রংপুরে গরিবের ডাক্তার রুহুল আমিন

গরিবের ডাক্তার রুহুল আমিন

করোনার সংক্রমণের প্রথম পর্যায়ে গ্রামবাসী তার সাথে ঘনিষ্ঠ হন। ফোন আসার সাথে সাথে সে দিনরাত পালিয়ে গেল। যখন বেসরকারী হাসপাতাল এবং ক্লিনিকগুলি বন্ধ ছিল, তখন তার ব্যক্তিগত চেম্বারগুলি এখনও খোলা ছিল। মানবতার সেবায় নিযুক্ত লোকটি কখনই কোনও রোগীকে দেখতে ফি নেননি। বরং তিনি চিকিত্সা যত্নের মৌলিক মানবাধিকার নিশ্চিত করতে নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন। বলছিলাম ডাক্তার রুহুল আমিনের কথা। গ্রামের লোকেরা তাকে ‘দরিদ্রের ডাক্তার’ বলে ডাকে।

রংপুর সদর উপজেলার সদ্যপুষ্করিনী ইউনিয়নে রুহুল আমিনের কর্মস্থল। তিনি কুন্ডি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার। ইউনিয়নের পালিছড়া বাজারে তার ব্যক্তিগত চেম্বার। সরকারী দায়িত্ব পালনের পর সন্ধ্যায় তিনি চেম্বারে রোগীকে দেখেন। রুহুল আমিনের চেম্বারে কোনও স্থির ফি নেই। দরিদ্র লোকদের বিনামূল্যে চিকিত্সা ও পরামর্শ দেয়।

রুহুল আমিন নতুন পুলটিতে সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জন করেছেন। করোনারি হার্ট ডিজিজের শুরুতে, রোগীদের পর্যাপ্ত যত্ন না দেওয়ার জন্য চিকিত্সকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছিল। এ সময় কিছু চিকিৎসককে হাসপাতাল, ক্লিনিক এবং চেম্বারে দেখা যায়নি। রুহুল আমিন তখনও ফ্রন্ট-লাইনের যোদ্ধা হিসাবে জনগণের মধ্যে ছিলেন। কঠিন সময়ে তিনি গ্রামের মানুষের আস্থায় পরিণত হন। এ কারণে গ্রামের লোকেরা তাকে দরিদ্রের ডাক্তারও বলে থাকেন।

দেশের করোনার পরিস্থিতি খারাপ হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে, সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে পুরো দেশটি এক সপ্তাহের জন্য লকডাউনে থাকবে। করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গ মোকাবেলায় সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। হঠাৎ, লকডাউন ঘোষণার মাধ্যমে সাধারণ মানুষ সরল। অনেকে ঝুঁকি নিয়ে গ্রামে ছুটে চলেছেন। ডাক্তার রুহুল আমিন লকডাউন পরিস্থিতিতে এই লোকদের চিকিত্সা সেবা নিশ্চিত করার জন্য নিজেকে আগের মতো প্রকাশ করতে চান।

অন্যান্য চিকিৎসকদের মতো রুহুল আমিনও শুধু সরকারী দায়িত্ব পালন করে অলসভাবে বসতে চান না। নিজেকে মানুষের সেবায় নিবেদিত করতে চান। রুহুল আমিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রের জরুরি ও বহির্মুখী বিভাগের জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনতে চান।

নতুন করোনার বিপর্যয়, লকডাউনের ঘোষণা এবং শহর থেকে গ্রামাঞ্চলে সাধারণ লোকদের প্রস্থানের প্রসঙ্গে তিনি আগের মতো পরিবেশন করতে প্রস্তুত। এ কারণে তার চেম্বারে রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। তবে রুহুল আমিনের নিজের ও রোগীকে সুরক্ষার জন্য কোনও সুরক্ষা সরঞ্জাম নেই। সুতরাং, তিনি নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে নিয়মিত রোগীদের দেখেন।

চিকিত্সক রুহুল আমিন toldাকা পোস্টকে বলেছেন, গ্রামাঞ্চলের মানুষের প্রাথমিক চিকিৎসা নিশ্চিত করতে সরকার আমাদের নিয়োগ করেছে। আমাদের কাজ হ’ল স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা। তবে দুঃখের বিষয়, ভয়াবহ করোনার পরিস্থিতি চলাকালীন যথাযথ সুরক্ষা না পাওয়ায় আমার মতো অনেকেই তাদের জীবন ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছেন। আমি মহামারীটিতে মানুষের পাশে থাকতে প্রস্তুত আছি। আমি নিজেকে মানুষের সেবায় নিবেদিত করতে চাই।

তিনি আরও জানান, রোগীর স্ট্রেস বেড়েছে। সাধারণ মানুষ চিকিৎসা সেবা পেতে ভিড় করছেন। বেশিরভাগ রোগীই পরিচিত। তারা ইউনিয়নের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসেছিলেন। কাউকে ফিরে পেতে পারি না। করোনার ঝুঁকি রয়েছে, এটা জেনে যে আমি কাছের লোকদের কাছ থেকে চিকিত্সা দিচ্ছি।

চিকিৎসক রুহুল আমিন দিন দিন করোনার মামলার সংখ্যা বাড়ছে এবং সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার কারণে মানুষকে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

“করোনারি হার্ট ডিজিজ প্রতিরোধে প্রত্যেককে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে,” তিনি বলেছিলেন। আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। সামনের দিনগুলিতে পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। যদি কোনও ব্যক্তির করোনারি হৃদরোগের লক্ষণ থাকে তবে তাকে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে। এটা আড়াল করার বিষয় নয়। লক্ষণগুলি বুঝতে এবং আলাদা ঘরে থাকুন। থালা – বাসন পৃথক করা উচিত। চিকিত্সকদের পরামর্শ অনুসারে হোম কোয়েরেন্টাইন নিশ্চিত করার সাথে ওষুধও গ্রহণ করা উচিত।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *