বদরগঞ্জের নৌকায় সিল মারা ব্যালট উদ্ধার, হাজার-হাজার মানুষের বিক্ষোভ

রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের মোস্তফাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের পাশে নৌকায় সিল মারা ব্যালট পেপার পাওয়ার ঘটনায় হাজার হাজার মানুষ একত্রিত হয়ে বিক্ষোভ করে।

আজ মঙ্গলবার (২৮ ডিসেম্বর ) দুপুরে এ ঘটনাটি ঘটে।এসময় পুলিশকে অবরুদ্ধ করে রাখে নৌকা প্রতিকের পক্ষের বিক্ষোভকারীরা। পরে খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আজ দুপুরে ওই কেন্দ্রের পাশে দশম শ্রেণীর ছাত্র রিয়াজুল ইসলাম নৌকা প্রতীকে সিল মারা বেশকিছু ব্যালট পেপার দেখতে পেয়ে বিষয়টি স্থানীয়দের জানায়। খবর পেয়ে সেখানে পুলিশ উপস্থিত হয়। ঘটনা জানাজানির পর হাজার হাজার জনতা নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আজিজুল হক সরকারের পক্ষে জড়ো হয়ে পুলিশকে ঘিরে ফেলে।

এ সময় তারা অভিযোগ করেন, কেন্দ্রটির পুলিশ এবং প্রিজাইডিং অফিসার মোটরসাইকেল প্রতীকের (স্বতন্ত্র) প্রার্থীকে বিজয়ী করতে নৌকা প্রতীকের ব্যালট পেপার কেন্দ্রের বাইরে ফেলে দিয়েছে এবং পুড়ে ফেলেছে।সেকারণে নৌকা প্রতীক হেরে গেছে। তারা পুনরায় ভোট গ্রহণ এবং জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। পরে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আজিজুল হক সরকার উপস্থিত জনতাকে শান্ত করেন।

এ বিষয়ে বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান জানান, আমরা চারটি ব্যালট পেপার উদ্ধার করেছি। উদ্ধার হওয়া ব্যালটের মধ্যে একটিতে নৌকার সিল মারা এবং অপরটিতে মহিলা সংরক্ষিত প্রার্থীর প্রতীকে সিল মারা।তিনি আরও জানান আজিজুল হক সরকার পরপর তিনবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি অভিজ্ঞ মানুষ বিষয়টি নিয়ে তিনি আইনগত ব্যবস্থা নিলে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

গত ২৬ শে ডিসেম্বর চতুর্থ ধাপের নির্বাচনে ৯নং দামোদরপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান আজিজুল হক সরকার মোটরসাইকেল প্রতীকের (স্বতন্ত্র) প্রার্থী আবুবকর সিদ্দিকের কাছে মাত্র ৪৩ ভোটে হেরে যান।

নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আজিজুল হক সরকার অভিযোগ করে বলেন, মোস্তফাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দায়িত্বে ছিলেন সাইদুল ইসলাম। তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুবকর সিদ্দিকের আত্মীয় তার যোগসাজসে সেখানকার প্রিজাইডিং অফিসার এবং ভোটগ্রহণের অন্যান্য কর্মকর্তারা কৌশলে ভোটগ্রহণের সময় নৌকা প্রতীকের সিল মারা ব্যালট পেপার কৌশলে কেন্দ্রের বাইরে ফেলে দেয় এবং পুরে ফেলে।

এ কারণে মাত্র ৪৩ ভোটে আমি হেরে গেছি। তিনি জানান, এ পর্যন্ত প্রায় ৬০ টি নৌকা প্রতীকে সিল মারা ব্যালট পেপার উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় তিনি কেন্দ্রটির ফলাফল বাতিল করে পুনরায় ভোটগ্রহণের দাবি জানান। এই দাবি পূরণ না হলে এ নিয়ে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে, এ ঘটনায় ৯নং দামোদরপুর ইউনিয়নজুড়েই তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্য জানা যায়নি মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রার্থী আবুবকর সিদ্দিকের।

Leave a Comment

betvisa