মুক্তিযুদ্ধে রংপুরের ইতিহাস

মুক্তিযুদ্ধে রংপুরের ইতিহাস

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ। গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রথম দিকে রংপুরে শানকু সমাজদার প্রথম শহীদ হন। প্রথম আঘাতটি সেদিন এসেছিল রংপুরের স্বাধীনতা-প্রেমী মানুষকে। এই দিনে রংপুরের বীর মানুষেরা প্রথম মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি শুরু করে। একই দিন দুজনকে গুলি করে ছুরিকাঘাত করা হয় এবং তৃতীয়টি রংপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। তাদের আত্মত্যাগ রংপুরের মুক্তিযুদ্ধকে ত্বরান্বিত করেছিল। রংপুরের সকল শ্রেণির মানুষ মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিল। এর পরে ৩ মার্চ থেকে ৫ মার্চ রংপুরে কারফিউ আরোপ করা হয়। ২৪ শে মার্চ এ অঞ্চলের মানুষ সশস্ত্র যুদ্ধ শুরু করে। ২৬ শে মার্চ রবিবার রংপুরের মানুষ একটি নতুন চেতনা জাগ্রত করে। স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে রংপুরের বিভিন্ন স্থান থেকে ২০ থেকে ২৫ হাজার লোক (এই সংখ্যা সম্পর্কে বিভিন্ন মতামত রয়েছে) লাঠি, ধনুক, তীর, বর্শা ইত্যাদি দিয়ে রংপুর সেনানিবাসে আক্রমণ করেছিল এতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সৈন্যরা। সেনানিবাস উত্তেজিত জনতার উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং অসংখ্য মানুষকে হত্যা করে। রংপুরের অগণিত মানুষের জীবন ব্যয়ে একটি অবিস্মরণীয় ইতিহাস তৈরি হয়েছিল।

ইয়াহিয়া খানের কৌশলের প্রতিবাদে বঙ্গবন্ধু ২ মার্চ ঢাকায় এবং ৩ মার্চ সারা দেশে ধর্মঘট ডেকেছিলেন। ধর্মঘটকে সফল করতে ২ শে মার্চ রাতে ছাত্রলীগ রংপুর জেলার তত্কালীন সভাপতি রফিকুল ইসলাম গোলাপ সেন্ট্রাল রোডের পঙ্গা হাউজের (বর্তমানে গ্রামীণ টাওয়ার) ছাদে একটি সভা ডেকেছিলেন। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২ মার্চ সকালে দলীয় সম্পর্ক নির্বিশেষে প্রত্যেকে নগরীর জিরো পয়েন্ট কাচারি বাজারে সমবেত হন। রেলস্টেশন থেকে ফেরার পথে বর্তমান ঘোড়াপীর মাজারের সামনে দেখা গেল উর্দুতে লেখা একটি সাইনবোর্ড। এটি ছিল তৎকালীন অবাঙালি সরফরাজ খানের বাড়িতে। স্কুল ছাত্র শঙ্কু সমাজদার, মকবুল হোসেন শরিফুলসহ আরও অনেকে তত্ক্ষণাত সাইনবোর্ডটি নামানোর জন্য এগিয়ে যায়। ঠিক তখনই সরফরাজ খানের বাড়ির ছাদ থেকে গুলি চালানো হয়। শঙ্কু সমাজদার ও মকবুল হোসেন শরিফুলকে গুলি করে এবং লুট করা হয়েছিল (গুলিবিদ্ধ হওয়ার প্রায় একমাস পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা শহীদ হয়েছিল)। ঘটনার দিন শঙ্কু শহীদ হন। তাঁর মৃত্যুর খবরটি শহরজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে পুরো শহরটি এক ভয়াবহ শহরে পরিণত হয়েছিল। হাইওয়ে রুক্ষ হয়ে উঠল। এই অমূল্য ত্যাগের মধ্য দিয়ে রংপুরের মুক্তিযুদ্ধের সশস্ত্র সংগ্রামের পটভূমি এক অন্যরকম রূপ নিয়েছিল। মিছিল চলাকালীন দ্বিতীয় ঘটনায় বিচারকের আদালতের কর্মচারী ওমর আলীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়।

২৪ শে মার্চ, রংপুরে একযোগে দুটি ঘটনা ঘটেছিল। সেদিন কারফিউ ভাঙার জন্য পাক সেনারা ইয়াকুব মাহফুজ আলী জোরেজকে বেত্রাঘাত করে এবং ন্যাপ কর্মী রফিককে হত্যা করে তার পা ভেঙে দেয়। এই নৃশংসতার প্রতিবাদে লোকেরা জেলা প্রশাসকের বাংলোও ঘিরে ফেলে। এদিকে, সেনানিবাসের কাঁচাবাজারের সন্ধানে পাকবাহিনীর একটি জিপ দামোদরপুর বাজারে গেলে শাহেদ আলী, রফিকুল আলম বাদশা, আবদুস সালাম, রফিক এবং আরও তিন-চারজন বাঙালি যুবক তাদের ঘিরে ফেলে। উদ্দেশ্য ছিল তাদের খাদ্য সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া। শাহেদ আলী গাড়ির বোনটে ঝাঁপিয়ে পড়ে হঠাৎ এলএমজি। পাকিস্তানি সেনাবাহিনী থেকে ছিনিয়ে নেওয়া। হঠাৎ ঘটনার আকস্মিকতায় হতবাক লে। আব্বাসী। এ উপলক্ষে শাহেদ আলী একটি ছবি দিয়ে আব্বাসিকে মারেন। ক্যাপ্টেন আব্বাসি মাটিতে পড়ে গেলেন। রফিক, সালাম, রফিকুল আলম বাদশা তত্ক্ষণাত তাদের হাতে ছুরি, কুড়াল এবং কোদাল দিয়ে অন্য তিন সেনাকে মারতে শুরু করে। এটি কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়, সময়ের ধারাবাহিকতায় এটি একটি অনিবার্য ঘটনা ছিল। সেই ঘটনায় বাঙালি জনতা পাকবাহিনীর সমস্ত অস্ত্র ছিনিয়ে নিয়ে জিপ পুড়িয়ে দেয়। জনতার আক্রমণে আহত পাক সৈন্যদের রংপুর সদর হাসপাতালে আনা হয়। জনতা হাসপাতালে বিদ্রোহীরা তাদের চিকিত্সার বিরোধিতা করলে জনতার আক্রমণে ভয়ে পাক সেনারা গুলি চালায়। তাদের গুলিতে মিউনিসিপ্যাল ​​মার্কেটের সামনে রাজ্জাক নিহত হন। এই ঘটনায় জনতার মাঝে উত্তেজনা নতুন করে বেড়ে যায়। শুরু হয় সশস্ত্র সংগ্রাম।

এদিকে, ২৫ শে মার্চ রাতে রাজাকার রাজারবাগ ও পিলখানা থানায় এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেপ্তারের খবরে রংপুরের লোকেরা নরহত্যা গণহত্যার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে। রংপুর জেলার তৎকালীন রংপুর সদর, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, গাইবান্ধা মহকুমায় ক্ষুব্ধ জনতা সর্বত্র রেললাইন তুলে নিয়েছে। পুল, কালভার্ট ভেঙে যায়। তিনি যোগাযোগের সমস্ত রাস্তা কেটে ফেলেছেন এবং রাস্তায় বড় বড় গাছ ফেলে দিয়ে ব্যারিকেড তৈরি করেছিলেন।

এক অবিস্মরণীয় ঘটনাটি ১৯ ১৯৭১ সালের ২রা মার্চ রংপুরে ঘটেছিল। এই ঘটনাটি কেবল দেশকেই নয় গোটা বিশ্বকে অবাক করেছে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে বাঁশের লাঠি, ধনুক এবং তীরের সাহায্যে পাকিস্তানি হায়েনাদের সেনানিবাস আক্রমণ করার ঘটনা ঘটেছিল। আর এ জাতীয় ঘটনা সেদিন ঘটেছে রংপুরের সাহসী মানুষেরা। রংপুরবাসীর পরিকল্পনা অনুসারে যদি সেদিনের সেনানিবাস আক্রমণ সফল হত, তবে সম্ভবত মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস আজ অন্যরকমভাবে লেখা হত। মুক্তিযুদ্ধে রংপুরের মানুষের বীরত্বের গল্পটি এমন যে বাইরের বিশ্বের মানুষও দেশ ছেড়ে রোমে চলে যায়।

১৯৭১ সালের এই দিনে, সবাই সেনানিবাসের পিছনে জড়ো হয়েছিল যেখানে এখন ‘রক্তের গৌরব’ দাঁড়িয়ে আছে মানুষ মানুষ। তাদের হাতে বাঁশের লাঠিযুক্ত সাহসী ছেলেরা এবং আধুনিক অস্ত্র সহ আক্রমণকারীরা। সবাই লাঠি দুলিয়ে ক্যান্টনমেন্টের দিকে রওনা দিল।ঐতিহাসিক বালারখাইল পেরিয়ে ক্যান্টনমেন্ট মার্কেটে না পৌঁছানোর সাথে সাথে মেশিনগান ফায়ার শুরু হয়েছিল।

এই ঘটনাটি বর্ণনা করে, তৎকালীন রংপুর সেনানিবাসে কর্মরত ২৯ তম ক্যাভালারি রেজিমেন্টের মেজর নাসিরউদ্দিন তাঁর ‘ফ্রিডম ইন ওয়ার’ বইয়ে বলেছিলেন, ‘বিকেল চারটা বা পাঁচটা হবে। … হাজার হাজার মানুষ আস্তে আস্তে দক্ষিণ থেকে সেনা শিবিরে পৌঁছেছে। তারা সকলেই স্থানীয় ছিল তা যথেষ্ট বোধগম্য ছিল। সামন্ত-যুগের অস্ত্রের সাহায্যে তারা ব্যারাকের মতো আধুনিক স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র সমেত একটি ট্যাঙ্ক ঘাঁটিতে আক্রমণ করার পরিকল্পনা করেছিল। … তারা কাছে আসতেই, 10 টি সামরিক জিপ মেশিনগান দিয়ে সজ্জিত 5 মিনিটের জন্য সরাসরি গুলি চালায়। … আমি অবিশ্বাস্য চোখে পরিষ্কার দেখতে পেলাম যে বৃষ্টির মতো অসংখ্য যন্ত্রগান শটের মুখে দূরত্বে থাকা লোকেরা বেদনায় চিৎকার করে মাটিতে গড়িয়ে পড়ছিল। এবং তাদের রক্তের লাল রঙ দিয়ে ঢাকা মাটির সবুজ ঘাস। … আমি আমার দম ধরে ছিল। কিন্তু কর্নেল সগিরের রাগ শেষ হয়নি। এমনকি পাঁচ থেকে ছয়শত লোককে হত্যা করার পরেও তার উত্সাহ সন্তুষ্ট হয়নি। … সন্ধ্যার প্রথম দিকে নির্দেশ অনুসারে পাঁচ থেকে ছয় শতাধিক লাশ পেট্রল andেলে দেওয়া হয়েছিল এবং দাহ করা হয়েছিল। আগুন জ্বলল। এই আগুন অন্য কোনও আগুনের তুলনায় অনেক বেশি লাল is এই শিখায় এটি আরও অনেক কিছু পোড়ায় …. ”

২ শে মার্চ এই দুর্দান্ত জাগরণ কোনও কাল্পনিক ঘটনা নয়। রূপকথার গল্প নয়। অতীতের ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক ইতিহাসের পথ অনুসরণ করে রংপুরের মানুষ সেদিন জেগেছিল এবং অবিস্মরণীয় ঘটনা ঘটেছিল। সেই পথ অনুসরণ করে সাধারণ মানুষ পরবর্তীকালে মুক্তিযুদ্ধের পথে আরও এগিয়ে যায়।

রংপুরে প্রথম গণহত্যা হয়েছিল দাখিগঞ্জ গণহত্যার মধ্য দিয়ে। শনিবার, ৩ এপ্রিল মধ্যরাতে হানাদার বাহিনী রংপুরের প্রিয় মানুষ মাহফুজ আলী জোড়েজ সহ দাখিগঞ্জ (রংপুর-মাহিগঞ্জ রোড) শ্মশানে ১১ জন বাঙালি বন্দীকে গুলি করে হত্যা করে। নিহতদের মধ্যে একজন বেঁচে গিয়েছিলেন। তিনি হলেন তাজহাটের দীনেশ ভৌমিক (ডাঃ মন্টু)। সেই রাতে সেখানে 10 বাঙালি শহীদ হন।

১৯৭১ সালের ৩০ এপ্রিলহানাদার বাহিনী রাতের অন্ধকারে রংপুর কারমাইকেল কলেজ প্রাঙ্গণে অধ্যাপকদের (অধ্যাপক চিত্তরঞ্জন, অধ্যাপক রাম কৃষ্ণ অধিকারী এবং অধ্যাপক সুনীল চক্রবর্তী) নির্মমভাবে হত্যা করে। এছাড়াও অধ্যাপক কালাচাদ রায় ও তাঁর স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছিল এবং এই ধারাবাহিকতায় অধ্যাপক আবদুর রহমান এবং অধ্যাপক সোলায়মানকে হত্যা করা হয়েছিল। সবার মরদেহ পাওয়া গেলেও অধ্যাপক আবদুর রহমানের লাশ আজও পাওয়া যায়নি। তবে শোনা যাচ্ছে, রেলওয়ে ইঞ্জিনের কয়লার আগুনে তাঁর দেহ পুড়েছিল প্রাণঘাতী সৈন্যরা।

হানাদার বাহিনীর অত্যাচারের কেন্দ্র ছিল রংপুর টাউন হল that সময়ে। তারপরে ঝাড়ুদার বিল ও পদ্মপুকুর গণহত্যা, জয়রাম আনোয়ার গণহত্যা, লাহিড়ীহাটের গণহত্যা, ঘাঘটপাড়ের গণহত্যা, নিসবেটগঞ্জের গণহত্যা, জাফরগঞ্জ গণহত্যার গণহত্যা ইত্যাদি।

সময়ের সাথে সাথে মুক্তিযুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ে রংপুর জুড়ে। গেরিলা যুদ্ধ অব্যাহত রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা ও গেরিলাদের একাধিক সফল আক্রমণাত্মক হামলার পরে, পাকিস্তানি বাহিনী মরিয়া হয়ে ওঠে। জুলাইয়ের দ্বিতীয় সপ্তাহে, পাকিস্তানি বাহিনী ভোরে ভোররাতে ডিমলা কচুকাতার মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানের উপর অবাক হামলা চালায়। সেই সময় শিবিরে জন-পঞ্চিশেক মুক্তিযোদ্ধা ছিল। তারা পাল্টা আক্রমণও করেছিল। যুদ্ধ প্রায় এক ঘন্টা স্থায়ী হয়েছিল। ঘটনাস্থলেই বারোজন সৈন্য নিহত হয় এবং আরও অনেকে আহত হয়। মিঠাপুকুরের পুত্র গোলাম গাউস নওশাহ (অ্যাডভোকেট আবদুল গণির ছোট ভাই) সেই যুদ্ধে শহীদ হয়েছিলেন। মাহবুবুল আলম মহা ও রংপুরের পানওয়ার রহমান ভূঁইয়া পিন্টু সাহসিকতার সাথে যুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

নভেম্বর খন্দকার মুখতার এলাহী মুজিব বাহিনীর একটি ইউনিট নিয়ে লালমনিরহাটে যাওয়ার পথে বার্বারীর আয়ার খামার গ্রামে এক রাতের জন্য থামেন। সেখানে হানাদার বাহিনী মুখতার এলাহী সহ ৫৪ জন গ্রামবাসীকে আক্রমণ করে নির্মমভাবে হত্যা করে।

৪ এবং ৫ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধা ও ভারতীয় বাহিনীর একটি যৌথ বাহিনী কুড়িগ্রামে পাকিস্তানি আগ্রাসনকারীদের উপর আক্রমণ শুরু করে। আক্রমণকারী বাহিনী আক্রমণ থেকে বাঁচতে না পেরে রংপুর সেনানিবাসে ফিরে আসে। একই সময়ে, মুক্তিযোদ্ধারা নীলফামারী শহরকে হানাদার বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ থেকে মুক্তি দিয়েছিল। হানাদার বাহিনী সৈয়দপুর সেনানিবাসে আশ্রয় নিয়েছিল। এভাবে মুক্তিবাহিনীর হামলার মুখে রংপুর ও সৈয়দপুর সেনানিবাস ব্যতীত সমগ্র সেক্টর ১২ ডিসেম্বর নাগাদ মুক্তি বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। এই সাফল্যে পাকিস্তানি আগ্রাসী বাহিনীর সহযোগীরা বিভ্রান্ত হয়ে পড়ে।

১৩ ই ডিসেম্বর প্রথম ২১২ রাজাকার গঙ্গাচড়া থানায় আত্মসমর্পণ করে। ১৫ ডিসেম্বর তিস্তা সেতুতে মুক্তিযোদ্ধা ও হানাদার বাহিনীর মধ্যে ভয়াবহ লড়াই হয়। ১৬ ডিসেম্বর এবং রংপুর শহর ও শহরতলিতে লড়াই চলতে থাকে। ১ ডিসেম্বর পাকিস্তানী আগ্রাসনকারীরা যৌথ বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করলে বৃহত্তর রংপুর অঞ্চলটি সম্পূর্ণ স্বাধীন হয়েছিল।

নয় মাসব্যাপী শোকাহত মানুষ মুক্তির আনন্দে অভিভূত। আনন্দ-দুঃখে মুক্তির মিছিলে হাজার হাজার মানুষ ঐক্যবধ্য হয়েছিল। জয়ের আনন্দ, আত্মীয়স্বজন হারানোর বেদনা সব মিলিয়ে সেদিন মানুষের মনে এক বিস্ময়কর কাঁপুনি তৈরি হয়েছিল। অনেকে প্রিয়জনকে খুঁজে পাওয়ার উপায় খুঁজছেন। তখন উন্মুক্ত আকাশে উড়তে থাকে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা।

সূত্রঃ মুক্তিযুদ্ধে রংপুর, মুকুল মোস্তাফিজ।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *