মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়

মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়? মেছতা একটি প্রচলিত ত্বকের সমস্যা। মেছতা হলে ত্বকে হালকা বাদামি রঙের অথবা কাল দাগ পড়ে। মেছতা মুখ-কপালসহ বুকেও হতে পারে। মেছতা হলো মুখের উপরিভাগে নাকের দুপাশে কালো দাগ। মেছতাকে মেলাজমা অথবা কোলাজমা বলা হয় ।মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়,  যা আমাদের স্বাভাবিক সৌন্দর্য নষ্ট করে এবং মেছতা দূর করার উপায় নিয়ে অনেকের চিন্তা করতে করতে কপালে ভাজ পড়ে যায়। অনেকে মেছতা ও জন্মদাগ একই মনে করেন যা সম্পূর্ণ ভ্রান্ত ধারণা মেছতা ও জন্ম দাগের মধ্যে মেছতার কোন সম্পর্ক নেই।

মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়

মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়, মেছতার কারণ নিয়ে সাধারণ মানুষের মনে নানা ধরনের ভুল ধারণা রয়েছে। বিশেষ করে অনেকেই মনে করেন মেছতা বংশগত। বিশেষজ্ঞদের মতে,মেছতা সাধারণত বংশগত হয় না। তবে মায়ের ত্বকের কিছু জেনেটিক বৈশিষ্ট্য সন্তানের মধ্যে দেখা দিতে পারে। এর বেশ কিছু কারণ রয়েছে। সাধারণত,থাইরয়েড,অতিরিক্ত সূর্যের এক্সপোজার,কাজের চাপ, অতিরিক্ত চিন্তাভাবনা,ঘুমের অভাব সহ বিভিন্ন কারণে আমাদের ত্বক নিস্তেজ হয়ে মেছতার সৃষ্টি হয়। তাই এগুলো এড়িয়ে চলা উচিত। মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়, কাজের চাপ বেশি হলে ধীরে ধীরে করুন, নিয়মিত ৮ ঘণ্টা ঘুমান, থাইরয়েডের প্রতিকার মেনে চলুন, অতিরিক্ত রোদে যেতে হলে ছাতা ব্যবহার করুন। তাছাড়া কিছু কিছু কারণে মেছতা হয়ে থাকে যা আলোচনা করা হলো-

জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল সেবন

জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল সেবন মহিলাদের মেছতার অন্যতম কারণ। অনেক বেশি জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি গ্রহণ করা মহিলাদের ত্বককে প্রভাবিত করতে পারে এবং মুখে কালো দাগ সৃষ্টি করতে পারে।

অন্তঃসত্ত্বা ও সন্তানপ্রসবের পর

অন্তঃসত্ত্বা ও সন্তানপ্রসবের পর, মহিলাদের ক্ষেত্রে, হরমোনের প্রভাবের কারণে গর্ভাবস্থার পরে ত্বকের পৃষ্ঠে এই দাগ তৈরি হতে পারে। প্রসবের পর মহিলাদের মধ্যে এই সমস্যা দেখা যায়।

সূর্যের আলোর প্রভাব

সূর্যের আলোর প্রভাবে নারী-পুরুষ উভয়েরই এই সমস্যা হয়। আমাদের সবার ত্বকের ধরন আলাদা এবং সূর্যের আলোতে আমাদের আলাদা আলাদা সহনশীলতা রয়েছে। যারা অতিরিক্ত রোদে কাজ করেন তাদের ক্ষেত্রে সূর্যের আলোতে নাকের পাশে ও গালে কালচে দাগ পড়ে।

মেছতার প্রকারভেদ

মেছতার প্রকারভেদ, জেনেটিক্সের কারণে বেশিরভাগ লোকের ত্বকে মেছতার দাগ পড়ে। পরিবারের কারো কাছে থাকলে তা পরবর্তী প্রজন্মের কাছে চলে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে। অন্যদিকে নারীদের ক্ষেত্রেও দীর্ঘদিন জন্মনিয়ন্ত্রণ ওষুধ সেবনের কারণে মেছতা হয়। এছাড়াও, গর্ভাবস্থায়, বেশিরভাগ মহিলাই মেছতার মুখোমুখি হন।

এমনকি মেনোপজের সময় হরমোন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি গ্রহণকারী মহিলার মেছতা হতে পারে। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল সানস্ক্রিন ছাড়াই সূর্যের আলোর সংস্পর্শে আসা।

মেছতা সাধরণত তিন ধরনের হয়ে থাকে,

এপিডার্মাল হাইপার প্রিভেনশন

এপিডার্মাল হাইপার প্রিভেনশন ত্বকের উপরিভাগে সীমাবদ্ধ থাকে। এর প্রভাব খুব গভীরে যায় না। এই ধরনের ক্ষেত্রে, এটি দেখা যায় যে ত্বকের উপরের অংশে কালো দাগ রয়েছে। এই ধরনের মেছতা সহজেই অপসারণ করা যেতে পারে।

ডার্মাল হাইপার প্রিভেনশন

ডার্মাল হাইপার প্রিভেনশন তুলনামূলক জটিল। কারণ এর ব্যপ্তি ত্বকের গভীর পর্যন্ত পৌছে থাকে। এর থেকে পরিত্রাণ পাওয়া কষ্টকর এবং ব্যয়বহুল।

মিশ্রিত মেছতা

মিশ্রিত মেছতা বলতে উপরের দুই ধরনের মিশ্রনকেই বোঝায়। অর্থাৎ ত্বকের কালোদাগ উপরের সাথে সাথে গভীর পর্যন্ত বিস্তৃত হয়। এই দাগ দূর করা খুবই কঠিন।

মেছতা নির্ণয়।মেছতা দূর করার উপায়

মেছতা নির্ণয়।মেছতা দূর করার উপায়, মেছতা সাধারণত খালি চোখেই নির্ণয় করা যায়। মেছতা হল মুখের ত্বকের উপরিভাগে একটি কালো দাগ। যাইহোক, আদর্শ চিকিত্সার জন্য মেছতার ধরন নির্ধারণ করা গুরুত্বপূর্ণ। কারণ মেছতার ধরন নির্ধারণ করে সঠিক চিকিৎসা না নিলে এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব নয়। মেছতা রোগ নির্ণয়ের জন্য চিকিৎসকরা বিশেষ ধরনের হালকা পরীক্ষা দেন। যা Wood’s Lamp নামে পরিচিত। এটি ৩৪০-৪০০ তরঙ্গদৈর্ঘ্যে পরীক্ষা করা হয়। এই পরীক্ষার মাধ্যমে,মেছতা এপিডার্মাল হাইপার-প্রিভেনশন, সুপারফিশিয়াল বা ডার্মাল হাইপার-প্রিভেনশন নির্ণয় করে। ধরন নির্ণয়ের পর,ডাক্তাররা মেছতার কোষ অপসারণের উপায় বা প্রয়োজনীয় চিকিত্সার পরামর্শ দেন।

মেছতা দূর করার উপায়

মেছতা দূর করার উপায়,মেছতা যদিও খুব প্রতিরোধযোগ্য নয়। কারণ জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি গ্রহণ নারীদের অন্যতম কারণ। এছাড়া প্রতিনিয়ত সূর্যের আলোতে বের হতে হয়। কিন্তু মেছতা চিকিৎসার সময় কিছু নিয়ম মেনে চললে মেছতা অনেকাংশে কমানো যায়। মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়, চিকিত্সার সময় জন্মনিয়ন্ত্রণ বা গর্ভনিরোধক এবং বিভিন্ন হরমোন থেরাপি বন্ধ করতে হবে। দিনের বেলা রোদে বের হওয়ার আগে সানক্রিম ব্যবহার করা উচিত। মেছতা দূর করার উপায়, ছাতা,হিজাব বা স্কার্ফের সাথে ব্যবহার করা যেতে পারে। মেক আপ বা বিভিন্ন ক্রিমের অতিরিক্ত ব্যবহার কমাতে হবে। কারণ এটি ত্বকের কোষের ক্ষতি করে। এগুলো অনুসরণ করলেই মেছতার সুফল পাওয়া যায়।

মেছতা দূর করার উপায় বা পুরুষের মেছতা দূর করার উপায় সম্পর্কে কিছু টিপস উল্লেখ করা হলো-

অ্যালোভেরা।মেয়েদের মেছতা দূর করার উপায়

অ্যালোভেরার গুণাগুণ অনেক। বলতে গেলে সব গুণে ভরপুর এই অ্যালোভেরা। মেছতা দূর করতেও অ্যালোভেরার অনেক ভূমিকা রয়েছে। এক্ষেত্রে অ্যালোভেরার সঙ্গে কিছু লেবুর রস ও জল মিশিয়ে নিন। মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়, আপনার মুখে মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন এবং ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। একই মিশ্রণ তৈরি করে কয়েকদিন নিয়মিত মুখে লাগান। দেখবেন আপনার মুখ থেকে ধীরে ধীরে মেছতা চলে যাচ্ছে।

লেবু।মেছতাকে বাই বাই

লেবু তে রয়েছে উচ্চ মাত্রার সাইট্রিক অ্যাসিড। এটি ত্বক থেকে অতিরিক্ত তেল শুষে নেয় এবং ত্বককে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে। লেবু আপনার মুখের শুষ্কতা দূর করার একটি কার্যকরী উপায়। তুলোর সাহায্যে নিয়মিত ১৫-২০মিনিটের জন্য আপনার মুখে লেবুর রস লাগান। আপনি যদি প্রায় ১সপ্তাহ ধরে নিয়মগুলি অনুসরণ করেন তবে আপনি আপনার চেহারার পরিবর্তন লক্ষ্য করতে সক্ষম হবেন।

মুলতানি মাটি।ছেলেদের মেছতা দূর করার উপায়

মুলতানি মাটি, আপনারা অনেকেই হয়তো ভাবছেন মাটি দিয়ে আবার কি দাগ হবে! তবে মুলতানি মাটি শুধু মাটিই নয় একটি মহৌষধ। এটি আমাদের ত্বকের মৃত কোষ পরিষ্কার করে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়। এই মুলতানি মাটি আপনি আপনার বাড়ির কাছের যেকোনো সুপারশপে পেতে পারেন।

চাপাতা।পুরুষের মেছতা ও কালো দাগ দূর করার উপায়

চাপাতা, সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর চা হয়ে যা নিত্যদিনের সঙ্গী। চা ছাড়া আমাদের দিন শুরু হয় না। চা পান করার সময় টি ব্যাগে ফেলে রাখা চাপাতা ফেলে দেবেন না। ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করুন।পুরুষের মেছতা ও কালো দাগ দূর করার উপায় , ঠাণ্ডা হয়ে গেলে,আপনার ত্বকে লাগান এবং ১৫-২০মিনিট অপেক্ষা করুন। কয়েকদিন ব্যবহার করলেই মুখের উজ্জ্বলতা দেখতে পাবেন।

স্ট্রবেরি

স্ট্রবেরি আমরা প্রায় সবাই খাই,যেগুলো লাল রঙের বীজ সমৃদ্ধ। তবে এখন থেকে কিছু অংশ সংরক্ষণ করুন। কারণ স্ট্রবেরিতে রয়েছে ভিটামিন-সি, স্যালিসিলিক অ্যাসিড, হাইড্রক্সি অ্যাসিড, ওলিক অ্যাসিড। এটি ত্বকের মৃত কোষ এবং ত্বকের ব্রেকআউট দূর করে।

টমেটো

টমেটো পাওয়া যাবে প্রতিটি সবজির দোকানে। সবজির স্বাদ বাড়ানোর জন্য আমরা এটি কিনে সবজি দিয়ে রান্না করি। এই টমেটো এখন থেকে আপনার মুখের শুষ্কতা দূর করবে। টমেটোতে রয়েছে ভিটামিন-সি। মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায় , এটি আমাদের ত্বকের কালো দাগ দূর করে। এই ক্ষেত্রে,টমেটোর টুকরো নিন এবং ১০-১৫মিনিটের জন্য আপনার মুখে ম্যাসাজ করুন। তারপর মুখ ধুয়ে ফেলুন।

চন্দন গুড়া

লেবুর রস এবং গ্লিসারিনের সাথে কিছু চন্দন গুঁড়ো মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। ১৫-২০ মিনিটের জন্য নিয়মিত মুখে মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন। দেখবেন দাগ উঠে যাবে।

টক দই।মেছতা দূর করার টোটকা

টকদই ভুনা রান্নার প্রধান উপাদান। এই টক আপনার মেছতা দূর করবে। কিছু টক দই এবং মধু মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন এবং ১০মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

অয়েল

অয়েল, মেছতা দূর করতে অলিভ ওয়েল,আমন্ড ওয়েল,ট্রি ট্রি ওয়েল,আরগান ওয়েলও অনেক বড় ভূমিকা রাখে। ২-৩ ফোটা ওয়েল তুলায় নিয়ে মেছতার জায়গায় ৫ মিনিট ম্যাসাজ করে ঘন্টাখানিক রেখে দিন। তারপর মুখ ধুয়ে ফেলুন।

এই টিপস গুলো অনুসরণ করলে আশা করি ভালো ফল পাবেন এবং আপনার মুখে মেছতা দূর হয়ে যাবে। তবে ধৈর্য্য সহকারে টিপসগুলো অনুসরণ করতে হবে। কথায় আছে না! ধৈর্য্যের ফল মিঠা হয়।

কলার খোসা।মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায়

কলার খোসা, আমরা অনেকেই কলা খেতে ভালোবাসি। এখন থেকে এই কলার খোসা আপনার মেছতা থেকে মুক্তি দিবে। কলাতে থাকে গ্লুকোনোল্যাকটোন। এটি ত্বকের দাগ দূর করে। এক্ষেত্রে কলার খোসা মুখে ৩/৪মিনিট ঘষে ৫মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর মুখ ধুয়ে ফেলুন।

মেছতা দূর করার আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থা

মেছতা দূর করার আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থা, মেছতা থেকে মুক্তি পাওয়ার আগে জেনে নিন মেছতা ধরন কি রকম। পুরুষের মেছতা দূর করার উপায়, মেছতার ধরন জেনে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা বা ব্যবস্থা নিতে হবে। একটি হালকা পরীক্ষা করেই সহজে মেছতার ধরন নির্ধারণ করা যায়। তাই মেছতা দেখা দিলে অবিলম্বে চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে চিকিৎসা নেওয়া উচিত। মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়, বাজারের ফ্রেকল বা কালো দাগ দূর করার জন্য নিম্নমানের ক্রিম ব্যবহার করা ঠিক নয়। এটি ত্বকের ভিতরের কোষগুলিতে মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে। কারণ আমাদের মুখের ত্বক খুবই নমনীয় এবং পাতলা। এর রাসায়নিক বিক্রিয়া সহ্য করার ক্ষমতা খুবই কম।

এপিডার্মাল হাইপার প্রিভেনশন সুপার ফেসিয়াল এর চিকিৎসা পদ্ধতি

আপনার যদি এপিডার্মাল হাইপার প্রিভেনশন সুপার ফেসিয়াল বা সুপারফিসিয়াল ত্বক থাকে তবে আপনি এটি থেকে খুব সহজেই পরিত্রাণ পেতে পারেন। এর জন্য প্রচলিত চিকিৎসা নিম্নরুপ,

হাইড্রোকুইনোন।মেছতা দূর করার চিকিৎসা ব্যবস্থা

হাইড্রোকুইনোন রাতে ঘুমানোর আগে হাইড্রোকুইনোন ব্যবহার করা উচিত। কারণ এই হাইড্রোকুইনোন টাইরোসিনেজ এনজাইমকে বাধা দেয়। এই এনজাইম প্রধানত গাঁজন জন্য দায়ী। মেছতা দূর করার ঔষধ, এর জন্য বিভিন্ন ব্লিচিং এজেন্ট ব্যবহার করতে হবে। কারণ ব্লিচিং এজেন্টে হাইড্রোকুইনোন থাকে। এছাড়াও ব্লিচিং এজেন্টের মধ্যে রয়েছে ফলিক অ্যাসিড,অ্যাসকরবিক অ্যাসিড। এগুলো ব্যবহার করলে মেছতা চলে যাবে।

সানব্লক ব্যবহার

সানব্লক ব্যবহার, এই ধরনের মেছতা দূর করার একটি উপায় হল সান ব্লক ব্যবহার করা। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী ভালো মানের সান ব্লক ব্যবহার করলে এ থেকে মুক্তি পেতে পারেন। কারণ সূর্যের আলোর অতিবেগুনি রশ্মি আমাদের ত্বকের কোষের ক্ষতি করে। এই রশ্মি সেই অনুযায়ী ত্বককে প্রভাবিত করে। এই রশ্মি ফর্সা ত্বকের জন্য বেশি ক্ষতিকর। তাই সানব্লক ব্যবহার করার সময় অতিবেগুনি রশ্মি মুখের ত্বকে প্রবেশ করতে পারে না। সানব্লক সূর্যের আলোকে আটকায়,তাই বাইরে যাওয়ার আগে বা সরাসরি সূর্যের আলোতে সানব্লক লাগালে ঘটার সম্ভাবনা কম।

ক্লিগমেজ ফর্মুলা।মেছতা দূর করার পদ্ধতি

ক্লিগমেজ ফর্মুলা মেছতা নিরাময়ে ব্যবহার খুবই উপকারী। ক্লিমেজ হল একটি ফেসপ্যাক যা স্টেরয়েড, ভিটামিন ‘এ’ ডেরিভেটিভস এবং হাইড্রোকুইনোনের সাথে ট্রেটিনোইনের মিশ্রণে তৈরি। রাতে নিয়মিত এই ফেসপ্যাক ব্যবহার করলে মেছতা চলে যাবে। কিন্তু হাইড্রোকুইনোন ব্যবহার করার পরও উপশম না হলে ব্যবহার করা উচিত।

কেমিক্যাল পিল

কেমিক্যাল পিল ব্যবহার মেছতা দূর করার অন্যতম উপায়। উপরের দুটি পদ্ধতিতে কাজ না হলে কেমিক্যাল পিল ব্যবহার করতে হবে। ড্রাইকোলিক অ্যাসিড এবং ট্রাইক্লোরোএসেটিক অ্যাসিড কেমিক্যাল পিল তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।

ডার্মাল হাইপার প্রিভেনশন ও মিশ্রিত এর চিকিৎসা

ডার্মাল হাইপার প্রিভেনশন ও মিশ্রিত এর চিকিৎসা, এই ধরনের মেছতা থেকে রেহাই পাওয়া খুবই সীমিত। কারণ এক্ষেত্রে কালো দাগ ত্বকের গভীরে যায় তাই এমন ফেসপ্যাক ব্যবহার করে সফল হয় না। এগুলো সাময়িক সুবিধা প্রদান করে। যাইহোক,আধুনিক ঔষধ এই ধরনের ত্বক অপসারণের একটি উপায় আবিষ্কার করেছে,জনপ্রিয় চিকিত্সা পদ্ধতিগুলির মধ্যে একটি হল মাইক্রোডার্মাব্রেশন। মেছতা হওয়ার কারন? মেছতা দূর করার উপায়, একটি যন্ত্রের সাহায্যে,ক্ষতিগ্রস্ত ত্বকের কোষগুলি সরানো হয়। যাতে কোনো ব্যথা ছাড়াই জটিল মেছতা অপসারণ করা সম্ভব হয়। এই চিকিৎসার সাথে ওষুধ ব্যবহার করলে এই চিকিৎসার কার্যকারিতা অনেকাংশে বেড়ে যায়। এছাড়া মেছতা দূর করতে লেজার ট্রিটমেন্টের প্রচলন থাকলেও এর কার্যকারিতা কম থাকায় খুব একটা ব্যবহার করা হয় না।

Leave a Comment

betvisa