ঝকঝকে সুন্দর ত্বকের গোপন রহস্য

Glowing Skin Tips: এমন কেউ কি আছেন, যিনি সুন্দর ত্বক পেতে হতে চান না। হাজারো ক্রিম, প্যাক মেখেও সমাধান পাওয়া যায় না। কিন্তু আমাদের ত্বকের জন্য মানতে হবে কিছু রুটিন। সাতদিন এই রুটিন মেনে চললে নিখুঁত, মসৃণ, স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ত্বকের মালকিন হয়ে উঠতে পারবেন মাত্র এক সপ্তাহেই। কেমন করে মেনে চলবেন এই রুটিন? আপনার জন্য রইল টিপস
Skin Care Tips: ঝকঝকে সুন্দর ত্বকের মালিকন হয়ে উঠুন মাত্র ৭ দিনেই! রইল টিপস…

বেশির ভাগ মানুষ সবচেয়ে বেশি সচেতন থাকেন নিজের মুখ নিয়ে। সৌন্দর্য ধরে রাখতে পারলেই বয়স থমকে যাবে আপনার কাছে। আর আপনার সৌন্দর্য ধরে রাখতে হলে নিয়মিত ত্বকের সঠিক যত্ন নেওয়া প্রয়োজন।
বিশেষজ্ঞদের মতে, সুন্দর মুখের প্রাথমিক শর্ত হল নিখুঁত এবং উজ্জ্বল ত্বক। অবাক হচ্ছেন? ভাবছেন রোজনামচায় কী ভাবে সম্ভব? কিন্তু এটাই সত্যি৷ ত্বক পরিচর্যার কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চললে মাত্র একসপ্তাহেই তফাৎ বুঝতে পারবেন। দেখে নিন টিপস…
ত্বক পরিচর্যার প্রাথমিক তিনটে ধাপ। ক্লেনজিং, টোনিং, ময়েশ্চারাইজিংয়ের কথা জানি। কিন্তু আশ্চর্যভাবে আমাদের অনেকেই এই নিয়ম মেনে চলতে পারি না। আপনিও যদি সেই দলেই থাকেন, তা হলে আজই পরিবর্তন করুন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ধুলোময়লা আর দূষণের কারণে ত্বকের যে পরিমাণ ক্ষতি হয় তাতে ভালোভাবে নিজেদের ত্বক পরিষ্কার করা ছাড়া কোনও উপায় নেই।এর পর আপনার ত্বকের প্রকৃতির সঙ্গে মানানসই কোমল ক্লেনজার দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন৷ টোনার দিয়ে মুখ মুছে নিন৷ । গোলাপজল, গ্রিন টি, হোয়াইট ভিনিগারের মতো প্রাকৃতিক টোনার ব্যবহার করতে পারলে ভালো ফল পাবেন৷
তারপর ভালো কোনও ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন৷ ত্বক পরিষ্কার করার পর একটা প্রাকৃতিক ফেস প্যাক লাগাতে পারলে খুব ভালো হয়৷

কেবল বাইরে থেকে যত্ন নিলে হবে না, ভিতর থেকে ত্বকেরও যত্ন নিন৷ প্রচুর পরিমাণে ফল আর সবজি খান৷ । ত্বকের প্রকৃতির উপর নির্ভর করে ফলের মাস্কও ব্যবহার করতে পারেন ৷গরমে ত্বক যদি বেশি তেলতেলে হয়ে যায় তাহলে ত্বকে স্ট্রবেরি মাস্ক ও শুষ্ক ত্বকে কলার মাস্ক ভালো৷ এগুলো বাড়িতেই তৈরি করে নেওয়া যেতে পারে।সারাদিনে প্রচুর জল খান৷ শরীর থেকে টক্সিন ধুয়ে বেরিয়ে যাবে।
আর রাতে শুতে যাওয়ার আগে প্রথমদিনের মতো ত্বক পরিষ্কারের রুটিন মেনে চলুন ৷

তৃতীয় দিনে মুখের ত্বকের মৃত কোষ তুলে ফেলুন ৷এক্সফোলিয়েটিং স্ক্রাব দিয়ে হালকা মাসাজ করলে আপনার মৃত কোষ উঠে যাবে৷ এর পর ফেস প্যাক লাগিয়ে নিন৷ টোনার আর ময়েশ্চারাইজার দিয়ে তৃতীয় দিনের পরিচর্যা শেষ করুন ৷ তবে, বাইরে বেরোনোর আগে অবশ্যই কিন্তু সানস্ক্রিন লাগাবেন৷ আর রাতে শুতে যাওয়ার আগে প্রথমদিনের মতো ত্বক পরিষ্কার করতে ভুলবেন না যেন ৷

চতুর্থ দিন আয়নার সামনে দাঁড়ান আর নিজের তফাৎটা দেখে নিন। ৪ দিনের দিন একটা স্টিম নিন। মিনিট দশেক মুখে স্টিম নেওয়ার পর মধু আর ওটমিল দিয়ে বানানো একটা প্যাক লাগিয়ে নিন।ত্বক ভিতর থেকে একেবারে পরিষ্কার হয়ে যাবে। এর পর গোলাপজল দিয়ে টোনিং করে ময়েশ্চারাইজার মেখে নিন।রাতে শুতে যাওয়ার আগে প্রথমদিনের মতো ত্বক পরিষ্কার করুন।

পঞ্চম দিনের দিন সকালে ক্লেনজিং করুন। এর পর অ্যালোভেরা জেল দিয়ে মুখে মাসাজ করুন। এতে ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বেড়ে যায়বে।চোখের নিচে ডার্ক সার্কল থাকলে আন্ডার আই সেরাম লাগাতে শুরু করুন। মাসাজের পর ময়েশ্চারাইজার বা ডে ক্রিম মেখে নিন।সন্ধেবেলা ত্বক পরিষ্কার করার পর একটা চন্দনের প্যাক লাগিয়ে নিতে পারেন। এতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।

 

এই দিন আপনি ফের তৃতীয় দিনের মতোই ত্বক এক্সফোলিয়েট করুন।সপ্তাহে যদি দুই বার এক্সফোলিয়েট করতে পারলে ভালো হয়। সারা সপ্তাহ প্রচুর জল, স্যুপ, ফলের রস খান।শরীরে জলের পরিমাণ ঠিক থাকলে ত্বকও সুন্দর থাকবে।সাত দিনের মাথায় একটা ফের ফেশিয়াল নিতে পারেন। ক্লেনজিং টোনিং ময়েশ্চারাইজিং-এর রুটিন তো আছেই।়জল খান বেশি করে, ত্বকের কোমলতা আর নমনীয়তা রক্ষার জন্য জলের কোনও বিকল্প নেই। প্রথম দিন থেকে সপ্তম দিনের রুটিন নিয়মিত মেনে চলুন। ত্বক নিয়ে আর কোনও সমস্যা আপনার থাকবে না।

ডিসক্লেইমার:
এই প্রতিবেদনটি কেবলমাত্র তথ্যের জন্য, এটি কোনও ওষুধ বা চিকিৎসার অঙ্গ নয়। আরও বিস্তারিত জানতে হলে সর্বদা বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

Leave a Comment

betvisa