ইসলাম ধর্মে নারীদের বিশেষ সম্মান

ইসলাম ধর্মে নারীদের বিশেষ সম্মান

ইসলাম ধর্মে নারীদের বিশেষ সম্মান প্রদান করা হয়েছে। যা অন্য কোন ধর্মে তেমন ভাবে বলা হয়নি যা ইসলাম ধর্মে বলা হয়েছে। নারী হিসাবে জন্ম গ্রহণ করা যে কি একটা সৌভাগ্যর বিষয়। ইসলাম ধর্ম তার একটি দৃষ্টান্তর হয়ে আছে। নারীদের সবচেয়ে বর্বরতা যুগ থেকে এই ইসলাম ধর্ম তাদের মুক্তি দিয়েছে। নারী হিসাবে জন্মগ্রহণ করা অানন্দের বিষয়।

১০ টি কারণ উল্লেখ করবো নারী হয়ে জন্মের যে আনন্দের বিষয় তা যেন নারীরা উপভোগ করতে পারে এই জন্য। এই ১০ বিষয়ে দিকে তাকালে নারীরা অানন্দিত হতে পারে যে তারা ইসলাম ধর্মে নারী হয়ে জন্মগ্রহন করেছে। রাসূলগণের কাছে নারীরা ছিলো অধিক প্রিয় ও গুরুত্বের।

১. ইসলাম ধর্মে সবচেয়ে আগে নারীরা ইসলাম ধর্ম গ্রহন করে তারপরে পুরুষেরা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে। এটা সমগ্র নারী জাতিকে সম্মানিত করে। যিনি সর্ব প্রথম ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেছেন তার নাম হলো খাদিজাতুল কুবরা (রা:)।
২. আমার সবাই ভাবি যে যুদ্ধ হলে পুরুষেরা বেশি মৃত্যু বরণ কিন্ত ইসলাম ধর্মে আল্লাহ তাল্লা যুদ্ধে নারীদের আগে শাহাদাত বরণে সুযোগ করে দেই নারীদের জীবন আগে কবুল করে নেই। ইসলাম ধর্মে জন্য সর্বপ্রথম জীবন দিয়েছে এক জন্য নারী তার নাম হলো হযরত সুমাইয়া (রা:)। এটা নারীদের শ্রেষ্ঠতম ইসলাম ধর্মে দান যা শুধু নারীদের গর্বর বিষয়। এটা দেখে নারীরা আনন্দ হতে পারে।
৩. মেয়েরা মায়ের জাত, বোনের জাত, স্ত্রীর জাত, পুরুষদের সর্বদা সদাচারন করতে বলছেন আল্লাহ ও রাসূলগন। রাসূলগন ওসিয়ত করে গেছেন বিদায় হাজ্জে যে আমার বিদায় বেলা একটি কথা ওসিয়ত করে যাচ্ছি যে, তোমরা মেয়েদের সাথে সর্বদা সদাচারন করবে এবং তিনি এই কথাটা অনেক বার সেই সময় বলেছে গুরুত্ব সাথে এই থেকে বলা যায় মেয়েরা ইসলাম ধর্মে তত বেশি গুরুত্ব রয়েছে। পুরুষদের ক্ষেত্রে তেমন কিছু বলে নাই। তাই নারী ইসলামে ধর্মে বিশেষ সম্মান রয়েছে। এটা দেখে নারীরা আনন্দিত হতে পারে।
৪. ইসলাম ধর্মে পরিবারও স্ত্রীদের হাতে পুরুষদের ভালো টা সাটিফিকেট রয়েছে। তাই নারীদের সাথে ভালো ব্যবহার করতে হবে।
৫. একমাত্র ইসলামধর্মে নারীদের জন্য কুরআনে সূরা নাজিল হয়েছে তার নাম হলো সূরা আন নিসা । এটা নারীদের জন্য একটি বড় পাওনা।
৬. ইসলাম ধর্মে নারীদের জন্য জান্নাত সহজ করা হয়েছে যদি এই কাজ গুলো করা যায় নামজ, রোজা, সিয়াম, লজ্জা স্থান হিফাজত ও পর্দা করা। তাহলে যে কোন ৮ টি দরজা দিয়ে নারীরা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে। এটা নারীদের জন্য অনেক বড় সুখবর।
৭. মেয়েদের বাবার উপরে মযাদা দেওয়া হয়েছে ইসলাম ধর্মে যা অন্য কোন ধর্মে নেই। এটা নারী জন্য গুরুত্ব বিষয়।
৮. নারীরা যদি হজ্জ পালন করে তাহলে হজ্জ যে সওয়াব তা তো পাবে তার উপর জেহাদ ও শাহাদাতের সওয়াব লাভ করবে। যে শুধু নারীদের জন্য পুরুষদের জন্য না। এটা নারীদের আনন্দকর কথা।
৯. কন্যা সন্তান একটি পরিবারে জন্মগ্রহন নেওয়া মানে জান্নাতের গ্যারান্টি মা বাবা। তাই কন্যা সন্তানদের ইসলামি নিয়মে লালন পালন করা বাবা মার দায়িত্ব।
১০. মেয়ে বা বোনের সাথে সদাচারন করতে বলা হয়েছে ভাইদের, তাহলে তার এই জন্য জান্নাতে যাবে।


ইসলাম এমন একটি ধর্ম যা মানুষের শান্তির ধর্ম। এখানে নারীদের শ্রেষ্ঠতম উচ্চতম মর্যাদার অধিকারী করে তুলেছে যা অন্য ধর্মে গ্রন্থে নেই নারীদের মর্যাদা।

কলমে : ফারজানা খাতুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *