বিয়ের আগে যা জানতেই হবে

বিয়ের আগে যা জানতেই হবে?

বিয়ের আগে যা জানতেই হবে ভালবাসা বিশ্বাসের উপর ভিত্তি করে। এ জন্য বিয়ের আগে সঙ্গীকে কিছু বিষয়ে জানাতে হবে। আপনার যদি কোনো বদ অভ্যাস থাকে বিয়ের আগে যা জানতেই হবে তাহলে নির্দ্বিধায় আপনার ভবিষ্যৎ জীবনসঙ্গীকে জানান।

 

বিয়ের আগে যা জানতেই হবে

বিয়ের আগে যা জানতেই হবে তাহলে বিয়ের আগে আপনার সঙ্গীর আনুগত্য ও সম্মান বাড়বে। মনে রাখবেন, সত্যি বলতে কেউ কখনো ছোট নয় বড় হয় না। আপনি যেমন তাকে বিশ্বাস করবেন; সে যেভাবে আপনাকে বিশ্বাস করতে পারে, তার জন্য আপনাকে কিছু করতে হবে। তাই আপনার যদি কোনো গোপনীয়তা থাকে বিয়ের আগে যা জানতেই হবে; আপনার সঙ্গীকে এটি সম্পর্কে বলাই বুদ্ধিমানের কাজ। জেনে নিন বিয়ের আগে আপনার সঙ্গীকে কী কী কথা বলা উচিত বিয়ের আগে যা জানতেই হবে অনেকেরই বিভিন্ন নেশা থাকে।

কেউ বই পড়ছে, কেউ গেম খেলছে। রান্না বা বেড়াতে যাওয়ার নেশা। অনেকের খারাপ নেশাও আছে। যেমন বিয়ের আগে যা জানতেই হবে ধূমপান, অ্যালকোহল বা মাদকাসক্তি। এসব ক্ষেত্রে, যার সঙ্গে সারাজীবন কাটাবেন বলে ঠিক করেছেন বিয়ের আগে যা জানতেই হবে, তাকে আগেই জানিয়ে দিন। অনেকেরই কিছু দীর্ঘস্থায়ী রোগ রয়েছে। এগুলোর অধিকাংশই জেনেটিক। যা বিয়ের আগে যা জানতেই হবে, অবশ্যই, ভিডিওটি রাতারাতি উত্তেজনা তৈরি করেছে।

 

বিয়ের আগে যা জীবনসঙ্গীকে অবশ্যই করবেন

বিয়ের আগে যা জীবনসঙ্গীকে অবশ্যই করবেন তাই আপনার যদি দীর্ঘদিনের অসুখ থাকে, তাহলে বিয়ের আগে সঙ্গীকে জানিয়ে দিন। আপনার যদি মানসিক রোগ থাকে বিয়ের আগে যা জীবনসঙ্গীকে অবশ্যই করবেন, আমাদের জানাতে ভুলবেন না। অর্থ বা সম্পদ নিয়ে আপনার সঙ্গীকে কখনই বাড়াবাড়ি করবেন না। এটি দাম্পত্য সম্পর্কের উপর খুব খারাপ প্রভাব ফেলে। আপনার সঙ্গীর আর্থিক পরিস্থিতি সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা থাকা দরকার।

আপনি যদি অতীতে কোনো অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে থাকেন বিয়ের আগে যা জীবনসঙ্গীকে অবশ্যই করবেন; বিয়ের আগে আপনার সঙ্গীকে এটি সম্পর্কে জানান। আপনার সঙ্গী যদি আপনার সমস্ত সত্য জেনেও আপনাকে ভালবাসতে পারে তবে এটি একটি দুর্দান্ত অর্জন। যে কোনো মানুষের জীবনে বিয়ে একটি বড় সিদ্ধান্ত। সেটা লাভ ম্যারেজই হোক বা অ্যারেঞ্জড। নতুন সঙ্গীর হাত ধরে সারাজীবন কাটানোর আগে নানা চিন্তা মাথায় আসে। বিয়ে মানে শুধু দুজনের কথা নয়।

 

বিয়ের আগে যা যা জানা জরুরী

বিয়ের আগে যা যা জানা জরুরী একটি নতুন বিশ্বের সাথে মানিয়ে নেওয়া, একটি নতুন পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়া বিয়ের আগে যা যা জানা জরুরী, একজনের সঙ্গীর শিক্ষা এবং সংস্কৃতির সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়াও গুরুত্বপূর্ণ। ভালোবেসে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিলে প্রেমিক-প্রেমিকারা একে অপরকে নানান প্রশ্ন করে বিয়ের আগে যা যা জানা জরুরী।

কিন্তু বিয়ের কথা উঠলে অনেকেই বিব্রত বা বিব্রত এড়িয়ে যান। একটি নতুন জীবন শুরু করার আগে, পুরুষ এবং মহিলা উভয়ের জন্য একে অপরের সাথে কিছু বিষয় স্পষ্ট করা গুরুত্বপূর্ণ বিয়ের আগে যা যা জানা জরুরী। সুস্থ ও স্বাভাবিক ভবিষ্যতের স্বপ্ন নিয়ে গাঁটছড়া বাঁধার সিদ্ধান্ত। সেই স্বপ্নকে সত্যি করতে হলে এসব প্রশ্নের উত্তর জানা জরুরি।

 

আপনি কি সত্যিই বিয়ে করতে চান?

আপনি কি সত্যিই বিয়ে করতে চান আপনার সঙ্গীর সাথে এটি পরীক্ষা করতে ভুলবেন না। পারিবারিক চাপে আপনার সঙ্গী কি বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন না? আপনি কি সত্যিই বিয়ে করতে চান সেক্ষেত্রে কিন্তু পরবর্তীতে একে অপরের সাথে খাপ খাওয়ানো খুব কঠিন হয়ে পড়ে। একটি সম্পর্কে আপনি কি সত্যিই বিয়ে করতে চান শুধুমাত্র বোঝা বাকি থাকতে পারে.

 

সংসারে কার অর্থ ব্যয় করা হবে?

এই প্রশ্নটিও খুব গুরুত্বপূর্ণ যদি বর এবং কনে উভয়ই উপার্জন করে। যার অর্থে সংসার সংসারে কার অর্থ ব্যয় করা হবে চলবে। আর ভবিষ্যতের জন্য কে অর্থ সঞ্চয় করবে সেই চিত্র প্রথম থেকেই পরিষ্কার থাকলে দাম্পত্য কলহ অনেকটাই এড়ানো যায়। এছাড়াও পরিবারের বাকিদের সংসারে কার অর্থ ব্যয় করা হবে কত খরচ করতে হবে এবং কে করবে তা নিয়ে আলোচনা করুন। এটি আপনার জীবনের একটি পরিষ্কার চিত্র দেবে। আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন সংসারে কার অর্থ ব্যয় করা হবে যে আপনাকে মাসে 30 দিন কাটাতে হবে নাকি মাসের 25 তারিখে মাল্টিপ্লেক্সে ছবি দেখার জন্য আপনার কাছে টাকা আছে।

 

বিয়ের পর কোথায় থাকবেন?

বিয়ের পর কোথায় থাকবেন উভয় পক্ষের জন্য এই প্রশ্নের উত্তর জানা গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে যদি আপনারা দুজনেই চাকরি করেন, তাহলে বিয়ের পর কোথায় স্থায়ী হবেন তা জানতে হবে। একই সময়ে বিয়ের পর কোথায় থাকবেন, এটা পরিষ্কার করা গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি আলাদা হবেন বা আপনার পরিবারের বিয়ের পর কোথায় থাকবেন সাথে থাকবেন। আগে থেকে জানা থাকলে বিয়ের পর নিজেকে সেভাবে মানিয়ে নিতে পারবেন।

 

বিয়ের কতদিনের মধ্যে সন্তান চান?

বিয়ের কতদিনের মধ্যে সন্তান চান এই ক্ষেত্রে, উভয় মতামত একমত হওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দুজন মানুষ ভিন্নভাবে চিন্তা করলে সমস্যা দেখা বিয়ের কতদিনের মধ্যে সন্তান চান দিতে পারে বিয়ের আগে যা জানতেই হবে। সেজন্য আগেভাগেই আলোচনা করে বিয়ের কতদিনের মধ্যে সন্তান চান বিষয়টি নিষ্পত্তি করা ভালো।

 

আপনার লাইফস্টাইল নিয়ে পার্টনারের কোনও সমস্যা নেই তো?

আপনার লাইফস্টাইল নিয়ে পার্টনারের কোনও সমস্যা নেই তো আপনি গভীর রাতে পার্টি করতে ভালবাসেন। আর আপনার সঙ্গী ভোরবেলা উঠে যোগ ব্যায়াম করেন আপনার লাইফস্টাইল নিয়ে পার্টনারের কোনও সমস্যা নেই তো। তাই? কি টেনশন আপনার লাইফস্টাইল নিয়ে পার্টনারের কোনও সমস্যা নেই তো! এই ক্ষেত্রে একে অপরের সাথে কোন সমস্যা আছে কিনা তা খুঁজে বের করুন। যদি না হয় এখানে শুধু আপনার জন্য একটি নতুন পণ্য!

 

পার্টনারের জন্য নিজেকে কতটা পাল্টাতে হবে?

পার্টনারের জন্য নিজেকে কতটা পাল্টাতে হবে আপনি কি অ্যালকোহল পান করেন? বিয়ের পর সবকিছু ছেড়ে নিজেকে পুরোপুরি বদলে ফেলতে চান? আপনার সঙ্গীর কাছে আগে থেকেই বিষয়টি পরিষ্কার করুন। আপনার সঙ্গী কি চান তা শুনুন। তারপর জীবনের সবচেয়ে বড় সিদ্ধান্ত নিন। পার্টনারের জন্য নিজেকে কতটা পাল্টাতে হবে তাড়াহুড়োয় সমস্যা! বিয়ে মানে একজন মানুষের সাথে সারাজীবন চলা। তার ভালো বা খারাপ মুহূর্তে ছায়ার মতো তার পাশে থাকুন। তার সুখ-দুঃখের অংশীদার হওয়া। তাই জীবনের এই গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে নয় হাজারবার ভাবা জরুরি।

আপনি যে মেয়েটিকে আপনার জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নিচ্ছেন সে সম্পর্কে আপনি অবশ্যই ভালো করে জানেন। কারণ বিয়ের পর নানা ধরনের অশান্তি হয় পার্টনারের জন্য নিজেকে কতটা পাল্টাতে হবে। এমন দৃশ্য আমাদের সমাজে প্রায়ই দেখা যায়। অনেকের জগতে সুখ শব্দের স্থান নেই। বিয়ের পর আসলে এসব মেনে নেওয়া ছাড়া উপায় থাকে না। তাই বিয়ের আগে কি করতে হবে। বিয়ের ব্যাপারে আমাদের খুব পার্টনারের জন্য নিজেকে কতটা পাল্টাতে হবে সতর্ক থাকতে হবে। তাই সারাজীবন সুখী থাকা সৌন্দর্য নয়, দেখুন এমন কিছু গুণ যা আপনার পরিবারে সুখ আনবে।

বিয়ের আগে শারীরিক সম্পর্ক করলে কি হয়

বিয়ের আগে শারীরিক সম্পর্ক করলে কি হয় আসুন দেখে নেওয়া যাক একটি মেয়ে সম্পর্কে আপনার জানা দরকার এমন কিছু বৈশিষ্ট্য। আর সেই মেয়েটির মধ্যে এই গুণগুলো থাকলেই তুমি সুখী হবে বিয়ের আগে শারীরিক সম্পর্ক করলে কি হয় একজন সৎ ও গুণী মেয়েকে বিয়ে করো। কারণ তোমার ঘরের বউ যদি সৎ ও গুণী না হয় তাহলে সে পৃথিবীতে কখনো সুখ আসবে না। বিয়ের জন্য দায়ী মেয়ে বেছে নিন। যা সবাইকে সমানভাবে দেখভাল করবে। তাহলে পরিবার সুখী হবে। সরল ও ধার্মিক প্রকৃতির মেয়েকে বিয়ে কর। কারণ এই ধরনের মেয়েরা তাদের স্বামীর প্রতি একটু নরম এবং বেশি অনুগত থাকে। এবং সে আপনাকে খুশি করার জন্য যথেষ্ট চেষ্টা করবে। বিয়ের জন্য শান্ত মেয়ে বেছে নিন।

অর্থাৎ যে মেয়েরা চুপচাপ ও ভদ্র, বা যারা বেশিরভাগ সময় চুপচাপ থাকে বিয়ের আগে শারীরিক সম্পর্ক করলে কি হয়, খুব নরম কথা বলে, এমন মেয়ে বেছে নিন যে খুব নরম কথা বলে। যে সুশিক্ষিত তাকে বিয়ে কর। তাহলে আপনার পরিবার সৃজনশীল হবে। নইলে রসাতলে যাবে। যাকে বিয়ে করছেন তার কথায় কাজ করা কি ঠিক হবে? হ্যাঁ, যেসব মেয়েরা কথায় কথায় সৎ এবং কথাবার্তা বলে বিয়ের আগে শারীরিক সম্পর্ক করলে কি হয়, তারা বিয়ের জন্য এই রূপের মেয়েকেই বেছে নেয়। সবাই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন মানুষ পছন্দ করে। তাই অপবিত্র নয় এমন মেয়ে বেছে নিন।

 

বিয়ের আগে যা জানা উচিত

বিয়ের আগে যা জানা উচিত যে মেয়ের মধ্যে এই সাতটি বৈশিষ্ট্য আছে তাকে অবশ্যই ভালো মানুষ হতে হবে। এই রূপের মানুষকে বিয়ে করলে সুখী হওয়ার সম্ভাবনা শতভাগ। তাই সময়মতো জীবনসঙ্গী বিয়ের আগে যা জানা উচিত হিসেবে বেছে নিন সঠিক মানুষকে। বোকা ছেলে, সরল ছেলে বিয়ের জন্য সেরা। আর রক্ষণশীল মেয়েরা বিয়ের জন্য ভালো। ছেলে হলে সবার আগে জেনে নিন ছেলের বাবা কেমন আর মেয়ে হলে সবার আগে জেনে নিন মেয়ের মা কেমন।

ছেলের কি বংশ। ছেলে বা মেয়ের বাবা-মায়ের চরিত্র কেমন বিয়ের আগে যা জানা উচিত বা তাদের জীবনে কোনো খারাপ ঘটনা ঘটে কিনা তা জানার চেষ্টা করুন। এই কারণেই আমি পিতামাতার চরিত্রের কথা বলি বিয়ের আগে যা জানতেই হবে কারণ 90% ক্ষেত্রে চরিত্রহীন/লম্পট পিতামাতার সন্তানরাও চরিত্রহীন/লম্পট। এরকম অনেক উদাহরণ আমি দেখেছি। বিয়ের আগে বাবা-মা সন্তানদের পাপ বহন করে বলে মনে হয়। তাই এটা নিয়ে ভাবুন। কারণ বিয়ের আগে যা জানা উচিত আপনি চান না আপনার সন্তানরা লম্পট হোক।

 

বিয়ের আগে হবু স্বামী-স্ত্রী অবশ্যই করুন

বিয়ের আগে হবু স্বামী-স্ত্রী অবশ্যই করুন চরিত্রটি ব্যান কিনা তা যাচাই করতে হবে। আসলে শারীরিক যৌন ক্ষুধা কয়েক দিনের জন্য মেটানো চেহারা দিয়ে বিয়ের আগে হবু স্বামী-স্ত্রী অবশ্যই করুন, 60 বছর ধরে একটি চরিত্র থাকার বিকল্প নেই। সে হবে বিনয়ী, সভ্য, ভদ্র ও বিনয়ী। মিষ্টি কথাবার্তা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই লম্পট হয়। মিষ্টি কথা মনের পাপ গোপন করে। কিন্তু মিষ্টভাষী চরিত্র ভিন্ন। পরিবারটি ধার্মিক বিয়ের আগে হবু স্বামী-স্ত্রী অবশ্যই করুন কিনা তা খুঁজে বের করুন। ছেলে বা মেয়ের জীবনধারা দেখুন। উরন চণ্ডী, আপনি যদি মুক্তমনা হন তবে আগে থেকেই বাদ দিন। তাদের মধ্যে বড় জুটি হতে পারে শুধু বন্ধু, মেয়ে/বন্ধু বা ফ্ল্যাট। এগুলো বিয়ের বাজারে বিয়ের আগে হবু স্বামী-স্ত্রী অবশ্যই করুন স্থির মুদ্রার মতো। স্থাবর মুদ্রাকে পিষে ফেলা সম্ভব, কিন্তু বাজারে তোলা যায় না।

 

বিয়ের আগে অতীত শারীরিক সম্পর্কের বিষয়ে কি জানানো উচিত

বিয়ের আগে অতীত শারীরিক সম্পর্কের বিষয়ে কি জানানো উচিত আপনি ছেলে এবং মেয়েদের স্মার্টনেস দেখে শালীনতা বিবেচনা করতে পারেন। ছেলেটির চুল কাটা দেখুন। বন্ধুর দিকে তাকান এবং ছেলে বা মেয়েটি দেখতে কেমন তা সম্পর্কে ধারণা নিন। ছেলে মেয়েদের বই পড়ার বিয়ের আগে অতীত শারীরিক সম্পর্কের বিষয়ে কি জানানো উচিত অভ্যাস আছে কিনা জেনে নিন। পড়লেও বুঝবেন কার বই পড়ছেন। আপনি শারীরিকভাবে সুস্থ কিনা তা জানার চেষ্টা করুন। না জানলে পরে অশান্তি হতে পারে। এখানে কয়েকটি জিনিস রয়েছে যা আপনার বাইরে বিয়ের আগে অতীত শারীরিক সম্পর্কের বিষয়ে কি জানানো উচিত থেকে জানা উচিত। কিছু বাদ যেতে পারে। আমি আশা করি আপনি এটি বুঝতে পেরেছেন।

বিয়ের আগে কী কী মেডিকেল টেস্ট জরুরী

বিয়ের আগে কী কী মেডিকেল টেস্ট জরুরী আজকের নিবন্ধটি শুধুমাত্র তাদের জন্য যারা বিয়ে করার পরিকল্পনা করছেন। আজ আমি আপনাদের এমন কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিয়ের আগে কী কী মেডিকেল টেস্ট জরুরী বলব যা সবার জানা দরকার। কিছু রোগ আছে যা বাইরে থেকে বোঝা যায় না কিন্তু বিয়ের পর বিয়ের আগে যা জানতেই হবে তা সহজেই স্বামী থেকে স্ত্রী, স্ত্রী থেকে স্বামী বা সন্তানদের মধ্যে ছড়াতে পারে। একটু সচেতনতা এবং কিছু প্রাক-পরীক্ষার মাধ্যমে বিয়ের আগে কী কী মেডিকেল টেস্ট জরুরী রোগটিকে ধরা এবং নিরাময় করা বা পরিবারের মধ্যে ছড়িয়ে পড়া রোধ করা সম্ভব।

১/ থ্যালাসেমিয়া পরীক্ষা
থ্যালাসেমিয়া সম্পূর্ণ প্রতিরোধযোগ্য। একটি সাধারণ রক্ত ​​​​পরীক্ষা শিশুর থ্যালাসেমিয়া আছে কিনা তা বলতে পারে। রোগটি পিতামাতার কাছ বিয়ের আগে যা জানতেই হবে থেকে সংক্রামিত হয়। বাবা-মায়ের থ্যালাসেমিয়া মাইনর (কোন উপসর্গ) না থাকলেও  বিয়ের আগে যা জানতেই হবে এই জটিল রোগ শিশুর মধ্যে ছড়াতে পারে।

করণীয়: বিয়ের আগে দুজনকেই রক্ত ​​পরীক্ষা করাতে হবে। এরপর জানা যাবে শিশুটির থ্যালাসেমিয়া আছে কি না। রক্ত পরীক্ষার নাম – এইচবি ইলেক্ট্রোফোরেসিস। একটি পরীক্ষায় প্রায় দেড় হাজার টাকা খরচ হলেও বিয়ের আগে যা জানতেই হবে ভবিষ্যতে লাখ লাখ টাকার কথা ভাবলে তেমনটা হয় না। আর তিন ধরনের পরীক্ষার ফলাফল আসতে পারে।

দুজনের কারোরই রক্তের কোনো সমস্যা নেই। ফলে শিশুর থ্যালাসেমিয়া নিয়ে কোনো টেনশন নেই। দুইজনের একজনের থ্যালাসেমিয়া মাইনর আছে। শিশুর থ্যালাসেমিয়া নিয়ে চিন্তার কোনো কারণ নেই তবে নবজাতকের থ্যালাসেমিয়া হওয়ার সম্ভাবনা ৫০%। এর মানে শিশুটি অসুস্থ হবে না তবে থ্যালাসেমিয়ার বাহক হতে পারে। দুই জনের থ্যালাসেমিয়া মাইনর ধরা পড়ে। এই ক্ষেত্রে, শিশুর থ্যালাসেমিয়া নিয়ে জন্ম নেওয়ার সম্ভাবনা 25%, স্বাভাবিক সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা 25% এবং থ্যালাসেমিয়া মাইনর নিয়ে জন্মগ্রহণ করার সম্ভাবনা 50%। এমন পরিস্থিতিতে ভবিষ্যত দম্পতিকে ঠিক করতে হবে তারা আদৌ বিয়ে করবেন কি না। যদি তাই হয়, তারা শিশুটিকে নেবে কিনা বা সানটান থ্যালাসেমিয়ার জন্য পজিটিভ হলে তারা প্রস্তুত কিনা ইত্যাদি।

২/ হেপাটাইটিস বি পরীক্ষা
হেপাটাইটিস বি একটি ভাইরাস যা লিভারের গুরুতর সমস্যা সৃষ্টি করে। এমনকি ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। কিন্তু যাদের শরীরে এই ভাইরাস আছে তারা অনেকেই জানেন না যে তারা এই ভাইরাসে আক্রান্ত। তাই অজান্তেই তারা অন্য মানুষের মধ্যে ভাইরাস ছড়িয়ে দেয়। অনিরাপদ সহবাস করলে ভাইরাসটি একজন থেকে অন্য ব্যক্তিতে ছড়াতে বিয়ের আগে যা জানতেই হবে পারে। এর মানে স্বামী-স্ত্রী সহজেই ভাইরাস ছড়াতে পারে। তাই বিয়ের আগে দুজনেরই বিয়ের আগে যা জানতেই হবে তা যাচাই করা উচিত। যদি একজন সংক্রামিত হয় তবে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত যাতে এটি অন্যের মধ্যে ছড়িয়ে না পড়ে।

এর জন্য যে পরীক্ষাটি করতে হবে- HbsAg এবং Anti-HBC উভয়েরই নেগেটিভ আসলেই উদ্বেগের কারণ নয়, তবে আগে না নেওয়া হলে ভবিষ্যতে নিরাপদ থাকার জন্য টিকা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশে 2003 সালে টিকা দেওয়া শুরু হয়। তাই আপনার জন্মের আগে আলাদাভাবে টিকা নেওয়ার প্রয়োজন হতে পারে। আপনার পরীক্ষা পজিটিভ হলে, আপনার ডাক্তার আপনাকে আরও কিছু পরীক্ষা দিতে পারেন। এবং আপনার ডাক্তার আপনাকে পরামর্শ দেবেন যে আর কি করা যেতে পারে, যার মধ্যে সহবাসের সময় কনডম ব্যবহার করা, বিয়ের পরে একজন থেকে অন্য ব্যক্তির মধ্যে ভাইরাসের বিস্তার রোধ করতে।

অনেকে মনে করতে পারেন এটি যৌনবাহিত রোগ। যেহেতু আমি আগে সহবাস করিনি তাই আমরে হবে না। এটি একটি ভুল ধারণা। যৌন মিলন ছাড়াও আরও অনেক উপায়ে ভাইরাস ছড়াতে পারে বিয়ের আগে যা জানতেই হবে। যেমন, আক্রান্ত ব্যক্তির রক্ত, বীর্য এবং সাদা স্রাবের মাধ্যমে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই একই ব্লেড, রেজার বা এমনকি টুথব্রাশ, একই সুই, আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে একই ইনজেকশন, ডাক্তারের যন্ত্রপাতি, রক্তদান এমনকি জন্মের সময়ও মা থেকে শিশুর মধ্যে ভাইরাস ছড়াতে পারে।

৩/ হেপাটাইটিস সি পরীক্ষা
হেপাটাইটিস সি, হেপাটাইটিস বি এর মতোই একটি ভাইরাস যা লিভারের অনেক ক্ষতি করতে পারে। এটি সাধারণত রক্তের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। হেপাটাইটিস সি একই সুই বা ইনজেকশন ব্যবহার করে ছড়াতে পারে যাতে আক্রান্ত ব্যক্তির রক্ত হতে পারে, যদি চিকিৎসা সরঞ্জাম জীবাণুমুক্ত না করা হয়। লিভারের খুব বেশি ক্ষতি না হলে সাধারণত কোনো লক্ষণ দেখা যায় না। এর মানে এই যে, অনেকেই অজান্তেই এই ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন।
ভাইরাস অন্যদের মধ্যে ছড়াতে পারে। অসুরক্ষিত মিলনের মাধ্যমে এবং মা থেকে সন্তানের মধ্যে ছড়িয়ে পড়তে পারে। যদিও এভাবে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা খুবই কম। তবে যেহেতু স্বামী-স্ত্রীর একে অপরের মধ্যে এবং মা থেকে সন্তানের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা কম, তাই পরীক্ষা করাই ভালো। আপনি অ্যান্টি-এইচসিভির জন্য এই পরীক্ষাটি দিতে পারেন। খরচ হতে পারে এক থেকে দেড় হাজার টাকা। প্রকৃতপক্ষে, আপনার ডাক্তার আপনাকে নিশ্চিত করতে এবং সেই অনুযায়ী চিকিত্সা করার জন্য আপনাকে আরও কিছু পরীক্ষা দিতে পারে। হেপাটাইটিস সি চিকিৎসার মাধ্যমে সম্পূর্ণ নিরাময় করা যায়।

৪/ এইচ আইভি পরীক্ষা
এইচআইভি সম্পর্কে আমরা শুধু সংখ্যায় জানি। সংক্রমিত ব্যক্তির সাথে যৌন মিলনের মাধ্যমে ভাইরাসটি ছড়ায়। তবে আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে একই সুই বা ইনজেকশন ব্যবহার করে মা থেকে ছেলেতে ভাইরাস ছড়াতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে, ভাইরাস অনেক বছর ধরে কোনো উপসর্গ নাও দেখাতে পারে। নিশ্চিত হওয়ার জন্য, এই পরীক্ষাটি করতে হবে – HIV ag/Ab এবং এর জন্য 800 থেকে 1000 টাকা খরচ হতে পারে। পজিটিভ আসলে চিকিত্সার জন্য ওষুধ শুরু করতে পারে যা আপনার রক্তে ভাইরাসের পরিমাণ কমিয়ে দেবে। কয়েক মাসের মধ্যেই ভাইরাসের পরিমাণ এতটাই কমে যেতে পারে যে আপনি আর কাউকে ছড়াতে পারবেন না।

৫/ যৌনবাহিত রোগ পরীক্ষা
অনেকেই যৌনবাহিত রোগে ভোগেন কিন্তু জানেন না। পরীক্ষা দিলেই ধরা পড়ে। ফলস্বরূপ, অনেকেরই কোন উপসর্গ নেই, তাই তাদের পরীক্ষা বা চিকিৎসা করা হয় না। পরবর্তীতে বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যাসহ সন্তান ধারণে সমস্যা হতে পারে। কিন্তু অসময়ে কয়েকদিন ওষুধ সেবন করলে এ রোগ সেরে যেত। এখানে 4টি সাধারণ যৌনবাহিত রোগ রয়েছে:

৬/ রক্তের গ্রুপ
বিয়ের আগে রক্তের গ্রুপ জানা জরুরী নয়। অনেকেরই ধারণা যে, স্বামী-স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ একই থাকার সুবিধার কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। আমি এখানে উল্লেখিত সমস্ত পরীক্ষার কারণ ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেছি। বিয়ের আগে পরীক্ষা করা কেন জরুরী। বিয়ের আগে দম্পতি ডাক্তারের পরামর্শ নিলে ভালো হয়। তিনি আপনার পরিবারের রোগ এবং আপনার স্বাস্থ্য বিবেচনা করে আরও ভাল পরামর্শ দিতে সক্ষম হবেন। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল যে পরীক্ষাগুলি ইতিবাচক হলেই বিয়ে সম্ভব নয়। অনেক রোগের চিকিৎসা আছে যাতে এক ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তিতে ছড়িয়ে না পড়ে। এখানে শুধু কিছু তথ্য আছে। সিদ্ধান্ত নেওয়ার দায়িত্ব আপনার।

 

বিয়ের আগে ছেলেদের করনীয়

বিয়ের আগে ছেলেদের করনীয় সময়ের সাথে সাথে আমরা আধুনিকতার ঘোড়ায় চড়ছি। চলার পথে, জামা, আশা, চিন্তা, আমাদের আধুনিকতা। আজ আমরা বুঝি বিয়ের অন্যান্য প্রস্তুতির মতো মানসিক প্রস্তুতিও এখন চিন্তার বিষয়। কিন্তু অনেক সময়ই এমন হয় যে বিয়ের মতো বিষয়ের জন্য বাচ্চাদের আগে বিয়ের আগে ছেলেদের করনীয় থেকে কোনো মানসিক প্রস্তুতি থাকে না। পারিবারিকভাবে সাজানো বিয়ে, যেখানে শিশুরা একে অপরকে জানতে পারে না। আবার প্রেমের বিয়ের পর পরিবারের সম্মতিতেও হতে পারে। এই ধরনের বিবাহে, পিতামাতারা মনে করেন যেহেতু তারা ইতিমধ্যে পরিচিত বিয়ের আগে ছেলেদের করনীয়, তাই নতুন করে প্রস্তুতি নেওয়ার দরকার নেই। এই ধারণা সঠিক নয়।

 

কোন রোগ হলে বিয়ে করতে হয়

কোন রোগ হলে বিয়ে করতে হয় আপনি যতই পরিচিত হোন না কেন, বিয়ের পর বাস্তব জীবনের মুখোমুখি হতে হবে। তখন কারো স্বপ্ন ভেঙ্গে যায়। তাই বিয়ের আগে রোমান্সের পাশাপাশি বিয়ের আগে যা জানতেই হবে কোন রোগ হলে বিয়ে করতে হয় বাস্তব চিন্তাও করতে হবে। মেয়ে বা ছেলে হয়তো জীবনের বাস্তবতা আগে বুঝতে পারে না। তাই বাবা-মা বা তার কাছের কোন রোগ হলে বিয়ে করতে হয় কেউ তাকে জীবনের বাস্তবতা ইতিবাচকভাবে ব্যাখ্যা করতে পারে।

 

বিয়ের আগে কেন নারীদের মনে হাজারো প্রশ্ন উঁকি দেয়

বিয়ের আগে কেন নারীদের মনে হাজারো প্রশ্ন উঁকি দেয় উভয় শিশুরই একে অপরের পরিবারের সাথে মানিয়ে নেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে। সেক্ষেত্রে দাম্পত্য জীবনের অনেক সমস্যা এড়ানো যায়। আপনার পরিবার ও সমাজের প্রতি দায়িত্বশীল হতে হবে। কারো স্বভাবের কোনো নেতিবাচক দিক থাকলে বিয়ের আগে কেন নারীদের মনে হাজারো প্রশ্ন উঁকি দেয় সেগুলো সংশোধন করার চেষ্টা করা উচিত।

পারিপার্শ্বিকতার মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। প্রতিটি পরিবারের নিজস্ব নিয়ম-কানুন রয়েছে। একটু আগে থেকে জেনে নিলে পরের বার বিয়ের আগে যা জানতেই হবে নতুন বিয়ের আগে কেন নারীদের মনে হাজারো প্রশ্ন উঁকি দেয় সদস্যদের বুঝতে সুবিধা হবে। এসব ক্ষেত্রে শুধু মেয়েরাই মানিয়ে নেবে বিয়ের আগে কেন নারীদের মনে হাজারো প্রশ্ন উঁকি দেয়, তা নয়। ছেলেটিকে বরং সহযোগিতামূলক হতে হবে।

 

বিয়ের আগে কনে কি কি প্রস্তুতি নিবেন

বিয়ের আগে কনে কি কি প্রস্তুতি নিবেন মেয়েটি সবকিছু ছেড়ে তাদের সংসারে আসছে। এতে ছেলেটির পরিবারের বড় ভূমিকা রয়েছে। ছেলেকে বলা উচিত ছোটখাটো বিয়ের আগে যা জানতেই হবে বিষয়ে বিয়ের আগে কনে কি কি প্রস্তুতি নিবেন স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া না করতে। কোনো সমস্যা হলে খোলাখুলি আলোচনা করা উচিত। অনেক মেয়েই তাদের শাশুড়িকে নিয়ে চিন্তিত। বিয়ের আগে সুযোগ থাকলে ছেলের পরিবার মেয়েটির সঙ্গে কথা বলতে পারে। তবে শুরুতে বিয়ের আগে কনে কি কি প্রস্তুতি নিবেন মেয়েটিকে নেতিবাচক কিছু বলা উচিত নয়।

বিয়ের আগে কি করবেন

বিয়ের আগে কি করবেন বিভিন্ন মনোবিজ্ঞানীদের পর্যালোচনা অনুসারে, একটি ছেলের বাসস্থান বিয়েতে খুব বেশি পরিবর্তন হয় না। কিন্তু একটা মেয়েকে উপড়ে ফেলা হল। যে ঘরে তার সোনালী শৈশব-কৈশোর কেটেছে তার বাবা-মা এবং ভাইবোনদের সাথে বিয়ের আগে কি করবেন তাকে উপড়ে ফেলতে হয়েছে। এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় গাছ লাগানোর জন্য কনের মতোই যত্নের প্রয়োজন। কনেকে যেতে হয় শ্বশুরবাড়িতে বিয়ের আগে যা জানতেই হবে। নতুন পরিবেশে। তাই নতুন পরিবেশে এই নতুন অতিথিকে বরণ করে বিয়ের আগে কি করবেন নিতে হয় কন্যার মতো। বোন হিসেবে। তবে জয়ের ভয় থাকবে না। এক্ষেত্রে স্বামীর ভূমিকা এবং ছেলের আন্তরিকতার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।

রংপুর ডেইলী রংপুরের সবচেয়ে আপডেট সংবাদ দেশ ও আন্তজার্তিক নিউজ প্রকাশে বাধ্য থাকিবে। রংপুরের সব রকমের নিউজ পেতে রংপুর ডেইলী ভিজিট করুন