রংপুরের সোয়া কোটি মানুষের জন্য আইসিইউ বেড মাত্র ২৬টি!

রংপুরসহ বিভাগের ৮ টি জেলায় করোনার সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে পৌঁছেছে। প্রতিদিন গড়ে ৬৫ জন লোক করোনায় আক্রান্ত হন। আক্রান্তদের অনেকে হাসপাতালে ছুটে আসছেন। তবে রোগীরা সেবার ব্যাপারে অসন্তষ্ট। অনেক রোগীর স্বজন বিশেষত আইসিইউ বেড সংকট নিয়ে কথা বলছেন। সরেজমিনে দেখা গেছে, রংপুর বিভাগের ৮ টি জেলায় কেবল ২৬ টি আইসিইউ বেড রয়েছে, রংপুরের করোনার বিশেষায়িত হাসপাতাল এবং দিনাজপুরের মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল রয়েছে। রোগীদের আত্মীয়স্বজনসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন যে এক বিভাগে করোনায় ভুগছে মারা যাওয়া রোগীদের চিকিৎসা সেবার জন্য এই সংখ্যা অপর্যাপ্ত।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গেছে, গত পাঁচ দিনে করোনায় মারা গিয়েছেন ১০ জন। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার একদিনে মারা গেছেন ৪ জন। তাদের মধ্যে তিনজন রংপুর কোভিড হাসপাতালে এবং একজন গাইবান্ধায়।

আরও উদ্বেগের বিষয় হ’ল স্বাস্থ্য বিভাগসহ প্রশাসন করোনায় ক্ষতিগ্রস্থদের আলাদা করতে কোনও পদক্ষেপ নিচ্ছে না। ফলস্বরূপ, সংক্রমণের হার বাড়ছে। অন্যদিকে, করোনা পরীক্ষার জন্য রংপুর বিভাগের ৮ টি জেলার কোথাও বুথ খুলে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে না। ফলে মানুষকে নমুনা দেওয়ার জন্য বিভিন্ন জায়গায় ছুটে যেতে হয়। রিপোর্টগুলি দেরিতেও পাওয়া যায়। ফলস্বরূপ, করোনার কী হয়েছিল তা জেনে রোগীর পুরো পরিবার সংক্রামিত হচ্ছে।

পুরো বিভাগের জন্য রংপুর এবং দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কেবল দুটি পিসিআর মেশিন রয়েছে। এই দুটি মেশিন দিয়ে প্রতিদিন সংগ্রহ করা নমুনাগুলি পরীক্ষা করা সম্ভব নয়। একটি দায়িত্বশীল সূত্র মতে, গত শনিবার রংপুর মেডিকেল কলেজে ১৪০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা সম্ভব হয়নি।

রংপুর মেডিকেল কলেজ বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ও সিভিল সার্জন অফিসের মতে, গত বছরের মার্চ মাসে রংপুর বিভাগসহ দেশে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পরে এবার করোনার সংক্রমণের সংখ্যা অনেক বেশি। শনিবার অবধি রংপুর বিভাগের ৮ টি জেলায় করোনায় আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭,২২৮ জন।

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালকের কার্যালয় অনুযায়ী, রংপুরে ৪,৪১৬ জন, পঞ্চগড়ের ৮২০ জন, নীলফামারী জেলায় ১,৪৮০, কুড়িগ্রামে ১,০৯২, ঠাকুরগাঁওয়ে ১,৬০৮জন, লালমনিরহাটে ১০১৭ আক্রান্ত হয়েছিল। দিনাজপুরে ৫,১৬৫ এবং গাইবান্ধায় ১,৬৩০ জন। এর মধ্যে ১৫,৯৯৮ জন পুনরুদ্ধার হয়েছে। বিভাগে, করোনায় ৩২৮ জন মারা গিয়েছিলেন। হোম কোয়ারান্টিনে ৮৫৪ জন লোক আছেন যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

স্বাস্থ্য বিভাগের মতে, করোনার নমুনা সংগ্রহ করতে বিলম্বের কারণে, ইতিবাচক প্রতিবেদন পাওয়ার আগে করোনার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা করোনায় আক্রান্ত হচ্ছিল। গত ৭ দিনে রংপুর বিভাগে ৪৬০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

এদিকে, রংপুর করোনা প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক খায়রপুর আনাম বেনজু বলেছিলেন যে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরে যারা ঘরে বসে ছিলেন তাদের বাড়ি ও আশপাশের অঞ্চলে লাল পতাকা নিক্ষেপ করে লক-ডাউনটি ঠিক একইভাবে ঘোষণা করা হয়েছিল। ।

করোনার কারণে মারা যাওয়া রোগীর স্বজনরা অভিযোগ করেছেন যে আইসিইউ পাওয়া যাচ্ছে না। রংপুর ডেডিকেটেড করোনার বিচ্ছিন্নতা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নুরনবী জানান, এখানে আইসিইউর ১০ টি বেড রয়েছে এবং শনিবার পর্যন্ত সেখানে ৯ জন রোগীর চিকিৎসা চলছে। এ ছাড়া ৪৭ জন রোগী কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

দিনাজপুরের করোনার ডেডিকেটেড হাসপাতালে ১৬ আইসিইউ বেড রয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, রংপুর বিভাগে ২৬ টি আইসিইউ বেড রয়েছে যার সাথে মানসম্পন্ন ও প্রয়োজনীয় জরুরি পরিষেবা সরবরাহ করা সম্ভব নয়, স্বাস্থ্য বিভাগের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। আশা করা যায় আরও কিছু আইসিইউ বেড পাওয়া যাবে।

এদিকে, রংপুর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ও পিসিআর প্রধান অধ্যাপক ডা. নুরনবী লাইজু জানান, রংপুর ও দিনাজপুর মেডিকেল কলেজের দুটি পিসিআর মেশিন রয়েছে। প্রত্যেকের সর্বোচ্চ দৈনিক ক্ষমতা ১৮৮ টি নমুনা পরীক্ষা। এর সাথে প্রতিটি পিসিআর মেশিন রংপুর বিভাগের ৪ টি জেলা পরিচালনা করছে। যাইহোক, গত কয়েকদিন ধরে নমুনা আসছে, তবে পিসিআর ১৮৮ টিরও বেশি নমুনা পরীক্ষা করার ক্ষমতা রাখে না। তারপরেও, জরুরি ভিত্তিতে নমুনা পরীক্ষা চলছে।

রংপুর সিভিল সার্জন ডা. হীরম্ব কুমারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, রংপুর সিটিতে করোনার নমুনা সংগ্রহ করা রংপুর সিটি কর্পোরেশনের দায়িত্ব। তারা নমুনা সংগ্রহ করছেন। আমরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলি থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পিসিআর ল্যাবে প্রেরণ করছি।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছিলেন যে গত কয়েকদিনে করোনার সংক্রমণের হার বেড়েছে। প্রত্যেককে সামাজিক স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে মুখোশ ব্যবহার করতে হবে।

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক মো. আহাদ আলী জানান, সম্প্রতি করোনার মামলার সংখ্যা অনেক বেড়েছে। অনেক আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে আসছেন। আইসিইউ বেড সংকট তৈরি হচ্ছে। আইসিইউ বেডের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য আমরা উচ্চতর কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

তবে রংপুর করোনা প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক খায়রুল আনাম বেনজু অভিযোগ করেছেন যে, নমুনা পরীক্ষার জন্য আমরা কোনও বুথ দেখি না। যথাযথভাবে করোনা পরিক্ষা করা গেলে আক্রান্তের সংখ্যা কয়েকগুন বেড়ে যাবে। তিনি আক্রন্তের বাসা লকডাউন করে দেওয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানান।

Leave a Comment