ভাঙচুর, জ্বালাও-পোড়াও করবেন না: বাবুনগরী

আমির জুনায়েদ বাবুনগরী হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের যাতে কোনও বিরোধে জড়িত না হওয়ার আহ্বান জানান।

সোমবার রাতে তার ফেসবুক পেজে পোস্ট করা একটি ভিডিও বার্তায় তিনি এই আহ্বান জানিয়ে গ্রেফতার হেফাজত নেতাদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।

এ সময় তিনি দাবি করেছিলেন, হেফাজত ছিল দেশের একটি বড় অ-রাজনৈতিক সংগঠন। হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠার 11 বছরেও কোনও দলের সাথে কোনও সম্পর্ক ছিল না।

রবিবার হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে গ্রেপ্তারের পর বাবুনগরী ভিডিও বার্তা দেন।

একটি ভিডিও বার্তায় তিনি বলেছিলেন, “প্রিয় দেশবাসী, হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা এবং তাওহিদী জনগণ আপনার জন্য – ধৈর্য ধরুন, ধৈর্য ধরুন। কোনও বিরোধে যাবেন না, ভাংচুর করবেন না, করবেন না। জ্বলে উঠুন। হেফাজতে ইসলাম ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগে বিশ্বাসী নয়। বরং হারাম লাগছে। আমি মনে করি না এগুলি ন্যায়সঙ্গত। ‘

স্বাধীনতার স্বর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সফরের প্রতিবাদে হেফাজত ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে দাঙ্গা চালিয়েছিল। তন্মধ্যে সুবর্ণা জয়ন্তীর দিন ২৬ শে মার্চ ঢাকার বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে নাশকতার ঘটনার মামলায় মামুনুল হকসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

এই ঘটনাগুলিকে ‘দুর্ঘটনা’ হিসাবে বর্ণনা করে বাবুনগরী দাবি করেছিলেন যে সেদিন তাদের কোনও এজেন্ডা ছিল না। তাদের ‘আদেশ’ ছিল না।

হেফাজত আমির সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন, “সরকারের কাছে আমার অনুরোধ, এমন গুজব শুনবেন না যে হেফাজতের উদ্দেশ্য এই জাতীয় ও এ জাতীয় দলকে ক্ষমতায় আনা।” এটি একটি স্পষ্ট মিথ্যা, একটি অস্পষ্ট মিথ্যা। ‘

Leave a Comment

betvisa