আগুনে পুড়লো তুরাগ বস্তির শতাধিক ঘর

রাজধানীর উত্তরা তুরাগ জেলার বালুচর বস্তিতে আগুনে কমপক্ষে দেড়শো বাড়ি পুড়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলি খোলা আকাশের নীচে মহিলা এবং শিশুদের সাথে তাদের উপবাস ভঙ্গ করেছেন।

বুধবার (২১ এপ্রিল) দুপুর ১২ টা ২০ মিনিটে রানাভোলার কাছে মোস্তফা সদস্যের বস্তিতে আগুনের সূত্রপাত হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি ইউনিট প্রায় দেড় ঘন্টা চেষ্টা করে দুপুর দেড়টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

উত্তরা ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার সৈয়দ মনিরুল ইসলাম জানান, তাদের ছয়টি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিভানোর চেষ্টা করেছিল। দুপুর দেড়টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

তবে কীভাবে আগুন লাগল তা তিনি বলতে পারেননি। তিনি জানান, টিনের ঘর পুড়ে গেলেও আগুন ছড়িয়ে যায়নি। পাশের ভবনগুলি সংরক্ষণ করা হয়েছে।

বস্তির বাসিন্দা শাকিল নামে এক যুবক জানান, দুপুর বারোটার দিকে আগুনের সূত্রপাত হয় এবং রাত সাড়ে বারোটায় ফায়ার সার্ভিস এসে পৌঁছে। প্রথমে বস্তিবাসীরা আগুন নেভানোর চেষ্টা করলেও আগুন জ্বলতে থাকে, তাই সবাই ছুটে যায় এক টুকরো টুকরো করে।

এদিকে, লকডাউনে স্বল্প আয়ের লোকেরা ইতিমধ্যে হতাশার মুখে পড়েছে, যেখানে আগুনে জায়গা হারিয়ে কয়েক হাজার মানুষ নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। পোড়ানো বাড়ির দিকে তাকিয়ে খোলা আকাশের নীচে বসে ইফতার শেষ করলেন তারা। কেউ কেউ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং বাসিন্দাদের সহায়তায় রোজা ভঙ্গ করেছেন, কিন্তু অনেক শিশু দুপুরের পর থেকে খায়নি। সুফিয়া নামের একজন গার্মেন্টস কর্মী বলেছিলেন, “খবর পেয়ে আমি কারখানায় ছিলাম এবং দেখলাম সবকিছু পুড়ে গেছে।”

এদিকে, খবর পেয়ে ঢাকা -১৮ সংসদ সদস্য মোহাম্মদ হাবিব হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

তিনি এই ঘটনার পরে সাংবাদিকদের বলেন, স্থানীয় কমিশনারকে আগুনে আক্রান্ত পরিবারগুলিকে সহায়তা করার জন্য বলা হয়েছিল। অধিকন্তু, অনুদান হিসাবে ক্ষতিগ্রস্থদের মধ্যে পঞ্চাশ বস্তা চাল বিতরণ করা হবে।

Leave a Comment