বিএনপিকে রাষ্ট্রপতির সংলাপে আমন্ত্রণ

নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠন নিয়ে চলমান রাষ্ট্রপতির সংলাপে বিরোধী দল বিএনপিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। আগামী ১২ জানুয়ারি বিকেল চারটায় তাদের সঙ্গে সংলাপের অংশ নিতে বলা হয়েছে। একই দিন সন্ধ্যা ছয়টায় ন্যাশনাল পিপলস পার্টিকে (এনপিপি) সংলাপের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

রাষ্ট্রপতির দপ্তর থেকে আজ বুধবার বিএনপি ও এনপিপিকে সংলাপের আমন্ত্রণপত্র পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

কে এম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি। তার আগেই নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে। এজন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার খুঁজে পেতে একটি সার্চ কমিটি তৈরি হবে। এই সার্চ কমিটি গঠনে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ করছেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ।

রাষ্ট্রপতির দপ্তর থেকে পাওয়া তথ্য অনুসারে, এখন পর্যন্ত ২৮টি রাজনৈতিক দলকে সংলাপে অংশ নেওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৮টি দল এরইমধ্যে সংলাপে অংশ নিয়েছে।

রাষ্ট্রপতির এই সংলাপ শুরু হওয়ার পর বিএনপির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির বৈঠকে ‘অর্থহীন’ কোনো সংলাপে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ওই বৈঠকের পর বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়, তাদের প্রধান অগ্রাধিকার নির্বাচনকালীন নিরেপক্ষ সরকার। নির্বাচন কমিশন নিয়ে তাদের তেমন বলার কিছু নেই। তবে চিঠি পাওয়ার পর দলটি সংলাপে অংশ নেওয়ার বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নেবে, তা এখনো জানা যায়নি। এরমধ্যে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, সংলাপে অংশ নিলে সেটা বিএনপির জন্যও ভালো হবে।

তবে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) ও ইসলামি আন্দোলন সংলাপে অংশ নেয়নি। তারা বলেছে, ২০১২ ও ২০১৬ সালে দুদফা সংলাপে অংশ নিয়ে তারা যে সব প্রস্তাব দিয়েছে, সেগুলোর কোনোটিরই মূল্যায়ন করা হয়নি। ফলে নতুন করে বলার কিছু নেই।

Leave a Comment