কঠোর লকডাউন নোয়াখালী পৌরসভা ও সদর উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে

করোনার সংক্রমণের ধারাবাহিকভাবে বর্ধনের পরিপ্রেক্ষিতে নোয়াখালী পৌরসভা ও সদর উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে কঠোর তালাঘাট ঘোষণা করা হয়েছে। শনিবার সকাল আটটা থেকে ১১ জুন রাত ১২ টা পর্যন্ত কঠোর লকডাউন কার্যকর হবে। শুক্রবার বিকেলে জেলা সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির জরুরি সভা শেষে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এ বিষয়ে জনসাধারণকে নোটিশ দেওয়ার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নোয়াখালী পৌরসভা সীমান্তের মধ্যে সমস্ত ধরণের যানবাহন, দোকান, শপিংমল এবং যান চলাচল বন্ধ থাকাকালীন বন্ধ থাকবে। তবে পণ্যবাহী যানবাহন, সরকারী যান এবং অনুমোদিত যানবাহনের চলাচলে কোনও বিধিনিষেধ থাকবে না। এ ছাড়াও সকাল ৮ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত দোকান ও কাঁচামালের বাজার খোলা থাকবে। ওষুধের দোকানটি যথারীতি উন্মুক্ত থাকবে। আপনি খাবারের দোকান থেকে খাবার কিনে খেতে পারেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা ইনফেকশন প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ও জেলা সিভিল সার্জন মাসুম ইফতেখার আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে ৫ টার দিকে জানান, নোয়াখালী পৌরসভা ও সদর উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নকে তালাবদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে জেলার সার্বিক করোনার পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা শেষে। আজ বিকেলে সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির সভা।
সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, তালাবন্ধনের আওতাভুক্ত অঞ্চল হ’ল নোয়াখালী পৌরসভা এবং সদর উপজেলার কাদিরহানিফ, নয়ননাই, বিনোদপুর, নোয়াখালী ইউনিয়ন, নিয়াজপুর ও আশওয়াদিয়া ইউনিয়নগুলি। এই ইউনিয়নগুলির মধ্যে সমস্ত ধরণের দোকান এবং যানবাহন বন্ধ থাকবে। বাহকবাহী যানবাহন ব্যতীত অন্য কোনও যানবাহন বাইরে থেকে এই অঞ্চলে প্রবেশ করতে পারে না। লকডাউন বাস্তবায়ন কঠোরভাবে সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটি দ্বারা তদারকি করা হবে।

জেলা সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির চেয়ারম্যান ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান বলেছেন, ৫ জুন সকাল ১১ টা থেকে রাত ১২ টা পর্যন্ত লকডাউন কার্যকর থাকবে। লকডাউন চলাকালীন পৌরসভা এলাকায় সব ধরণের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে জরুরি সার্ভিসে নিযুক্ত যানবাহনগুলি লকডাউনের বাইরে থাকবে। জেলা শহরের সোনাপুর বাসস্ট্যান্ড পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। তবে, দূরপাল্লার যানবাহনগুলি পৌরসভার বাইরে থেকে যাত্রী পরিবহন করতে সক্ষম হবে।
নোয়াখালীতে প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। এর মধ্যে নোয়াখালী পৌরসভা ও সদর উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের হার রয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায়, জেলার ৩২৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে এবং ১১৪ করোনায় পজিটিভ পাওয়া গেছে সনাক্তকরণের হার ৩৪.৭৬ শতাংশ। সর্বশেষ চিহ্নিত ১১৪ জনের মধ্যে ৭৮ জন সদর উপজেলার বাসিন্দা। বাকী গুলো জেলার অন্যান্য উপজেলার বাসিন্দা।

Leave a Comment