আরমানিটোলার সেই নবদম্পতি লাইফ সাপোর্টে

আরমানিটোলার রাসায়নিক গুদামে অগ্নিকাণ্ডে আহত নববধূ মুনা সরকার ও আশিকুজ্জামান খান আর হুঁশ পাননি। শনিবার তাদের হাসপাতালের ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) থেকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছিল।

শুক্রবার সকালে পুরান ঢাকার আরমানিটোলা আগুনে তারা হুঁশ হারিয়েছিল। চিকিত্সকরা জানিয়েছেন, দুজনের শরীরে ধোঁয়া লেগেছিল। শ্বাসনালী ক্ষতিগ্রস্থ হয়। দুজনই বর্তমানে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন। আইসিইউতে দুজনের জ্ঞান থাকলেও চিকিত্সকরা জানিয়েছেন, অবস্থা আশঙ্কাজনক।

মুনা সরকার এবং তার স্বামী আশিকুজ্জামান খান মাত্র দেড় মাস আগে বিয়ে করেছিলেন। মুনা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এবং আশিকুজ্জামান বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এর শিক্ষার্থী।

আশিকুজ্জামানের ছোট ভাই সালমান ফারসি আগুন লাগার পর থেকে তার বড় ভাইকে দেখেনি। তার বাবা-মা দেখেনি। আজ সকালে সালমান বলেছিলেন, “চিকিত্সকরা বলছেন যদি আপনি 72 ঘন্টার মধ্যে সচেতনতা ফিরে না পান তবে কিছু করার নেই।”

সালমান ফারসি বলেছিলেন, ‘(ভাই ও শ্যালিকা) আমাদের দেখতে দিত না। কেবল ছবি দেখানো হয়েছে। আমি দেখেছি সে আমাকে অক্সিজেন দিয়ে রাখছে। ‘

ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়কারী সামন্ত লাল সেন আজ সকালে বলেন, “এখনই করার কিছু নেই। আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করছি।”

সামন্ত লাল সেন বলেছিলেন যে আইসিইউতে চিকিত্সাধীন চার জনের মৃতদেহের 25 শতাংশ পুড়ে গেছে। মুনা ও আশিকুজ্জামান বাদে অন্য দুজনের অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেছিলেন, “চারজনের কেউই সত্যিই নিরাপদ নয়। প্রত্যেককেই শ্বাসকষ্টের সংক্রমণ বেশি। ‘

নববধূ মুনা ও আশিকুজ্জামানকে নিয়ে চিন্তাই করেননি মুনার বাবা ইব্রাহিম সরকার। আগুনের বড় মেয়ে এবং পুত্রবধু জীবন সমর্থনে, ছোট মেয়ে সুমাইয়া সরকার গতকাল (২০) মারা গেছেন। আগুন ইব্রাহিমের ছয়জনের পরিবারের কাউকে ছাড়েনি। তার স্ত্রী সুফিয়া সরকার ও ছেলে জুনাইদ সরকারও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ইব্রাহিম সরকার নিজেও ভর্তি হয়েছেন।

বিদায়ের সময় ইব্রাহিম সরকারের পরিবারের কেউই ছোট্ট মেয়েটিকে দেখতে পেল না। গত রাতে তাকে সোনারগাঁওয়ের নিজ গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হয়। সুমাইয়া ইডেন মহিলা কলেজের ইংরেজি বিভাগে দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন।

আশিকুজ্জামানের বাবা আবুল কাশেম খান বলেছিলেন, ‘আমরা এক মাস আগে বিয়ে করেছি। আশিকুজ্জামান তার খালার বাড়ি থেকে পড়াশোনা করেছেন। বুধবার রাতে সে তার শ্বশুর বাড়িতে আসে। শুনেছি নীচে রাসায়নিক গুদামে আগুন লেগেছে। কাঁদতে কাঁদতে বাসায় চলে এলাম। ‘

আরমানিটোলা অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মোট ২১ জনকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়াও আগুনে মোট চারজন মারা গেছেন।

গতকাল ভোর সোয়া তিনটার দিকে আরমানিটোলার ভবনে আগুন লাগে বলে ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে। ১৯ টি ইউনিট তিন ঘণ্টার চেষ্টার পরে গতকাল সকাল সাড়ে 30 টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। ভবনের পাশের একটি ভবনের বাসিন্দা অভিযোগ করেন যে ভবনের নিচে একটি রাসায়নিক গুদাম রয়েছে। তিনি দাবি করেছিলেন যে আশেপাশের প্রায় সকল ভবনেরই এমন গুদাম রয়েছে।

আগুন লাগার কারণ এখনও জানা যায়নি বলে ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে। ফায়ার সার্ভিস তদন্ত কমিটি গঠন করবে।

সূত্রমতে, আগুন লাগার পরে ভবনের নিচতলা ধোঁয়ায় নিমগ্ন ছিল ধীরে ধীরে ধোঁয়া উপরে উঠে যায়। উপরের তলার বাসিন্দারা আগুন দেখে অনুভূত হন। এ সময় লোকেরা বেরিয়ে আসার চেষ্টা করেছিল কিন্তু ধোঁয়া ও আগুনের কারণে বেরোতে পারেনি। তারা শীর্ষে উঠতে থাকে। তবে ভবনের ছাদটি তালাবদ্ধ ছিল এবং কেউ উপরে উঠতে পারেনি। বিভিন্ন ফ্লোরে আটকে থাকা লোকেরা চিৎকার করতে থাকে। আটকা পড়া বাসিন্দারা বারান্দা ও জানালা থেকে মোবাইল ফোন জ্বালিয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেছিল।

জানালার গ্রিল কেটে ভবনের বাসিন্দাদের বাইরে আনা হয়েছিল।

ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান বলেছেন, ধোঁয়ার কারণে বেশিরভাগ মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন।

Leave a Comment

betvisa