জান্নাতকে নিয়ে বাড়ি ফিরে গেল সেই রিকশাচালক বাবা

জান্নাতকে নিয়ে বাড়ি ফিরে গেল সেই রিকশাচালক বাবা

ঠাকুরগাঁওয়ের এক রিকশা চালক ফাদার তারেক ইসলাম চিকিত্সা শেষে শিশু জান্নাতকে নিয়ে দেশে ফিরেছিলেন। পরিবার তার দেশে ফিরে অসুস্থ সন্তানের চিকিত্সায় সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানায়।

রবিবার (২৫ এপ্রিল) দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে তিনি রংপুর মেডিকেল কলেজ (আরএমইসি) হাসপাতাল থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। এ সময়, তারেক ঠাকুরগাঁও থেকে রিকশাটি পিকআপ ভ্যানে করে নিয়ে যায় যা নয় ঘন্টা চলছিল।

এর আগে সকাল 11 টার দিকে হাসপাতালের পেডিয়াট্রিক সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহফুজুল হক শিশুটির মুক্তি নিশ্চিত করেছেন।

, সোমবার (১৯ এপ্রিল) সকাল সাড়ে এগারটায় শিশু জান্নাত পরিচালিত হয়েছিল। অস্ত্রোপচারের পরে শিশু জান্নাতকে সাত দিনের জন্য হাসপাতালের পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ডে রাখা হয়েছিল। পেটে মোচড় পড়ে শিশু অসুস্থ হয়ে পড়ে। বর্তমানে শিশুর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে এবং তাকে ছাড় দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, নয় দিন হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে সুস্থ শিশু জান্নাত দেশে ফিরে আসার আগে রিকশা চালক বাবা তারেক ইসলাম আল্লাহকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমি খালি হাতে হাসপাতালে এসেছি। আমার বাচ্চা চালানোর জন্য আমার এক টাকাও ব্যয় করতে হয়নি। এখন শিশু সুস্থ আছে। বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। আমার সন্তানের সম্পর্কে খবর ছড়িয়ে দেওয়ার পরে, সন্তানের ভবিষ্যতের জন্য আমি বিদেশ থেকে বিদেশে যে অর্থ পেয়েছিলাম তা দিয়ে জমি কিনেছিলাম।

সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি বলেছিলেন, “ঠাকুরগাঁও থেকে আমার হাসপাতালে আসার খবর প্রকাশের পরে আরও অনেক সাংবাদিক এসে সংবাদটি জানিয়েছেন।” স্বপ্ন নামে সুপারশপটি আমার অসুস্থ শিশুর চিকিত্সার জন্য গণমাধ্যমে আমার দুর্দশার কথা জানিয়ে প্রচার করেছে। এছাড়াও আমি রংপুর জেলা প্রশাসক অসিব আহসান এবং স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ওয়ে ফর থেম সহ বিভিন্ন সংস্থা, ব্যক্তি ও সংস্থার আর্থিক অনুদান পেয়েছি। তবে আমি যখন ঠাকুরগাঁও ছেড়েছি রংপুরের উদ্দেশ্যে, তখন আমার একশো টাকাও ছিল না।

জান্নাতের মা সুলতানা বলেছিলেন, “আলহামদুলিল্লাহ এখন খুব ভাল লাগছে। আমার মেয়ে ভাল আছেন। সবার সহযোগিতা ব্যতীত আমি অপারেশনটি করতে পারতাম না। এটি সম্ভব হয়েছে কারণ সবাই এগিয়ে এসেছে। আমরা সবার কাছে কৃতজ্ঞ। আমি আমার মেয়েকে নিয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। প্রত্যেকে উন্নত ভবিষ্যতের জন্য দোয়া করবেন।

১৩ ই এপ্রিল রাতে শিশু জান্নাতকে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। পরের দিন উন্নত চিকিৎসার জন্য চিকিৎসক তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। কিন্তু অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া বাড়াতে না পেরে তারেক শনিবার তিনদিন পর রিকশায় করে তার শিশুকে নিয়ে রংপুরে আসেন।

ব্যাটারি চালিত রিকশা চালক তারেক ইসলাম ও তার স্ত্রী সুলতানা বেগম নিঃস্ব। আয়ের একমাত্র উত্স হ’ল চার্জার রিকশা। তারেক ইসলাম ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার দক্ষিণ সালান্দর গ্রামের রামবাবুর গোডাউন এলাকার বাসিন্দা আনোয়ার হোসেনের বড় ছেলে। তাঁর 9 ও 3 বছর বয়সী আরও দুটি কন্যা রয়েছে।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *