অবশেষে নড়ল সুয়েজ খালে আটকে পড়া দৈত্যাকার জাহাজ

বিশ্ব প্রতিবেদকঃ প্রায় সাত দিনের হতাশার চেষ্টার পরে, মিশরের সুয়েজ খালে আটকা পড়ে থাকা বিশাল বড় জাহাজ এমভি এভার গিভেনটি অবশেষে কাঁপানো হয়েছিল।

স্থানীয় সময় সোমবার ভোরে জাহাজটি পুনরায় চালু করা হয়েছিল বলে রয়টার্স জানিয়েছে। বিশ্বের অন্যতম ব্যস্ত এই বাণিজ্য রুটটি শীঘ্রই খোলা হবে।

দুটি সূত্র মতে, খালে আটকে থাকা জাহাজটি সোজা করা সম্ভব হয়েছিল। ভূমধ্যসাগরকে লোহিত সাগরের সাথে সংযুক্ত করার জন্য বৃহত্তম মানব-নির্মিত খালটি শিগগির শিপিংয়ের কাজ শুরু করার কথা রয়েছে।

জার্মান মিডিয়া ডয়চে ভেলের মতে, ৫০০ মিটার দীর্ঘ, ৫৯ মিটার প্রশস্ত, ২২০,০০০ টন জাহাজ ভূমধ্যসাগর অভিমুখে যাওয়ার সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছিল। এক পর্যায়ে এটি খালে আটকে যায়।

সম্ভবত, প্রবল বাতাসের কারণে জাহাজটি লাইনচ্যুত হয়েছিল। তারপরে এটি ঘুরে যায়। জাহাজের তলটি খালের নীচে কাদায় আটকে ছিল।

আটকা পড়ে থাকা দৈত্য জাহাজটি অপসারণের জন্য বিভিন্নভাবে চেষ্টা করা হয়েছিল। ড্রেজিং জাহাজ আনার মাধ্যমে, টাগ বোট ব্যবহার করে এবং উচ্চ জোয়ারের সময় ক্রমবর্ধমান জল এবং উচ্চ তরঙ্গ ব্যবহার করে এটিকে সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হয়। তবে কিছুই হচ্ছিল বলে মনে হচ্ছে না।

এভার দেওয়া হয়েছে এতটাই আটকা পড়েছিল যে জাহাজগুলি ভূমধ্যসাগর বা লোহিত সাগরের মধ্য দিয়ে যেতে পারত না। ফলস্বরূপ, প্রচুর জাহাজ দুটি দিকে আটকে গেল।

সুয়েজ খাল কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, খালের দু’পাশে কমপক্ষে কমপক্ষে ৩৬৯ টি জাহাজের ধারক, তরল প্রাকৃতিক গ্যাস, তেল ট্যাঙ্কার এবং প্রাণিসম্পদ বহন করা হয়েছে।

এর মধ্যে ১৩ টি রোমানিয়ান মালবাহী জাহাজ আটকে ছিল কয়েক হাজার প্রাণীকে রেখে। মিশর বলছে, পশুচিকিত্সকরা, সেই জাহাজগুলিতে খাবার এবং জল পাঠানো হচ্ছে।

সুয়েজ খাল অবরোধের ফলে বিশ্ব বিশাল ক্ষতি করেছে। প্রতিদিন প্রায় ৬০০ থেকে এক হাজার ডলার লোকসান হচ্ছে। এর মধ্যে কেবল মিশরই একদিনে এক কোটি ২০ লাখ থেকে এক কোটি ৪০ লাখ হারাচ্ছে।

Leave a Comment

betvisa