ঘেমে যাওয়া চুলের যত্নে করণীয়

গরম মানেই মাথা ঘামা শুরু। ফলে চুল পড়া আরও বেড়ে যায়। গরমের সময় এই সমস্যা ঘরে ঘরে। আবার যাদের স্ক্যাল্প আগে থেকেই অয়েলি, ঘাম হলে আরও তেলতেলে হয়ে যায়। এতে নোংরা স্ক্যাল্পে চেপে বসে থাকে। ফলে চুল পরে। ঘামলে স্ক্যাল্পে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ হয়। এতেও চুলের ক্ষতি হয়।

তবে এসব সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব যদি নিয়মিত চুলের যত্ন নেয়া যায়। অতিরিক্ত গরম পড়ার আগেই চুলের জন্য বিশেষ কিছু যত্ন নেয়া শুরু করতে হবে তাহলে আর হারাতে হবে না শখের চুল। 

. চুলে নিয়মিত শ্যাম্পু করতে হবে।  চুল যদি খুব তেলতেলে প্রকৃতির হয় তাহলে সপ্তাহে তিন থেকে চারদিন শ্যাম্পু করা ভালো । শ্যাম্পু করলে স্ক্যাল্পে নোংরা যেমন জমতে পারে না, তেমনি অতিরিক্ত তেলও ধুয়ে যায়। শ্যাম্পু করার পর  ঠান্ডা পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে   সেই তরল মাথায় ব্যবহার করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে আর পরে চুল ধুতে হবে না। চুল ও স্ক্যাল্প থাকবে সতেজ।  

. সপ্তাহে এক বা দুদিন স্টিম নিতে হবে মাথায় । এতে রোমছিদ্র গুলো খুলে যায়। জমে থাকা ময়লা, তেল পরিষ্কার হয়ে যায়। তোয়ালে গরমজলে ভিজিয়ে সেটা জড়িয়ে রেখে দিতে হবে মাথায়। এটা শ্যাম্পুর ঠিক আধঘণ্টা আগে করলে ভালো হয়। 

. গরমকালে চুল যতটা সম্ভব হালকা করে বাঁধতে হবে  যাতে হাওয়া বাতাস খেলতে পারে আর মাথা না ঘামে। টাইট করে চুল বাঁধলে মাথা চুলের গোড়ায় ঘাম জমে।  

৪. নিয়মিত চুল আঁচড়াতে হবে। যদি সম্ভব হয় তিন চার বার একদম গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত চুল আঁচড়াতে হবে।  যত চুল আঁচড়ানো হবে  তত রক্ত সঞ্চালন বাড়বে। ঘামও কম জমবে। হেয়ার ফলিকলস গুলো ভালোভাবে কাজ করবে।

. এছাড়াও বেশি করে পানি  পান করতে হবে । এতে শরীর ও চুল দুটোই ভালো থাকবে। হেলদি ডায়েট মেনে চলা অত্যন্ত কার্যকরী।  শাকসবজি, ফল, প্রোটিন খাওয়া উচিত প্রতিদিন। কারণ চুলের কোয়ালিটি  ভালো রাখতে পুষ্টি খুবই  দরকার।

Leave a Comment