চাঁপাইনবাবগঞ্জের মতো ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টির শঙ্কা রংপুরে

চাঁপাইনবাবগঞ্জের মতো ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টির শঙ্কা রংপুরেচাঁপাইনবাবগঞ্জের মতো ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টির শঙ্কা রংপুরে

রংপুরে করোনার সনাক্তকরণের হার ১৮ শতাংশেরও বেশি হয়েছে। তার পরেও সীমান্তের লোকেরা আসা-যাওয়া চালিয়ে যায়। এটি রংপুরে ভারতীয় করোনার বিস্তার সম্পর্কে ভয় বাড়িয়ে তুলছে। বুড়িমারী স্থলবন্দরসহ বিভিন্ন সীমান্ত অঞ্চল থেকে কয়েক হাজার মানুষ প্রতিদিন বিভাগীয় শহর রংপুরে চিকিৎসা ও জীবিকার প্রয়োজনসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের জন্য আসছেন এবং যাচ্ছেন। করোনভাইরাস তাদের মাধ্যমে আরও ছড়াতে পারে – এটি স্বাস্থ্য বিভাগের উদ্বেগ।

কর্মকর্তারা বলছেন যে তারা প্রতিদিন বুড়িমারী ও বাংলাবান্ধা সহ বিভিন্ন প্রয়োজনে রংপুরে বিভিন্ন প্রয়োজনে আসছেন এবং যাচ্ছেন। যদিও আসাদ সীমান্তের মাধ্যমে দেশে চূড়ান্ত করা হচ্ছে, তবুও সীমান্তের লোকেরা তাঁর যোগাযোগে রয়েছে। এছাড়াও আসন্ন কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে চোরাচালানকারীরা সীমান্ত পেরিয়ে অবৈধভাবে ভ্রমণ করে। তাদের মাধ্যমে করোনাও ছড়িয়ে যেতে পারে।

স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের মতো রংপুরও ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। রংপুর বিভাগে ভারত ও বাংলাদেশের মানুষের জন্য পাঁচটি স্থলবন্দর রয়েছে। বন্দরগুলি হ’ল লালমনিরহাটের বুড়িমারী, পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা, দিনাজপুরের হিলি ও রাধিকাপুর এবং কুড়িগ্রামের রৌমারীতে তুরা রোড। যদিও কিছু লোক এই সীমান্তগুলির মধ্য দিয়ে আইনত এসেছেন, তবে তাদেরকে পৃথকীকরণে রাখা হচ্ছে। তবে তাদের আত্মীয়স্বজনরাও তারা পৃথক অবস্থায় থাকাকালীন তাদের সাথে দেখা করতে যাচ্ছেন। তারা আবার তাদের বাড়িতে ফিরে আসছেন। তারা কতটা নিরাপদ তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

এদিকে, গত ২৪ ঘন্টা রংপুর বিভাগে ২৮২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে এবং ৪৭ জনের মৃতদেহে করোনাকে সনাক্ত করা হয়েছে। এ পর্যন্ত এক লাখ ৩২ হাজার ৬৬২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে এবং ১৮ হাজার ৮৯১ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। ২৪ ঘন্টা ২ জন মারা যান। মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩৯২ জন। করোনার সনাক্তকরণের হার ১৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ২ দশমিক ৮ 

জানা গেছে, বুড়িমারী-পাটগ্রাম থেকে প্রতিদিন কমপক্ষে ৫০ জন যাত্রী মাইক্রোবাস বাস রংপুরে আসে। দিন শেষে মাইক্রোবাসগুলি যাত্রীদের সাথে ফিরে গেল। প্রতিটি মাইক্রোতে ১০ জন লোক থাকলেও বুড়িমারী স্থলবন্দর এলাকা থেকে প্রতিদিন মাত্র ৫০০ জন রংপুরে আসে এবং যায়। রবিবার রংপুর মেডিকেল কলেজে চিকিৎসার জন্য আসা পাটগ্রামের যাত্রী আইয়ুব আলী জানান, তিনি চিকিত্সাসহ কিছু কাজের জন্য প্রায় প্রতি সপ্তাহে রংপুরে আসেন। মাইক্রোবাসে যাত্রী নিয়ে আসা ও নেওয়া হওয়ায় রংপুরের সাথে যোগাযোগ আরও সহজ হয়ে গেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যারা রংপুরে মাইক্রোবাসে আসেন, তারা দিন শেষে সেই মাইক্রোবাসে ফিরে যান। আসা-যাওয়ার ভাড়া জনপ্রতি ৬০০ টাকা।

বুড়িমারী স্থলবন্দর থেকে ব্যবসায়ী ইদ্রিস আলী গতকাল একটি মাইক্রোবাসে রংপুরে একটি পোশাকের দোকান থেকে পণ্য কিনতে এসেছিলেন। তিনি জানান, বুড়িমারী থেকে লালমনিরহাট হয়ে বাসটি রংপুরে যেতে কমপক্ষে ৫০ কিমি যেতে হবে। রাস্তাগুলিও খারাপ, কাজ করে ফিরে আসা কঠিন করে তোলে। সে কারণেই নিয়মিত মাইক্রোয় তিস্তা ব্যারেজ হয়ে তিনি রংপুরে এসেছিলেন। তবে করোনার সময় সীমান্ত অঞ্চল থেকে আসা-যাওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ায় তিনি এ বিষয়ে কোনও ভাল উত্তর দিতে পারেননি।

এদিকে পাটগ্রাম উপজেলা প্রশাসন ও বুড়িমারী ইমিগ্রেশন পুলিশ প্রদত্ত তথ্য অনুসারে প্রথম পর্যায়ে ২৬ এপ্রিল থেকে পাসপোর্ট সহ যাত্রীদের যাত্রা বন্ধ করে ১৪ দিনের জন্য ঘোষণা করা হয়েছিল। পরে মে দ্বিতীয় দফায় আরও ১৪ বছরের জন্য বাড়ানো হয়েছিল দিন তবে, ভারতের বাংলাদেশ দূতাবাসের অনুমতি নিয়ে ২৮ শে এপ্রিলের প্রথম দিনে ছয় জন দেশে ফিরে এসেছিলেন। এরপরে গত শনিবার পর্যায়ক্রমে ১৬ জনসহ ৩২৮ জন দেশে ফিরেছেন। এগুলি প্রাতিষ্ঠানিক পৃথকীকরণে রাখা হয়। তাদের মধ্যে পাঁচটি তাদের শরীরে করোনভাইরাস সনাক্ত করেছিল। চারজন সুস্থ হয়ে দেশে ফিরেছেন। প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারানটাইন শেষে মোট ৯২ জন ছাড়পত্র পেয়েছে।

সরকারী নির্দেশিকা অনুসারে, ভিসার মেয়াদ ১৫ দিনেরও কম এবং যাত্রীরা দেশে ফিরতে সক্ষম হবেন। ভারতের কলকাতার বাংলাদেশ উপ-হাই কমিশনারের কার্যালয় থেকে নির্দেশনা রয়েছে যে এনওসি এবং করোনার নেতিবাচক শংসাপত্র সহ যাত্রীরা এই ইমিগ্রেশন সেন্টারের মাধ্যমে বাংলাদেশে এবং একইভাবে ভারতীয় পাসপোর্টের সাথে যাতায়াত করতে পারবেন।

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক মো। আহাদ আলী জানান, ভারত থেকে আগতদের আলাদা করে রাখা হচ্ছে। তবে তাদের আত্মীয়রা বেড়াচ্ছেন। ভারতীয় ধরণের সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে। এর বাইরেও আশঙ্কা রয়েছে যে অবৈধভাবে আসা-যাওয়া লোকেরা ভারতীয় ধরণের করোনার বিস্তার করবে।

By নিজস্ব প্রতিবেদক

রংপুরের অল্প সময়ে গড়ে ওঠা পপুলার অনলাইন পর্টাল রংপুর ডেইলী যেখানে আমরা আমাদের জীবনের সাথে বাস্তবঘনিষ্ট আপডেট সংবাদ সর্বদা পাবলিশ করি। সর্বদা আপডেট পেতে আমাদের পর্টালটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *