যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য, অভিবাসনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশিদের প্রথম পছন্দ উপসাগরীয় দেশগুলো। দ্বিতীয় পছন্দ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া। স্বাভাবিকভাবেই এসব এলাকায় বসবাসকারী বাঙালির সংখ্যা বেশি। তবে মাইগ্রেশনের হার নির্ভর করে কে মাইগ্রেট করছে,কি আর্থ-সামাজিক পটভূমি থেকে এবং শিক্ষাগত যোগ্যতা। বেশিরভাগ মানুষ শ্রমিক হিসেবে মধ্যপ্রাচ্যে যায়।

তাদের কাজও ঝুঁকিপূর্ণ এবং কম বেতনের। যুক্তরাজ্যে যাওয়া বেশিরভাগ মানুষই দেশের সিলেট অঞ্চলের। পিছিয়ে যাওয়ার ইতিহাস বেশ দীর্ঘ। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পরিস্থিতি ভিন্ন। সমগ্র বিশ্বের কেন্দ্র হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে, এখানে যারা আসে তারা বেশ বৈচিত্র্যময় এবং বহুমুখী। অভিবাসীদের মতো দেশ এক নয়; একইভাবে, বাংলাদেশিদের ক্ষেত্রে, না তাদের জেলা, না তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা।

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য।আমেরিকায় প্রথম বাঙালি অভিবাসন

আমেরিকায় প্রথম বাঙালি অভিবাসন সম্পর্কে জানা যায় ১৭৬৩ সালের দিকে। এডওয়ার্ড রায়ান এই সময়ে চট্টগ্রাম ও আসাম থেকে ক্রীতদাসদের উত্তর আমেরিকায় নিয়ে যান। বিশেষ করে জর্জিয়া এবং পেনসিলভেনিয়ায়। পরে তারা অন্যান্য অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য, অভিবাসনের দ্বিতীয় ঘটনাটি ১৭৮০সালে। আমেরিকা তখন চীনে পশম রপ্তানি করে। ফেরার পথে তিনি কলকাতা থেকে পাট ও কার্পাস নিয়ে যান। চট্টগ্রাম, নোয়াখালী ও সিলেটের কিছু লোক নিউইয়র্ক ও বোস্টনে জাহাজ শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। তাদের কেউ কেউ সেখানেই থেকে যান। নতুন মাটিতে জীবিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। ঘরে ঘরে আইসক্রিম বা অন্যান্য পণ্য বিক্রি করাই ছিল তাদের জীবিকা।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরপরই ১৯৪৭সালে বাংলা ভাগ হয়। ক্রমবর্ধমান রাজনৈতিক উত্তেজনা ও অর্থনৈতিক সংকটের কারণে বিশেষ করে শিপিং শ্রেণী নতুন সুযোগের সন্ধানে বেরিয়ে পড়ে। এটা বলাটা বেশি যৌক্তিক মনে হয় যে বেরোয় না বলেই বেরিয়ে আসতে বাধ্য হয়। দুই চোখে দারিদ্র্য থেকে মুক্তি ও নিরাপদ জীবনের স্বপ্ন নিয়ে তিনি পাড়ি জমান যুক্তরাষ্ট্রে। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য, তাদের উদ্দেশ্য ছিল সেই আনকোরা জায়গায় নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করা। বলা ভালো যে আমেরিকার ইমিগ্রেশন অ্যাক্ট অফ ১৯২১ একটি সুযোগ দেয়। যদি একজন অ-আমেরিকান একজন আমেরিকানকে বিয়ে করেন, তাহলে তিনি আইনত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসের অনুমতি পান।

অনেক অ-আমেরিকান এই সুযোগের সদ্ব্যবহার করেছিল। বাংলাদেশীরাও নিজেদের মতো করে ব্যবহার করেছে। ২০১১সালে, লেখক ও গবেষক জহির আহমেদ তার বইয়ে লং বিচে এক চাচার গল্প নিয়ে আলোচনা করেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য সেই ‘চাচা’ ষাট বা সত্তরের দশকে আমেরিকায় গিয়েছিলেন। একজন কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান মহিলাকে বিয়ে করে আমেরিকান নাগরিক হয়েছিলেন।

এরপর তারা বাংলাদেশ থেকে দেড় শতাধিক আত্মীয়-স্বজন ও পরিচিতজনকে আমেরিকায় নিয়ে যায়। ২০০৯ সালে নিজ বাড়ি নোয়াখালী যাওয়ার পথে তিনি মারা যান। দেশের সাথে তার সম্পর্কও খুবই অদ্ভুত। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ী হন এবং সেখানে তার কর্মজীবন অতিবাহিত করেন। তবে নিজের দেশ, মাটি, শেকড় ও পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ ছিন্ন করেননি। এমনকি গ্রামে মাদ্রাসাও গড়ে উঠেছে। চাচাকে আজকের ভাষায় বহুজাতিক হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে।

পাকিস্তানের প্রথম দিকে অর্থাৎ ৫০এর দশকে অভিবাসনের একটি নতুন ধারা শুরু হয়। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য স্বাধীনতার আগে ১৯৬০ সালের রাজনৈতিক উত্থানের সময় নিরাপত্তার আশায় বিপুল সংখ্যক পূর্ব পাকিস্তানি যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় নিয়েছিল। এই অভিবাসীদের মধ্যে সমাজের উচ্চ শ্রেণী ছিল বেশি; বিশেষ করে বাঙালি ছাত্র, চিকিৎসক ও বিত্তবানরা।

বাংলাদেশ স্বাধীনতার পর।যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য

১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করে। মানচিত্র পরিবর্তনের সাথে সাথে অভিবাসনের ধরণও পরিবর্তন হয়। বাংলাদেশ থেকে আমেরিকায় অভিবাসন আনুষ্ঠানিকভাবে নিষ্পত্তি হয়। একটি নতুন ধারা শুরু হয়।১৯৭৩ সালে অভিবাসীর সংখ্যা ছিল মাত্র ১৫৪ জন।

১৯৭৪ সালে তা সামান্য কমে ১৪৭জনে নেমে আসে; কিন্তু ১৯৭৫সালে এটি ৪০৪জনে পরিণত হয়েছিল, অর্থাৎ প্রায় তিন গুণ। মনে রাখতে হবে, স্বাধীনতার পরও দীর্ঘদিন দেশে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা বিরাজ করছে। অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তাও ঘনীভূত হচ্ছিল। ফলস্বরূপ, তরুণ সম্প্রদায় ধীরে ধীরে আমেরিকায় তাদের ভবিষ্যত পরিকল্পনা করতে উত্সাহী হয়ে ওঠে। প্রস্থানকারী শ্রেণী নিউ ইয়র্ক, নিউ জার্সি, ওয়াশিংটন এবং ক্যালিফোর্নিয়ার মতো এলাকায় নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করে। অভিবাসনের এই প্রবণতা এখনও বন্ধ হয়নি।

অভিবাসনের পথ মোটামুটিভাবে নির্ধারিত হয়েছিল আশির দশকে। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য চালচিত্রও বদলে যায়। অভিবাসীদের অনেকেই পেশাদার, ডাক্তার, প্রকৌশলী, স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ছাত্র। এটি বাংলাদেশের জন্যও একটি অশুভ লক্ষণ। কারণ পেশাদারদের জন্য আমেরিকা যাওয়া বাংলাদেশের জন্য মেধা পাচারের আরেকটি অর্থ। কিন্তু সেই দায়িত্ব বাংলাদেশের নীতিনির্ধারকদের নিতে হবে।

১৯৬৫ সালের আইন

১৯৬৫ সালের আইনের কারণে, অনেক বাংলাদেশি তাদের আত্মীয়দের নিউইয়র্ক, লস অ্যাঞ্জেলেস এবং অন্যান্য রাজ্যে অভিবাসী হিসেবে নিয়ে যায়। জায়গাগুলো এখন অনেকটা বাংলাদেশি ছিটমহলের মতো। বাংলাদেশি জনসংখ্যা বিশাল আমেরিকা বিন্দু বিন্দু। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য সত্তর ও আশির দশকে এই অঞ্চলগুলো অর্থনৈতিকভাবে উন্নত ছিল না। আমেরিকায় পাঁচ বছর থাকার পরই নাগরিকত্ব দাবি করা যায়; এই নীতি বাংলাদেশীদেরও অনুপ্রাণিত করেছে। গ্রিনকার্ড পাওয়ার সাথে সাথে তারা তাদের পরিচিত লোকদের সেখানে পেতে ছুটতে শুরু করে।

পিতামাতার জন্য ১৮ মাস এবং ভাইবোনদের জন্য ১৮-২০ মাস সময় লাগে৷ ধরা যাক একজন ব্যক্তি নাগরিকত্ব পেয়েছেন, তিনি এখন তার স্ত্রীর নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করেছেন। স্ত্রী পেলে তিনি তার পরিবারের কারো নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করবেন। এভাবেই ধীরে ধীরে বাড়ছে অভিবাসন। ২০১০ সালে,৮২৭ অভিবাসী যারা চাকরির জন্য আমেরিকায় গিয়েছিল তাদের স্থায়ী বাসিন্দা হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছিল। একই বছরে,৪৯৩৫ জন আমেরিকান নাগরিক আত্মীয় হিসাবে,৬৬০০ জন পারিবারিক সূত্রে, ২৮০০জন DV হিসাবে এবং ১৭১ জন শরণার্থী বা আশ্রয়প্রার্থী হিসাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলেন। ফলস্বরূপ, দেখা যাচ্ছে যে পারিবারিক বন্ধন আমেরিকায় অভিবাসনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় হিসাবে কাজ করে।

১৯৮০ সালের গোড়ার দিকে

১৯৮০ সালের গোড়ার দিকে, অভিবাসীরা ছিল মূলত ১০-৩৯বছর বয়সী যুবক। ধীরে ধীরে তারা তাদের স্ত্রী-সন্তানদের সেখানে নিয়ে যেতে থাকে। ক্যালিফোর্নিয়া, নিউ জার্সি, নিউইয়র্ক, আটলান্টা, টেক্সাস ও ওয়াশিংটন বাঙালির পদচারণায় সোচ্চার হয়ে ওঠে। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য ধীরে ধীরে মসজিদ ও হালাল মাংসের দোকান পাওয়া যায়। আমেরিকার প্রায় প্রতিটি রাজ্যেই এখন কমবেশি বাঙালি জনসংখ্যা রয়েছে।

১৯৮০-এর দশক থেকে এই পারিবারিক পুনর্মিলন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অনেক বাংলাদেশি যুক্তরাষ্ট্রে গেছেন। উদাহরণ হিসেবে একটি সত্য তুলে ধরা যেতে পারে। ১৯৯৬ সালে, ৭৭১ বাংলাদেশি বৃত্তিমূলক সুবিধাগুলিতে প্রবেশ করেছিল। অন্যদিকে পরিবার পুনর্মিলন প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে গেছেন ৮ হাজার ২২১ জন। ২০০৪ সালের একটি জরিপে দেখা গেছে যে ১৯৭১ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত ৯৩০০০ বাংলাদেশি যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছে; যারা আসলে জন্মগতভাবে মার্কিন নাগরিক নন।

ডাইভারসিটি ভিসা।যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য

১৯৯০সালে, বাংলাদেশিদের জন্য ডাইভারসিটি ভিসা (ডিভি) সুযোগ শুরু হয়। অভিবাসন নীতি অনুযায়ী, প্রার্থীকে অবশ্যই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকা যেকোনো নাগরিকের নাম উল্লেখ করতে হবে।যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য  ফলস্বরূপ, প্রথমত, তাদের জন্য তাদের নিজ দেশের লোক খুঁজে বের করা বাধ্যতামূলক হয়ে ওঠে। দ্বিতীয়ত, অভিবাসীরা যারা সেখানে থাকে তাদের নিজস্ব বন্ধন গড়ে ওঠে। এখন নিউইয়র্ক এবং ক্যালিফোর্নিয়ার মতো বাণিজ্যিক এলাকায় একটি ছোট বাংলাদেশি সম্প্রদায় গড়ে উঠেছে। বেশিরভাগ গ্যাস স্টেশন, মুদি দোকান বা ছোট ব্যবসায় কাজ করে।

বর্তমানে, আমেরিকায় বাংলাদেশিরা দ্রুততম বর্ধনশীল এশিয়ান জনসংখ্যা। যেখানে ভারতীয়দের বৃদ্ধি ৮৫ শতাংশ, পাকিস্তানিদের ১০০ শতাংশ; সেখানে বাংলাদেশি বেড়েছে ১৫৭ শতাংশ। আদমশুমারি অনুসারে, ২০০০ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে আমেরিকায় বাংলাদেশি জনসংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে।

লিটল বাংলাদেশ

লেখক জহির আহমেদ তার ‘লিটল বাংলাদেশ: ভয়েসেস ফ্রম আমেরিকা’ বইতে বাংলাদেশিদের আমেরিকায় অভিবাসন নিয়ে আলোচনা করেছেন একজন চাচা সম্পর্কে, যিনি সত্তরের দশকে আমেরিকায় গিয়ে লং বিচে বসতি স্থাপন করেছিলেন। তার মাধ্যমে ধীরে ধীরে সেখানে বাংলাদেশি কমিউনিটি গড়ে ওঠে। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য, এখন সেখানে দেড় শতাধিক বাংলাদেশি পরিবার রয়েছে। শুক্রবার জুমার নামাজ একসঙ্গে অনুষ্ঠিত হয়। প্রধানত নোয়াখালী থেকে তবে চট্টগ্রামসহ অন্যান্য অঞ্চলের লোকজনও রয়েছে। এই বাংলাদেশিরা সেখানকার সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অবকাঠামোতে গুরুত্বপূর্ণ নিয়ামক হয়ে উঠছে।

লস অ্যাঞ্জেলেস।যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য

লস অ্যাঞ্জেলেসের বাংলাদেশিরা এক্ষেত্রে কয়েক ধাপ এগিয়ে। তারা সেখানে গড়ে তুলেছে ছোট্ট বাংলাদেশ। এটি মূল স্রোতে মিশে না গিয়ে তার স্বতন্ত্রতা বজায় রেখেছে। আমেরিকা যেখানে অভিবাসনের দেশ এবং চাকরি পাওয়ার জায়গা, সেখানে ছোট্ট বাংলাদেশ হল স্বদেশের ঘ্রাণ এবং মনের শান্তি।

লস অ্যাঞ্জেলেসে বসবাসরত বাংলাদেশি জনসংখ্যার একটি বড় অংশ ডিভির মাধ্যমে গেছে। কেউ চাকরি করে আবার কেউ পারিবারিক সংযোগে। ভাষার দক্ষতার অভাবের কারণে মুদি দোকানে একটি বড় সংখ্যক কাজ করে। কেউ কেউ আবার স্বাধীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করেছেন। অন্যদিকে, সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়ায় বসবাসকারী অধিকাংশ বাংলাদেশির শিকড় নোয়াখালীতে। এটা আত্মীয়তার উপর ভিত্তি করে। গবেষক জহির আহমেদ দেড়শ জনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এর মধ্যে নোয়াখালীর ৭৬ জন, খুলনার ১৪ জন। জামালপুরের ১০ জন এবং সিলেটের ৩০ জন। বাকিরা চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, ফরিদপুর, কুমিল্লা ও বরিশাল অঞ্চলের।

লস এঞ্জেলেসে বসবাসকারী বেশিরভাগ মানুষ ভাড়া বাড়িতে থাকেন। লা ফায়েট, অক্সিডেন্টাল, হুভার স্ট্রিট, কমনওয়েলথ, ভার্জিল, ওয়েস্টমন্ট, নিউ হ্যাম্পশায়ার এবং শহরের কেন্দ্রস্থলে বিশেষ করে সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য রয়েছে। এর বেশির ভাগই বিভিন্ন দেশের অভিবাসীদের মাধ্যমে ভাড়া করা বাসস্থানে।যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য,  বাংলাদেশিদের মধ্যে মিথস্ক্রিয়ায় মুদি দোকান একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যাইহোক, দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ায় তাদের শক্ত শিকড় রয়েছে। পুরুষরা বিভিন্ন পেশার সাথে জড়িত থাকলেও সাধারণত নারীরা ঘর পরিচালনার দায়িত্বে থাকে।

তার পরও, অভিবাসীরা এই জায়গাগুলির সাথে এক ধরণের গভীর আত্মীয়তা গড়ে তুলেছে। তারা সেখানকার সমাজে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য উদাহরণস্বরূপ, ন্যাশভিলে ৭০টি পরিবার রয়েছে। তবে তাদের বেশিরভাগই ডাক্তার, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বা উচ্চ পর্যায়ের কর্মচারী।

সেই হিসেবে, দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার তুলনায় লস অ্যাঞ্জেলেসে বাংলাদেশি অভিবাসীদের মধ্যে বৈচিত্র্য বেশি। তারা আমেরিকায় বহু বছর কাটিয়েছেন। এখন তারা নিজেদের সেই সমাজের অংশ মনে করে।

পরিশেষে

স্বপ্নের তাড়নায় আমেরিকায় যাওয়ার বাঙ্গালীর ইতিহাস ১৯৪৭ সাল এর পূর্বে। যদিও দেশভাগের আগ পর্যন্ত বাংলাদেশি অভিবাসীদের জন্য কোনো মেয়াদ ছিল না। ১৯৪৭ সালের সময়ে,বাঙ্গালীরা অভিবাসীরা ভারতীয় হিসাবে পরিচিত ছিল; পরে ইস্ট-পাকিস্তান খেতাব পান। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী বৈচিত্র্য ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার পরই জোটে বাংলাদেশি খেতাবটা । ১৯৪৭ সাল থেকে আজ পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে বাঙ্গালীরা আমেরীকায় পাড়ি জমায়। আর তখন থেকেই আমেরীকায় বাঙ্গালী বৈচিত্রী অনেক বিচিত্রময়।

Leave a Comment

betvisa