ভাবতে অবাক লাগে যে বাবা কলসাপকে দুধ কলা খাওয়ালেন

জামির তখন মাত্র ৮/৯ বছর বয়সে আমাদের বাড়িতে এসেছিল। তার খালা তাকে নিয়ে এসেছিল। এ সময় তিনি কোনও বাড়ির কাজ করতে পারেননি। তবুও বাবা তাকে প্রেমে ফেলে রেখেছেন। জমির আমার বাবাকে নান বলে ডাকত। আমার বাবা তাকে নাতির মতো ভালোবাসতেন। কোনও কাজের ছেলে হিসাবে কখনও দেখেনি। সর্বদা নিজেকে বিবেচনা করুন। আর সেই জমি আমার বাবাকে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল। ভাবতে অবাক লাগে যে বাবা কলসাপকে দুধ কলা খাওয়ালেন।

বুধবার বিকেলে অশ্রু কণ্ঠে নিহত হন বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সাতকানিয়া ব্রিক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি, সাতকানিয়ার প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ও কেনোচিয়া ইউনিয়ন পরিষদের প্রাক্তন জনপ্রিয় চেয়ারম্যান আবদুল হক মিয়াঁর জ্যেষ্ঠ পুত্র। কান্নাজড়িত কণ্ঠে নিজাম বলেছিলেন, “আমাদের বাড়ির কর্মচারী জামির উদ্দিন পুলিশকে স্বীকার করেছেন যে সে আমার বাবাকে হত্যা করেছে।” তিনি আদালতে ম্যাজিস্ট্রেটকে একটি বিবৃতিও দিয়েছিলেন। তাঁর মতে, তারা হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি বলি, একটি ছুরি এবং জমির ব্যবহৃত দুটি মোবাইল সেট এবং একটি আমার পিতা বাড়ির পিছনে সেচ দিয়ে পুকুরের পানি শুকিয়ে উদ্ধার করে।

এই ঘটনার পর থেকে পুলিশের ভূমিকা প্রশংসনীয় ছিল। আমার পরিবারের পক্ষ থেকে আমি পুলিশ প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাই। তারপরেও এটি রহস্যজনক বলে মনে হয়। হত্যার পিছনে কি কোনও জ্বালানী রয়েছে? কোন তৃতীয় পক্ষ আমার বাবাকে হত্যা করেছে? তবে হত্যার সাথে জমির জড়িত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে গেছে। পর্দার আড়ালে কোনও জড়িত রয়েছে কিনা তা জানতে পুলিশকে অনুরোধ জানানো হবে।

নিজাম উদ্দিন বলেন, দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে আমাদের বাড়িতে জমি রয়েছে। আমার বাবা তাকে খুব ভালোবাসতেন। আমার বাবার টাকা বাঁশখালীতে বাড়ি তৈরি করতে ব্যবহৃত হচ্ছে। ইতিমধ্যে 7-8 লক্ষ টাকা ব্যয় হয়েছে। আমার বাবা মারা যাওয়ার পরের দিন তার কাছে কঙ্কর, সিমেন্ট, বালু ও লোহা সহ প্রায় আড়াই লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। শুধু তাই নয়, তিনি বলেছিলেন যে তার বিয়ের জন্য তিনি পাঁচ লাখ টাকা ব্যয় করবেন। প্রতিবেশীদের সাথে তাদের সমস্যা ছিল। আমার বাবাও আমার সাথে এই সমস্যাটি শেষ করেছিলেন। তিনি আরও বলেছিলেন যে আমার বাবা জমির সমস্ত জিনিস দেখাশোনা করতেন।

জমি চাষ করা ধান, পুকুরের মাছ, গরুর দুধ এবং ফল বিক্রি করেছিল। তাঁর বাবা তাঁর প্রতি অন্ধ বিশ্বাস রেখেছিলেন। আমার বাবা কর্মচারীর প্রতি অন্ধ বিশ্বাস এবং ভালবাসার শিকার হয়েছিল। বাবা হয়তো বুঝতে পারেন নি যে কাউকে ভালবাসার পরিণতি এত নিষ্ঠুর হবে। যে ব্যক্তি প্রেম ও যত্নবান সে কীভাবে ভাবতে পারে যে তার জীবন কেড়ে নেওয়া হবে?

নিজাম উদ্দিন আরও বলেছিলেন, যদি সে আমার বাবাকে কোনও জ্বালানী ছাড়াই হত্যা করে, তবে সে টাকার লোভে পড়েছিল। কারণ ঘটনার কয়েকদিন আগে আমার বাবা একটি এফডিআর ভেঙে 10 লক্ষ টাকা বাড়িতে এনেছিলেন। কিছু দিন বাড়িতে টাকা ছিল। অর্থও জমি দেখেছিল।

তবে জমিটি বুঝতে পারে না যে টাকাটি বাড়ি থেকে নিয়ে গিয়ে আবার ব্যাংকে রাখা হয়েছিল। আর বাড়িতে বাবদ ১০ লাখ টাকা ছিল এই ভেবে তিনি আমার বাবাকে হত্যা করেছিলেন। আমরা চাই বাবার হত্যার মামলাটি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ট্রাইব্যুনাল ট্রাইব্যুনালে নিয়ে যাওয়া হোক এবং অল্প সময়ের মধ্যেই এই মামলাটি শেষ করা উচিত এবং খুনীকে ফাঁসি দেওয়া উচিত।

Leave a Comment

betvisa