জলবায়ু পরিবর্তন বিশ্বনেতাদের পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্বন নিঃসরণ হ্রাস, জলবায়ু ক্ষতি নিরসন ও পুনর্বাসনে বার্ষিক 100 বিলিয়ন ডলার নিশ্চিত করা এবং পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তিতে আরও বেশি মনোনিবেশ সহ চারটি পরামর্শ বিশ্ব নেতাদের কাছে উপস্থাপন করেছেন।

বৃহস্পতিবার (২২ শে এপ্রিল) মার্কিন রাষ্ট্রপতি জো বিডেনের সভাপতিত্বে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক দুই দিনব্যাপী শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী এক ভিডিও বার্তায় এই মন্তব্য করেন।

মার্কিন রাষ্ট্রপতি জো বিডেন সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ ৪০ জন বিশ্ব নেতাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উন্নত দেশগুলিকে বৈশ্বিক তাপমাত্রা 1.5 ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রাখার জন্য এবং কার্বন নির্গমন হ্রাস করার জন্য তাত্ক্ষণিক ও উচ্চাকাঙ্ক্ষী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলেছেন এবং প্রশমিতকরণ ব্যবস্থায় মনোনিবেশ করার জন্য।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দ্বিতীয় পরামর্শ হ’ল জলবায়ু পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্থ জনগোষ্ঠীর প্রতি বিশেষ মনোযোগ দিয়ে এই তহবিলকে 50 শতাংশ অভিযোজন এবং 50 শতাংশ প্রশমিতকরণের জন্য বার্ষিক ১০০ কোটি ডলার অর্থ ব্যয় নিশ্চিত করা এবং এই তহবিলটি ব্যবহার করা।

শেখ হাসিনা প্রধান অর্থনীতি, আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং বেসরকারী খাতকে উদ্ভাবন ও জলবায়ু অর্থায়নের জন্য এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।

চতুর্থ পরামর্শ হিসাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবুজ অর্থনীতি এবং কার্বন নিরপেক্ষ প্রযুক্তির রূপান্তর করার প্রয়োজন রয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, কোভিড -১৯ মহামারী আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে বিশ্বব্যাপী সঙ্কট কেবলমাত্র সম্মিলিত পদক্ষেপের মাধ্যমেই মোকাবেলা করা যেতে পারে।

সম্মেলনের হোস্টিংয়ের জন্য মার্কিন রাষ্ট্রপতি জো বিডেনকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে ফিরে আসার এবং এতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে যুক্ত করার ক্ষেত্রে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রহের প্রশংসা করেছে বাংলাদেশ।

শেখ হাসিনা উল্লেখ করেছিলেন যে বাংলাদেশ সীমিত সংস্থানযুক্ত জলবায়ু-প্রভাবিত দেশ হওয়া সত্ত্বেও অভিযোজন ও প্রশমনকরণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছিলেন, বাংলাদেশ প্রতিবছর জলবায়ু অভিযোজন এবং টেকসই অবকাঠামো গড়ে তুলতে পাঁচ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করে, যা আমাদের জিডিপির 2.5 শতাংশ।

প্রধানমন্ত্রী মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে নির্বাসিত ১.১ মিলিয়ন রোহিঙ্গা মানুষ এবং এর ফলে পরিবেশগত ক্ষতির কথা উল্লেখ করেছেন।

শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ মুজিব বর্ষ উদযাপন করছে। প্রধানমন্ত্রী মুজিব বছরে সারাদেশে ৩০ কোটি গাছ লাগানোর উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন।

মার্কিন রাষ্ট্রপতি জো বিডেন সম্মেলনের কার্যত উদ্বোধন করেছিলেন।

Leave a Comment