য অনুযায়ী, প্রতি বছর কৃষকরা বিষাক্ত তামাক ছাড়াও বেশি ফসল তুলছেন। কাউনিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল আলম জানান, তিস্তা নদীর সীমান্তবর্তী কাউনিয়া উপজেলায় বিভিন্ন ধরণের শাকসব্জী, ভুট্টা ও আলু চাষ হচ্ছে। এটি বলে ছাড়াই যায় যে তামাক চাষ আর হয় না।

রংপুরের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, প্রতি বছর রংপুর অঞ্চল থেকে তামাকের চাষ হ্রাস পাচ্ছে। কৃষকরা তামাক চাষ থেকে শুরু করে সবজি চাষে বদলাচ্ছেন। বঙ্গবন্ধু সেতু হওয়ায় মানুষ তামাকের জমিতে আলু, ভুট্টা ও বাদাম সহ বিভিন্ন শাকসবজি চাষ করছে। এতে কৃষকরা ভালো সুবিধা পাচ্ছেন।

বৃহত্তর রংপুর পরিদর্শন শেষে ঢাকায় ফেরার পথে তিনি রংপুর শহরের এরশাদ মোড়ে কেফায়েত হোসেনের সাথে কথা বলেন। তার বাড়ি তারাগঞ্জ উপজেলায়। তিনি বলেন, তিস্তার চর অঞ্চলের কৃষকরা এখন প্রায় 34 ধরণের সবজি চাষ করছেন। আগে তারা তামাক চাষ করত। আর রংপুর জেলা আলু চাষের জন্য মুন্সিগঞ্জ ছেড়ে গেছে অনেক আগেই। তামাক চাষ মাটির উর্বরতা হ্রাস করে। অন্যান্য ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হয়। তামাক চাষ শ্বাসকষ্ট এবং ক্যান্সার সহ বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি বহন করে। তামাক চাষের পরিবর্তে রংপুর অঞ্চলের কৃষকরা ভুট্টা, আলু, ফুল ও শাকসবজি চাষ শুরু করেছেন। কোথাও চা চাষ হচ্ছে। রংপুরের কৃষকদের নীরব কৃষি বিপ্লব নিয়ে মিডিয়া কিছুই লেখেন না। তবে সংবাদটি গণমাধ্যমে দেওয়া হয়েছিল। তিনি গণমাধ্যমে লিখেছেন, কৃষকদের উত্সাহিত করে, এটি রংপুরের কৃষকদের আরও উত্সাহিত করবে। রংপুরের কৃষকরা তামাককে ‘না’ বলে কৃষিক্ষেত্রের জন্য যে উদাহরণ স্থাপন করেছেন তা দেশের অন্যান্য অঞ্চলের কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করবে।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *