“বিষাদ বৃষ্টি”

দেয়ালের ওপারে বন্দী স্মৃতির আর্তনাদেও মন আজ স্রোতহীন নদীর মতোই শান্ত।

বিষাদের দমকা হাওয়ায় ছাইরঙা
মেঘের ছটফটানি সহ্য করতে না পেরে
আকাশের বুকভাঙ্গা রোদন বেরিয়ে এলো।
ভিজিয়ে দিল একজোড়া পাখির
খড়কুটোয় বাঁধা ছোট্ট একটি নীড়।

বাসাহীন পাখি দু’টো শরীর ভিজিয়েই
দেখতে লাগলো তাদের স্বপ্নের মতো বাসাটি
ভেঙ্গে যাচ্ছে, হারিয়ে যাচ্ছে তাদের
অতীতে রাঙ্গানো সব স্মৃতিচিহ্ন।
ঝুম বৃষ্টিতে কিছু বিলাসী মানব-মানবী
বৃষ্টি বিলাসব্যসনে মেতে উঠেছে।

রাস্তার ওপারে একটি পথ শিশু
হাতে একগুচ্ছ কদম ফুল নিয়ে দাঁড়িয়ে।
ফুল বিক্রির টাকায় এক বেলা
এক মুঠো ভাত খাবার আশায়।
না থাকুক কোনো ব্যঞ্জন,
খানিকটা নুন আর কয়েকটা লঙ্কা
হলেও বেশ চলে যেত।

পোয়া খানেক চাল একটু লবণ
আর দু চারটে মরিচ কেনার
মতো টাকাটা আজ জুটবে তো তার?
বাচ্চা ছেলেটা এখনও বুঝতে পারছে না,
এই ইট পাথরের শহুরে মানুষের মন
এবং মানুষগুলি কতটা কনক্রিট।

Writer:Mahazabin Sharmin Priya

Leave a Comment