রংপুরে করোনার নমুনা পরীক্ষায় কোটা নির্ধারণ

বিভাগীয় শহর রংপুরে সংক্রমণ উদ্বেগজনক পরিমাণে পৌঁছেছে করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গ আঘাত হানার পরে। রংপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় দশ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ বাস করলেও, রংপুর মেডিকেল কলেজে প্রতিষ্ঠিত পিসিআর ল্যাব প্রতিদিন মাত্র ৫০ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষার কোটা নির্ধারণ করেছে। ফলস্বরূপ, শত শত মহিলা এবং পুরুষ নমুনা পরীক্ষার জন্য জড়ো হয়েছেন, তবে তাদের নমুনাগুলি পরীক্ষা করা হচ্ছে না। এটি তাদের চরম সঙ্কটের কারণ করছে। অন্যদিকে, নমুনা নেওয়ার পরে 5 থেকে 7 দিনের মধ্যেও রিপোর্টটি মেলে না। এদিকে, গত দেড় সপ্তাহে করোনায় মারা গেছেন ১০ জন।

রংপুর স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, রংপুর মেডিকেল কলেজটিতে পিসিআর ল্যাবটির সক্ষমতা ১৮৮ টি নমুনা পরীক্ষা রয়েছে। এ কারণেই রংপুর শহর ও আশেপাশের গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট চারটি জেলা বাদে পুরো জেলা, মেশিন থেকে মানুষের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। জেলা উপজেলা ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের জন্য কোটা নির্ধারণ করা হয়েছে। রংপুর সিটি কর্পোরেশন প্রতিদিন পরীক্ষার জন্য ৫০ জন ব্যক্তির নমুনা দিতে সক্ষম হবে। একইভাবে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের নমুনা পরীক্ষার কোটাও নির্ধারণ করা হয়েছে।

রংপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো। কামরুজ্জামান তার অসহায়ত্ব স্বীকার করে বলেন, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের আলাদা পিসিআর মেশিনের দরকার ছিল। দশ লক্ষ লোকের জন্য ৫০ জন কোটার কারণে বেশিরভাগ মানুষ নমুনা পরীক্ষা করার সুযোগ পাচ্ছেন না। ফলস্বরূপ, আমরা নমুনা সংগ্রহ করলেও, প্রতিবেদনটি ৫-৭ দিনের আগে পাওয়া যায় নি। এদিকে, করোনার সংক্রমণ যে হারে বাড়ছে, তার জন্য পৃথক পিসি এবং মেশিন ইনস্টল করা গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, ৫০ টি নমুনা পরীক্ষার জন্য ইতিমধ্যে কোটা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে বিদেশী যাত্রী আইন প্রয়োগকারী বাহিনীর সদস্য সহ ভিআইপি’র ২৫ টিরও বেশি নমুনা প্রেরণ করা হয়েছিল, যাতে সর্বোচ্চ ২০ থেকে ২৫ টি নমুনা পিসিআর ল্যাবটিতে প্রেরণ করা যায়। এমন পরিস্থিতিতে নমুনা জটলা হয়ে গেছে। বর্তমানে পিসিআর ল্যাবে তিন শতাধিক নমুনা পড়ে রয়েছে।


এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছিলেন যে করোনার সংক্রমণের লক্ষণগুলি উপস্থিত হওয়ার পরে লোকেরা সাধারণত নমুনা পরীক্ষার জন্য আসে। তবে এটি সত্য যে করোনা সংক্রামিত হয়েছে তবে এর নমুনা প্রতিবেদন আসেনি। এটি ৬-৭ দিন সময় নেয়। গত কয়েকদিন ধরে ভুক্তভোগী তার স্বজনদের সাথে শহরে অবস্থান করায় পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও করোনায় ভুগছেন। তিনি রংপুরে আরও একটি সিটি স্ক্যান মেশিন স্থাপনের দাবি জানান।

ঘটনাস্থলে তিনি রংপুর শহরের নিউ ইঞ্জিনিয়ার পাড়ার স্কুল স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি পরিদর্শন করেন এবং শত শত মহিলা এবং পুরুষকে করোনার নমুনার জন্য অপেক্ষা করতে দেখেন। তাদের বেশিরভাগের বয়স 20 থেকে 25 বছর এবং কিছু কিছু এমনকি কম বয়সী। ফলস্বরূপ, করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গ তরুণ ছেলে-মেয়েদের আরও বেশি প্রভাবিত করছে।

নমুনা সংগ্রহকারী দুজন স্বাস্থ্যকর্মী বলেছিলেন যে তরুণ ছেলে-মেয়েরা করোনায় সংক্রামিত হচ্ছিল কারণ তাদের দেহ এই রোগের চেয়ে বেশি প্রতিরোধী এবং তার পরিবারের বয়স্ক ব্যক্তিরা সংক্রামিত হয়ে গুরুতর অসুস্থতায় মারা যাচ্ছিল।

স্কুল স্বাস্থ্যকেন্দ্রে স্যাম্পল দেওয়ার অপেক্ষায় থাকা দুই মহিলা জানিয়েছেন, নমুনা দেওয়ার ৫-৬ দিন আগে কোনও প্রতিবেদন পাওয়া যায়নি। ফলস্বরূপ, তিনি কারোনার দ্বারা আদৌ আক্রান্ত হয়েছেন কিনা তা জানার উপায় নেই। ফলস্বরূপ, নমুনা দেওয়ার পরে একদিন রিপোর্ট করার ব্যবস্থা করা উচিত।

রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা বলেছিলেন, “নমুনা দেওয়ার পরে এটি অনেক দিন সময় নেয়। এটি মারাত্মক ভয়ের বিষয় কারণ আমরা বারবার বলেছি যে এখানে যদি পৃথক পিসিআর মেশিন স্থাপন না করা হয় তবে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে মহামারী.” এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ১০ মিলিয়ন বাস সিটি কর্পোরেশন অঞ্চলে মাত্র ৫০ জনের জন্য করোনার পরীক্ষা কোটা নির্ধারণ করা অযৌক্তিক এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের কাছে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আরও একটি পিসিআর মেশিন স্থাপনের দাবি জানান।

এদিকে, রংপুর করোনা প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক ফখরুল আনাম বেঞ্জু বলেছেন, করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গটি গত বছরের চেয়ে এবার রংপুরে আঘাত হানে। তবে নমুনা পরীক্ষা পরিচালনার ক্ষেত্রে ত্রুটি রয়েছে। ফলস্বরূপ, আরও একটি পিসিআর মেশিন ইনস্টল করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

Leave a Comment