আদিতমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে স্বপদে বহাল রাখতে নির্দেশ

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক ইমরুল কায়েসকে একটি পদে রেখে তাকে পদে থাকার নির্দেশনা দিয়েছে।

মঙ্গলবার (১ জুন) স্থানীয় সরকার বিভাগ, স্থানীয় সরকার বিভাগ, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রীর সিনিয়র সহকারী সচিব মমতাজ বেগমের স্বাক্ষরিত চিঠিতে জেলা প্রশাসককে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। গত বছর সোমবার (৩০ নভেম্বর) স্থানীয় সরকার মন্ত্রক তাকে অসদাচরণসহ ছয়টি কারণ উল্লেখ করে বরখাস্ত করে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে। সেই থেকে ভাইস চেয়ারম্যান চিত্তরঞ্জন সরকার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ছিলেন।

চেয়ারম্যান: আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন অশ্লীল ভাষায় অসদাচরণ, অপব্যবহার, অপমানের অভিযোগে আদিতমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। চেয়ারম্যান ফারুক চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন বিভাগে আর্থিক বিষয় নিয়ে অনৈতিক দাবি করার চেষ্টা করছেন। এ ছাড়া উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা নুরেলা আক্তার অশালীন আচরণ করেছেন।

বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিনসহ ১৮ জন কর্মকর্তা গত বছরের ৩০ নভেম্বর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক ইমরুল কায়েসের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

তাকে উপজেলা পরিষদ আইন ১৯৯ 1996 এর ১৩ (বি) (১) ধারা এবং চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সংশোধিত আইন ২০১১ এর আওতায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। পদের আর্থিক ক্ষমতা উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যানকে দেওয়া হয়েছিল। বরখাস্ত হওয়া চেয়ারম্যান ফারুক ইমরুল কায়েস স্থানীয় সরকার বিভাগের আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেছিলেন (৯৬৮৭/২০২০)। এই প্রসঙ্গে হাইকোর্ট বরখাস্তের আদেশ স্থগিত করে রায় দেন। যা রাষ্ট্রের কাছে আবেদন করেছিল। ২৫ ফেব্রুয়ারি, হাইকোর্ট স্থগিতাদেশ বহাল রাখে। এ বিষয়ে মঙ্গলবার (২ জুন) স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিবের স্বাক্ষরিত আদেশে আদিতমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক ইমরুল কায়েসকে পদে রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। স্মারক নং – ৬৪.০০.০০০০ ০৪৬.০৩৬.২০২০-৩৭৭ ।

লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, আমি এখন পর্যন্ত এরকম কোনও চিঠি পাইনি। তবে চিঠি আসতে পারে। তারপরে ওই চিঠির আলোকে আবার মন্ত্রকে চিঠি দেওয়া হবে। এর পরে চেয়ারম্যান তার আসনে বসতে পারবেন।

দ্রষ্টব্য: – গত ১২, ইউএনও সহ ১৮ জন কর্মকর্তা দুষ্কৃতী ও অপমানজনক ভাষায় আদিতমারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুকের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসক (ডিসি) কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। এছাড়াও উপজেলা চেয়ারম্যান মাসিক সমন্বয় সভায় ভিজিডি ও মাতৃত্বকালীন ভাতার তালিকায় তাঁর অংশ দাবি করেন। ইউএনও নিয়মের সাথে একমত না হওয়ায় এটি প্রত্যাখ্যান করেছে। চেয়ারম্যান ক্ষুব্ধ হয়ে সভাটি অসম্পূর্ণ রেখে যান। চেয়ারম্যান ইউএনও অফিসের সিসিটিভি ক্যামেরা খুলতে গেলে ইউএনও মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন তার ছবি তোলেন। একই সঙ্গে, ইউএনও যখন শ্রেনীর ক্যামেরা খোলার কারণ জানতে চেয়েছিল তখন শ্রাবণ ভাষায় অপমান করা হয়েছিল। এদিন রাতে ইউএনও সহ ১৮ জন কর্মকর্তা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সাথে ডিসি সহ একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগটি তদন্তের পরে, জেলা প্রশাসন স্থানীয় সরকার মন্ত্রকে ১৮ নভেম্বর একটি ৩ 36 পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদন পাঠিয়েছে। তারপরে ২৪ নভেম্বর রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আবদুল ওহাব ভূঁইয়া স্থানীয় সরকার মন্ত্রকের প্রতিনিধি হিসাবে মাঠ তদন্ত করেন।

Leave a Comment