ভেঙে ফেলা হতে পারে হেফাজতে ইসলামের বর্তমান কমিটি

হেফাজতে ইসলামের বর্তমান কমিটি, যে দেশজুড়ে সহিংসতার পরে ব্যাপক সমালোচিত হয়েছিল, যে কোনও সময় তা ভেঙে ফেলা হতে পারে। নেতৃত্বের কাছে সর্বস্তরে গ্রহণযোগ্য কাউকে আনার পাশাপাশি কওমি মাদ্রাসার উপর দিয়ে দলের একমাত্র কর্তৃত্বকে বন্ধ করার বিষয়টিও বিবেচনা করা হচ্ছে।

নতুন পরিকল্পনা অনুসারে কওমি মাদ্রাসার পরিচালন সংক্রান্ত সমস্ত সিদ্ধান্ত মনোনীত বোর্ড ‘আল-হায়াতুল উলয়া লিল-জামি’ আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ ‘গ্রহণ করবে। হেফাজতে ইসলাম মাদ্রাসার ব্যবস্থাপনায় হস্তক্ষেপ করতে পারবে না।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভারত সফরকে কেন্দ্র করে দেশজুড়ে চলমান সহিংসতার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে। দলের সর্বাধিক আলোচিত যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকসহ অন্তত নয় শীর্ষ শীর্ষ নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এই পরিস্থিতিতে দলটি সরকারবিরোধী অবস্থান থেকে সরে এসে বিপরীত সরকারের সাথে সমঝোতায় আসতে চায়। তবে আইন প্রয়োগকারীরা বলেছে যে দেশজুড়ে সহিংসতায় জড়িতদের জন্য কোনও ছাড় দেওয়া হবে না।

চলমান চলমান গ্রেপ্তারের মধ্যে সোমবার (১৯ এপ্রিল) রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সাথে বৈঠক করেছেন হেফাজতে ইসলামের শীর্ষস্থানীয় কয়েকজন নেতা। এ সময় তারা পার্টির নেতাদেরকে হয়রানি করা বন্ধ করতে অনুরোধ করেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মাধ্যমে সরকারের সাথে একটি চুক্তিতে পৌঁছানোর প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছিল।

বৈঠক সূত্রমতে, গ্রেপ্তার অভিযান বন্ধের অনুরোধের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হেফাজত নেতাদের অবহিত করে যোগ করেছেন, নিরীহ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে না, কেবল সহিংসতার সাথে জড়িতরা গ্রেপ্তার হচ্ছে। দল যখন কোনও আপোষের প্রস্তাব দেয়, তারা মন্ত্রীর কোনও আশ্বাস ছাড়াই ফিরে আসে।

এদিকে হেফাজতের নেতারা বিশেষ শাখার (এসবি) কর্মকর্তাদের সাথেও বৈঠক করেছেন। বৈঠকে হেফাজত নেতারা সম্প্রতি সরকারবিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে তাদের অন্যায় কাজ স্বীকার করেছেন তবে চট্টগ্রামের ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও হাটহাজারীতে সহিংসতার জন্য কোনও দায় নিতে চাননি। তবে তারা বর্তমান পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পেতে চায়।

সূত্র জানিয়েছে যে ২০১০ সালে হেফাজতে ইসলাম একটি অরাজনৈতিক দল হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছিল। তবে দলের সাবেক আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফির মৃত্যুর পর হেফাজতে ইসলাম রাজনৈতিক দলগুলিতে পরিণত হয়েছিল। ধীরে ধীরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা হেফাজত কমিটিতে যোগদান করেন। ফলস্বরূপ, নতুন নেতারা বিভিন্ন সরকারবিরোধী কার্যক্রম শুরু করেছিলেন।

এই পরিস্থিতিতে হেফাজতে ইসলামের বর্তমান কমিটি যে কোনও সময় বিলীন হতে পারে। নেতৃত্ব এমন একজন ব্যক্তির সন্ধান করছেন যা সমস্ত মহলে গ্রহণযোগ্য এবং আল্লামা শফির অনুসরণ করেন। অন্য যে কোনও রাজনৈতিক দলের নেতারা বা দলের সাথে যুক্ত কেউই হেফাজতে ইসলামের কমিটিতে থাকতে পারবেন না, তাদের অবশ্যই হেফাজতে ইসলামের পদ ত্যাগ করতে হবে।

এমনকি কওমী মাদ্রাসা কীভাবে পরিচালিত হবে, যেখানে হেফাজতে ইসলাম হস্তক্ষেপ করতে পারে না তা সম্পর্কিত বোর্ডও সিদ্ধান্ত নেবে। বোর্ড আল-হাইয়াতুল উলয়া লিল-জামিয়াতিল কাওমিয়া বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা পরিচালনার জন্য সকল সিদ্ধান্ত নেবে।

পুলিশ সূত্রে খবর, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থেকে যারা হেফাজতে ইসলাম কমিটিতে যোগদান করেছেন তাদের তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে। সহিংসতার অভিযোগে দেশজুড়ে বিভিন্ন মামলায় ৪৮০ টিরও বেশি নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সরকারবিরোধী কর্মে জড়িত নেতাদের বিরুদ্ধে এই অভিযান চলছে।

রবিবার (১৮ এপ্রিল) রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জামিয়া রহমানিয়া মাদ্রাসা থেকে গ্রেপ্তার হওয়া মামুনুলকে সাত দিনের রিমান্ডে রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে। রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ চলাকালীন একের পর এক বিভিন্ন সরকারবিরোধী কর্মকাণ্ডের তথ্য বেরিয়ে আসছে।

সূত্রমতে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের বিরুদ্ধে আন্দোলনকে ব্যবহার করে সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত ও ক্ষমতা দখলের পরিকল্পনা ছিল হেফাজতে ইসলামের। এই জঘন্য উদ্দেশ্যে কওমি মাদ্রাসার নরম-হৃদয় শিক্ষার্থীরা মাঠে উজ্জীবিত হয়েছিল।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের জেলা প্রশাসক (ডিসি) হারুন-উর-রশিদ বলেছেন, হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক রিমান্ডে বেশ চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছিলেন। তিনি হেফাজতের নেতাকর্মীদের উস্কানি দিতেন। মামুনুল ভেবেছিলেন সরকার পড়ে গেলে কেউ হেফাজতের সমর্থন ছাড়া ক্ষমতা দখল করতে পারবে না।

এদিকে, হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা ২৩ টি মামলার তদন্তের দায়িত্ব পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) পেয়েছে।

সিআইডির প্রধান ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান জানান, নারায়ণগঞ্জ দাঙ্গার মামলায় দায়ের করা মামলায় প্রাথমিকভাবে মামুনুলের জড়িততা পাওয়া গেছে। মামুনুল বর্তমানে অন্য মামলায় রিমান্ডে রয়েছেন। যখন এটি শেষ হয়ে যাবে, সিআইডি তার রিমান্ডের জন্য আবেদন করবে।

Leave a Comment

betvisa