করোনায় এক দিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ৮৩

প্রায় চার মাসের মধ্যে আজ সর্বনিম্ন করোনায় মৃত্যু

করোনভাইরাস সংক্রমণ এবং মৃত্যু ক্রমাগত বাড়ছে। গত ২৪ ঘন্টা, করোনায় একটি রেকর্ড ৮৩ মানুষ মারা গেছে। এবং ৭ হাজার ২০১ নতুন রোগী সনাক্ত করা হয়েছে। সোমবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

গত ২৪ ঘন্টা (রবিবার সকাল ৬ টা থেকে সোমবার সকাল ৮ টা) পর্যন্ত ৩৪.৯৬৮ জনকে পরীক্ষা করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনা করে রোগীর শনাক্তকরণের হার ২০.৫৯ শতাংশ

এখন পর্যন্ত দেশে মোট ৬ লক্ষ ৯১ হাজার ৯৫১ জন মানুষ করোনার সংক্রমণে আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৯,6২২ জন মারা গেছে। মোট ৫ লাখ thousand১ হাজার ১১৩ জন উদ্ধার করেছেন।

গতকাল করোনায় ৭৮ জন মারা গেছেন। এবং ৫ হাজার ৮১৯ নতুন রোগী শনাক্ত করা হয়েছে।

গত বছরের March মার্চ সরকার দেশের প্রথম করোনার ঘোষণা দেয়। গত বছরের মে মাস থেকে সংক্রমণ বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। আগস্টের তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে সনাক্তকরণের হার 20 শতাংশেরও বেশি ছিল। এর পর থেকে সনাক্তকরণের হার কমতে শুরু করে।

জুন থেকে আগস্ট – এই তিন মাসে করোনারি সংক্রমণ তীব্র ছিল। মাঝেমধ্যে নভেম্বর-ডিসেম্বরে সামান্য বৃদ্ধি পাওয়া গেলেও বাকী সময় সংক্রমণটি নিম্নমুখী ছিল। এই বছরের মার্চ মাসে করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গ শুরু হয়েছিল। এবার প্রথম তরঙ্গের চেয়ে সংক্রমণ আরও তীব্র। বেশ কয়েকমাস ধরে চিহ্নিত রোগীর চেয়ে স্বাস্থ্যকর হওয়ায় দেশে চিকিৎসাধীন রোগীদের সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছিল। তবে মার্চের পর থেকে চিকিত্সাধীন রোগীদের সংখ্যাও আবার বাড়তে শুরু করেছে।

সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে কোনও দেশ রয়েছে কি না তা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক নির্ধারিত কয়েকটি সূচক দ্বারা নির্ধারিত হয়। এর মধ্যে একটি হ’ল রোগী শনাক্তকরণের হার। যদি পর পর দু’সপ্তাহের বেশি সময় ধরে রোগীর শনাক্তকরণের হার 5 শতাংশের নিচে হয় তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকবে বলে মনে করা হয়। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারির শুরু থেকে শেষ অবধি সনাক্তকরণের হার ছিল percent শতাংশের নিচে। দুই মাস পরে, 10 মার্চ, দৈনিক পরিচয়টি আবার প্রকাশ করা হয়েছিল। সেই থেকে প্রতিদিনের পরিচয় বাড়ছে।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার সংক্রমণের দ্বিতীয় তরঙ্গে দেশের পরিস্থিতি খারাপ হচ্ছে। সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে সরকার ২৯ শে মার্চ কিছু নিষেধাজ্ঞার সাথে ১ 16-দফা নির্দেশনা জারি করে। এর মধ্যে একটি হ’ল বাড়ি থেকে বেরোনোর ​​সময় একটি মুখোশ ব্যবহার। তবে সংক্রমণের আশংকাজনক বৃদ্ধি সত্ত্বেও মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে নারাজ। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে মুখোশ পরা সহ স্বাস্থ্যকরনের কোনও বিকল্প নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *