পদস্থ কর্মকর্তার কণ্ঠ নকল করে হাতিয়ে নিয়েছেন বিপুল টাকা

নাম তাঁর চন্দ্রশেখর মিস্ত্রি। নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের চিফ কম্পট্রোলার, প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব (এপিএস), স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিব (এপিএস), সেনাবাহিনী ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারও পরিচয় দিয়ে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ-বদলি স্কুল-কলেজে ভর্তি, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে দেওয়ার কথা বলে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।গতকাল বুধবার রাতে মোহাম্মদপুর থানার পুলিশ তেজগাঁওয়ের নবীনবাগ এলাকা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে। এরপরই প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল অঙ্কের টাকা আত্মসাতের বিষয়টি সামনে আসে।

চন্দ্রশেখর (৪২) গ্রেপ্তার হওয়ার সময় তাঁর কাছ থেকে চাকরিপ্রার্থীর জীবনবৃত্তান্ত, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরির বিজ্ঞপ্তি, বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের বদলির আবেদন, সরকারি স্কুল-কলেজে ভর্তির আবেদন, সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের নাম, মুঠোফোন নম্বর, একাধিক সিল, ছয়টি মুঠোফোন, চারটি ডেবিট কার্ড ও বিভিন্ন ব্যাংকের চেক জব্দ করা হয়।আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার তাঁর কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, গ্রেপ্তার চন্দ্রশেখর মিস্ত্রি সরকারি-বেসরকারি চাকরিতে নিয়োগ, বদলি, স্কুল কলেজে ভর্তি, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে পাঠানো, গণভবন এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রবেশ পাস ও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের ব্যবস্থা করে দেওয়ার কথা বলে শতাধিক লোকের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। তাঁর আসল নাম চন্দ্রশেখর মিস্ত্রি হলেও তিনি শেখর নামে পরিচয় দিতেন।

২০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের চিফ কম্পট্রোলার পরিচয়ে চন্দ্রশেখর মিস্ত্রি ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের অধ্যক্ষকে ফোন করে একজন ছাত্রকে ভর্তি করতে চাপ দেন। এ ঘটনায় ওই অধ্যক্ষ মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা করেন। ওই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। চন্দ্রশেখর মিস্ত্রি যখন নিজেকে পদস্থ সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিতেন, আগে থেকে তাঁর কণ্ঠ নকল করে তাঁর মতো কণ্ঠ করার অভ্যাস করতেন। পরে অবিকলভাবে তাঁর মতো করে কথা বলতেন। তাঁর মুঠোফোনের তালিকা পর্যালোচনা করে এসব তথ্যের সত্যতা পাওয়া গেছে।এর আগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে ২০১৬ সালে তেজগাঁও থানা-পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করেছিল। আজ তাঁকে আদালতের মাধ্যমে একদিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

Leave a Comment