বাস-ট্রেন বাদে সবই চলেছে

সরকার দেশে করোনভাইরাস সংক্রমণের উপর নিষেধাজ্ঞা বাড়িয়েছে। গতকাল ছিল কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় পর্বের প্রথম দিন। কড়া কথা বলতে গেলে আসল ছবিটি ছিল অন্যরকম। রাস্তায় মানুষের উপস্থিতি লক্ষণীয় ছিল। দোকান খোলা ছিল। পুলিশ চেকপোস্টগুলিও ঢিলেঢালা ছিল। বাস ও ট্রেন বাদে সব ধরণের যানবাহনও চলাচল করতে দেখা গেছে।

জানা গেছে, নিষেধাজ্ঞার সময় সরকার জরুরি প্রয়োজনে রাস্তায় নামা না করার নির্দেশনা দিয়েছিল। যদিও বেশিরভাগ মানুষ একমত হয় না। তারা বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে রাস্তায় বের হচ্ছে। আইন প্রয়োগকারীরা জরিমানা করার পরেও নগরবাসীকে বাড়িতে রাখতে সক্ষম নয়। বিশেষজ্ঞরা নিষেধাজ্ঞার সুবিধা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। এদিকে দ্বিতীয় পর্বের বিধিনিষেধের কারণে যান চলাচল বেড়েছে। সব ধরণের যানবাহন এখন বাস ও ট্রেন বাদে রাস্তায় চলাচল করছে। প্রথম নজরে দেখে মনে হচ্ছে, রাজধানীতে কোনও বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়নি। গণপরিবহন ধর্মঘট চলছে বলে মনে হচ্ছে।

অন্যদিকে, সীমাবদ্ধতার সময়ও স্বাস্থ্যবিধি পুরোপুরি উপেক্ষা করা হচ্ছে। রাস্তায় বেরিয়ে আসা বেশিরভাগ লোক স্বাস্থ্যবিধি নিয়ম মানেন না। অনেকে মুখোশ পরে তবে তাদের চিবুকের নীচে রাখে। গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ছবিটি দেখা গেছে।

রাস্তায় লোকেরা বলেছিল যে বাড়িতে তাদের পক্ষে থাকা আর সম্ভব হয় না। যারা বেরিয়ে এসেছেন তারা সবাই স্বল্প আয়ের মানুষ বলে দাবি করছেন। তারা বলে, এতক্ষণ বাড়িতে থাকলে আপনি না খেয়ে মরে যাবেন। তাই বেঁচে থাকার জন্য কাজের সন্ধানে রাস্তায় নেমেছিলেন তিনি।

উত্তর বাড্ডায় খেলনার দোকান নিয়ে বসে থাকা আজম আলী বলেছিলেন, “আমি এত দিন বাড়িতে ছিলাম।” কেউ আমাদের সহায়তা করেনি। কেউ আমাদের ত্রাণ এনে নি। আমরা স্বল্প আয়ের মানুষ, বেশিদিন বাড়িতে খাওয়া সম্ভব হয় না। এ ছাড়া Eidদ আসছে, আমি এখন কিছু অর্থ উপার্জন না করলে কীভাবে পরিবারের সাথে ঈদ উদযাপন করব।

তবে আর্থিক সংকটের কারণে অনেক লোক বাড়িঘর ছেড়ে চলে গেলেও স্বজনদের সাথে দেখা করতে যাওয়া মানুষের সংখ্যাও কম নয়। সানজিদা খাতুন রামপুরা ব্রিজ থেকে সিএনজি অটোরিকশায় করে আজিমপুরে তার বোনের বাড়িতে যাবেন। কেন তিনি জরুরি অবস্থা ছাড়াই রাস্তায় নেমেছিলেন জানতে চাইলে তিনি বলেছিলেন যে তিনি দীর্ঘদিন ধরে তার বোনের বাড়িতে ছিলেন না। এখন প্রচুর লোক রাস্তায় যাতায়াত করে এবং পুলিশ খুব বেশি কিছু বলে না। তাই আমি এই ফাঁকে আমার বোনের বাড়ি থেকে ফিরে আসতে এসেছি। হাইজিনের নিয়ম মেনে বাড়ি ছেড়ে চলে গেলাম।

এছাড়াও প্রথম পর্বের বিধিনিষেধের মতো দ্বিতীয় পর্বেও রাজধানীর বিভিন্ন অঞ্চলের গলিগুলিতে চায়ের দোকানে আড্ডা দেওয়া এবং রাস্তার পাশে বসে বা দাঁড়িয়ে থাকা গসিপ চলছে। এদিকে, ক্ষতিগ্রস্থ অঞ্চলে অস্থায়ী পুলিশ চেকপোস্টগুলিও শিথিলতা দেখিয়েছে। নিষেধাজ্ঞার প্রথম পর্যায়ে পুলিশ চেকপোস্টগুলি আর কার্যকর ভূমিকা পালন করছে না। এছাড়াও, সীমাবদ্ধতা কার্যকর করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলির কার্যক্রমও হ্রাস পেয়েছে।

পুলিশ আধিকারিকরা বলছেন যে অনেক লোক সবেমাত্র জরুরি কাজে এসেছেন। যারা ইতিমধ্যে জরুরি কাজে বেরোনোর ​​সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা মুভমেন্ট পাস নিয়ে বেরিয়ে আসছেন। এবং যারা জরুরি কাজের জন্য ছুটে এসেছিলেন তারা আন্দোলন পাস নিয়ে বের হতে পারেননি। তবে তারা উপযুক্ত কারণ দেখাতে সক্ষম। তবে আরও একটি গ্রুপ যারা জরুরি কাজের অজুহাতে বেরিয়ে আসে তবে তাদের কোনও জরুরি কাজ হয় না। এই মানুষের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। পুলিশ তাদের চেকপোস্টে থামানোর চেষ্টা করছে। এমনকি তাদের জরিমানা করে দেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে।

এদিকে, প্রথম সপ্তাহে রাজধানীর পুরান ঢাকা, মিরপুর, ধানমন্ডি, মতিঝিল, শাহবাগ এবং নিউ মার্কেট এলাকায় চেকপোস্টগুলিতে পুলিশের ভূমিকা অত্যন্ত কঠোর ছিল। একটি পুলিশ গাড়ি চেক পোস্ট ছাড়া চেকপোস্ট থেকে বেরোতে পারে না। তবে লকডাউনের দ্বিতীয় পর্যায়ে পুলিশের কঠোরতা তো দূরের কথা, তাদের চেকপোস্টে দাঁড়িয়ে দেখা যায়নি। রাজধানীর ব্যস্ততম কারওয়ান বাজারের কোনায় পুলিশ চেকপোস্টটি দেখা যায়নি। দু’জন তিনজন পুলিশ যানটির সিগন্যাল দেওয়ার জন্য দাঁড়িয়েছিল, তবে কোনও যানবাহন চেক করতে দেখা যায়নি। একই চিত্র কল্যাণপুর, শ্যামলী, আসাদগেট, মোহাম্মদপুর, ঢাকা উদ্যান, বাংলামোটর, কাকরাইলের মাটিতে দেখা যাবে।

প্লাটুনের ইনচার্জ মতিঝিল জোনের ট্র্যাফিক সার্জেন্ট মো। আরেফিন আকন্দ জানান, গত সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে আরও বেশি লোক বের হলেও তাদের বেশিরভাগই আন্দোলন পাস নিয়ে বেরিয়ে আসছেন। যদি ২০ টি যানবাহনের চলাচল পাসগুলি চেক করা হয় তবে কেবল ১৯ টি গাড়িতে পাস পাওয়া যায়। মানুষ আগের চেয়ে বেশি সচেতন হয়েছে। অন্তত মাস্কটি পরে বেরিয়ে আসছে এবং চলাচলকে পাস দিয়ে রাখছে।

Leave a Comment