বিপাকীয় হার জানতে হবে কেন?

আমাদের দেহের মধ্যে চলে বিপাক প্রক্রিয়া।এই বিপাকের হার সম্পর্কে আমরা অনেকেই অবগত না।আজকে বিপাকের হার নিয়ে থাকছে বিস্তারিত।

BMR বা Basal Metabolic Rate এর অর্থ হলো মূলগত বিপাকীয় হার।ব্যাসাল কন্ডিশনে একজন ব্যক্তি যে পরিমাণ শক্তি খরচ করেন তাকেই বলা হয় বিএমআর বা মূলগত বিপাকীয় হার।
ব্যাসাল কন্ডিশন বলতে বুঝায়-
১. ১২ ঘন্টা না খেয়ে থাকা
২. পুরো রাত ভালো ঘুম
৩. জাগা
৪. সম্পূর্ণ মানসিক এবং শারীরিক বিশ্রাম
৫. উপযুক্ত পরিবেশের তাপমাত্রা এবং চাপ।

এই অবস্থায় যে শক্তি একজন ব্যক্তি খরচ করেন তা মূলত শারীরবৃত্ত্বীয় কাজে ব্যবহৃত হয়।যেমন-
1.cardiac activity
2.respiratory activity
3.renal function
4.neural activity
5.GIT movement
6.temperature regulation
7.muscle tone maintenance
8.ion transport
9.synthesis of enzyme,hormone etc.

আমরা যে পরিমাণ শক্তি ব্যবহার করি তার ৬০-৭০% ই বিএমআর।৪৫% বিএমআর আয়ন পরিবহনের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।বিশেষ করে সোডিয়াম পটাশিয়াম পাম্পে।

বিএমআর এর সাধারণ পরিমাণ-
৪০ কিলোক্যালরি/বর্গমিটার/ঘন্টা বা ৩০ কিলোক্যালরি/কেজি/দিন।
প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের জন্য এর মান ২০০০ কিলোক্যালরি/দিন এবং প্রাপ্তবয়স্ক নারীর ক্ষেত্রে ১৬০০ কিলোক্যালরি/দিন।

যেসব প্রভাবক বিএমআর কে প্রভাবিত করে তারা হলো-
১.বয়স
২.লিঙ্গ
৩.দেহের ওজন
৪.জীবনযাত্রা
৫.বিভিন্ন হরমোন
৬.আবহাওয়া
৭.পুষ্টি
৮.রোগ
৯.জেনেটিক ফ্যাক্টর
১০.গর্ভাবস্থা।

বিএমআর এর গুরুত্ব হলো-
একজন ব্যক্তির কি পরিমাণ শক্তির প্রয়োজন হবে তা বিএমআর এর মাধ্যমে জানা যায়।ফলে ব্যক্তি কতটুকু খাদ্য গ্রহণ করবে তা বুঝতে সুবিধা হয়।

©দীপা সিকদার জ্যোতি

Leave a Comment