ঈদের নামাজ হবে মসজিদে

ঈদগাহ বা উন্মুক্ত স্থানের পরিবর্তে, সরকার জামাতকে নিকটবর্তী মসজিদে পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ পড়ার জন্য অনুরোধ করেছে।

সোমবার ধর্ম মন্ত্রণালয় ঈদের নামাজের বিষয়ে একটি নির্দেশনা জারি করে এর বাস্তবায়নের অনুরোধ জানিয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একটি স্মারকলিপি দিয়ে বিশ্বব্যাপী মারাত্মক করোনার ভাইরাসের মারাত্মক মহামারী দেখা দিলে পর্যাপ্ত সুরক্ষা নিশ্চিত করার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে হাইজিন নিয়ম মেনে চলা অত্যন্ত জরুরি। এরই মধ্যে মসজিদে নামাজ পড়ার জন্য কয়েকটি নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার কারণে সারা দেশে জনসমাবেশ নিষিদ্ধ ছিল। এরই ধারাবাহিকতায় জনস্বাস্থ্যের বিবেচনার জন্য স্বাস্থ্য অধিদফতরের দেওয়া নির্দেশনা অনুসরণ করে বিশেষ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে এবং Eidদুল ফিতরের নামাজের জামাত আদায়ের জন্য শর্তসাপেক্ষ অনুরোধ করা হয়েছিল।

  1. ইসলামী শরিয়ত জামাতকে theদগাহে বা খোলা জায়গায় ঈদুল ফিতরের নামাজ পড়তে উত্সাহিত করে। তবে বর্তমানে সারা বিশ্বে আমাদের দেশে করোনার ভাইরাসের সংক্রমণের পরিস্থিতির কারণে উপাসকদের জানার ঝুঁকি বিবেচনা করে ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে নিকটতম মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছিল। প্রয়োজনে একই মসজিদে একাধিক জামাত অনুষ্ঠিত হতে পারে।

২. ঈদের নামাজের সময় মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। নামাজের আগে পুরো মসজিদটিকে জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। উপাসকরা প্রত্যেকে নিজের দায়িত্বে জৈনামাজ আনতে সক্ষম হবেন।

৩. করোনার ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে মসজিদে ওযুর জায়গায় সাবান / হাতের স্যানিটাইজার রাখতে হবে।

৪) হ্যান্ড স্যানিটাইজার / হাত ধোয়ার ব্যবস্থা সহ সাবান-জল মসজিদের প্রবেশপথে রাখতে হবে।

৫. প্রত্যেককেই বাসা থেকে অযু করা উচিত এবং মসজিদে এসে অযু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নেওয়া উচিত।

। ঈদের নামাজের জন্য জামাতে জামাতে আসা উপাসককে অবশ্যই মাস্ক পরার পরে মসজিদে আসতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জৈনামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না।

। ঈদের নামাজের সময় কাতারে দাঁড়িয়ে যখন অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে।

। শিশু, বৃদ্ধ, যে কোনও অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিতরা ঈদের নামাজে অংশ নিতে পারবেন না।

৯. জননিরাপত্তা সুরক্ষার জন্য স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নির্দেশিকা অনুসরণ করতে হবে।

১০. করোনার ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করতে মসজিদে জামাত শেষে আলিঙ্গন ও হাত কাঁপতে এড়াতে একটি অনুরোধ করা হচ্ছে।

১১. খতিব ও ইমামগণকে করোনার ভাইরাসের মহামারী থেকে বাঁচাতে ঈদুল ফিতরের নামাজের পর মহান রাব্বুল আল-আমিনের দরবারে নামাজ পড়ার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।

মাননীয় খতিব, ইমাম ও মসজিদ পরিচালনা কমিটি বিষয়গুলির বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবে। উল্লিখিত নির্দেশাবলী লঙ্ঘিত হলে স্থানীয় প্রশাসন এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলি দায়বদ্ধ ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে।

স্থানীয় প্রশাসন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলি, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সংশ্লিষ্ট মসজিদের পরিচালনা কমিটির পক্ষ থেকে মারাত্মক করোনার ভাইরাসের বিস্তার রোধে উপরের নির্দেশিকাগুলি কার্যকর করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছিল।

Leave a Comment