এলপিজি বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে

ব্যবসায়ীরা তরল পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) দাম নির্ধারণ করতেন। কিছু দিন আগে, বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) জন শুনানির পরে প্রথম এলপিজির দাম নির্ধারণ করে। তবে ব্যবসায়ীরা বিইআরসি কর্তৃক নির্ধারিত দামে এলপি গ্যাস বিক্রি করছে না। অভিযোগ রয়েছে যে তারা সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে ১০০ থেকে ৪০০ টাকায় বেশি এলপিজি বিক্রি করছে। অঞ্চল ও সংস্থার উপর নির্ভর করে বেসরকারী পর্যায়ে ১২ কেজি সিলিন্ডারের দাম ৯৭৫ টাকা হবে বলে আশা করা হচ্ছে, তবে এটি বিক্রি হচ্ছে এক হাজার টাকা থেকে ১৪,০০ টাকায়।

সরবরাহকারীদের মালিকরা বলছেন যে সরকার তাদের উত্পাদন ব্যয় না রেখে দাম নির্ধারণ করছে। আপনি যদি নির্ধারিত দামে বিক্রি করেন তবে আপনাকে লোকসানের গণনা করতে হবে। তাই তারা দামটি নিয়ে পুনর্বিবেচনা করতে বিইআরসিকে একটি চিঠি পাঠিয়েছে।

বিইআরসি, নিয়ন্ত্রক, প্রথমবারের মতো এলপিজির দাম নির্ধারণ করে ভার্চুয়াল প্রেস কনফারেন্সের মাধ্যমে ১২ এপ্রিল। নির্ধারিত দাম অনুসারে, সরকারী পর্যায়ে ১২ কেজি এলপিজির দাম ৫৯১ টাকা এবং বেসরকারী পর্যায়ে ১২ কেজি দাম সিলিন্ডার ৯৭৫ টাকা এবং ৪৫ কেজি সিলিন্ডার ৩৬,৫৯ রুপি। নতুন দামটি ঘোষণা করা হয়েছিল এবং সেদিন থেকে এটি বাজারে কার্যকর হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তবে দেখা গেছে যে কোনও ভোক্তা সরকার নির্ধারিত দামে এলপিজি কিনতে পারছে না।

এলপিজির দাম যাচাই করতে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন বিভাগ, জেলা ও উপজেলার খুচরা বাজারগুলো সন্ধান করা হয়েছিল। সেখান থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, সরকার নির্ধারিত দামে এলপিতে গ্যাস বিক্রির কোনও খবর পাওয়া যায়নি। এলপিজি এলাকায় সিলিন্ডার প্রতি ৫০ থেকে ৪০০টাকা পর্যন্ত বেশি দামে বিক্রি করা হচ্ছে।

রাজধানীর উত্তর বদদার রহিমা এন্টারপ্রাইজের শরিফুল আলম জানান, যে দামে তারা কিনতে হয় তার ভিত্তিতে মুনাফায় খুচরা পর্যায়ে তাদের বিক্রি করতে হয়। যে সিলিন্ডার বেশি দামে কেনা হয় তাদের বেশি দামে বিক্রি করতে হয়। একই কথা শেওড়াপাড়া এলাকার মিতালী স্টোর ব্যবসায়ী খলিলুর রহমান বলেছিলেন।

রাজধানীর মোহাম্মদপুর, ধানমন্ডি, হাটখোলা, যাত্রাবাড়ী, মানিকনগর ও মুগদা অঞ্চলগুলি নির্দিষ্ট দামে বিক্রি করতে দেখা যায়নি। উত্তরার বেশ কয়েকটি মার্কেটের ব্যবসায়ীদের মতে তারা প্রতি সিলিন্ডারে ৯৭৫ টাকায়ও বিক্রি করতে পারছেন না। তবে সরকারী গ্যাস সিলিন্ডার দেখা যায়নি।

ঢাকার বাইরে, অঞ্চল ও সংস্থার উপর নির্ভর করে চট্টগ্রাম ৯৫০ থেকে এক হাজার টাকায় বিক্রি করছে। হালি শহরের কয়েকটি দোকান থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে, ১২ কেজি মোট গ্যাস ১১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বসুন্ধরা ও ওমেরা ১০৫০ টাকা। সরকারী পদ্মা, মেঘনা ও যমুনাও প্রতি অঞ্চল প্রতি ৯০০ থেকে ৯৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বরিশাল, বসুন্ধরা, ওমেরা, বেক্সিমকো, নাভানা, পদ্মায় 12 কেজি সিলিন্ডারে প্রতি ৯৫০ থেকে ১০৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ভোলা শহরে বিক্রি হচ্ছে গড়ে ১,০০০ টাকা থেকে ১১৫০ টাকা দামে।

খুলনায় সিলিন্ডারে ৯০০ থেকে ১০০০ টাকা। শেরপুরে সিলিন্ডারে ১,০০০, টাঙ্গাইলে ৯৫০ থেকে ১০০০ টাকা। রাজশাহীতে প্রতি সিলিন্ডারে ১০০০ টাকা, জামালপুরে ১১০০ টাকা। ময়মনসিংহের শিববাড়িতে ১৩০০ থেকে ১৪০০। নেত্রকোনায় ৯৫০। তবে, সরকারী সংস্থার জন্য সাড়ে ১২ কেজি সিলিন্ডারের দাম ৫৯১ টাকা এবং একটি প্রাইভেট ১২ কেজির জন্য এটি ৯৭৫ টাকা।

এ প্রসঙ্গে এলপিজি সরবরাহকারী ওমিরার প্রধান নির্বাহী শামসুল হক সারাবাংলাকে বলেন, “এলইআরসি এলপিজির জন্য যুক্তিসঙ্গত দাম নির্ধারণ করতে পারেনি। সিলিন্ডারে প্রতি ব্যয় উত্পাদন পর্যায়ে কম ধরা পড়েছে। আমরা সিলিন্ডার সরবরাহকারীর কাছে পৌঁছে দিয়েছিলাম। ব্যয় ধরা পড়বে না সর্বোপরি উত্পাদনকারী সংস্থাকে কোনও লাভে রাখা হয়নি। “আমরা স্থির মূল্যের বিষয়ে পুনর্বিবেচনার জন্য বিইআরসিকে একটি চিঠি পাঠিয়েছি,” তিনি বলেছিলেন।

বাজারে দেখা গেছে, পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা সংস্থার গ্যাসের দামও বেশি। ঢাকার বাইরে সিলিন্ডার পাওয়া যায় না। যে জায়গাগুলিতে এটি পাওয়া গেছে সেখানে সিলিন্ডারে প্রতি ৫০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধিও দেখা গেছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের (বিপিসি) চেয়ারম্যান আবু বকর সিদ্দিক বলেছেন, তারা মাঠে তল্লাশি করবেন। তবে তারা এ জাতীয় কোনও অভিযোগ পাননি।

বিইআরসি চেয়ারম্যান মো. আবদুল জলিলের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তারা পৌঁছাতে পারেনি। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কমিশনের একজন সদস্য সারাবাংলাকে বলেন, “এলপিজির দাম নির্ধারণ করা হয়েছে এবং যাচাই করা হচ্ছে।”

“সকল স্টেকহোল্ডারের সাথে পরামর্শ করে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে,” তিনি বলেছিলেন। দাম বেশি রাখার কোনও কারণ নেই। তবে ব্যবসায়ীরা চিঠিতে বলেছে, তাদের কোনও বক্তব্য থাকলে তা পর্যালোচনা করা যেতে পারে।

উল্লেখ্য যে, আদালতের আদেশসহ বিভিন্ন চাপের মুখে এলপিজির দাম নির্ধারণের জন্য বিইআরসি ১৪ জানুয়ারি একটি গণশুনানির আয়োজন করেছিল। সেই শুনানিতে, প্রযুক্তিগত কমিটি প্রতি মাসে এলপিজির দাম নির্ধারণের সুপারিশ করেছিল।

Leave a Comment

betvisa